ভিক্টোরিয়াকে হারিয়ে ফারিয়া চ্যাম্পিয়ন

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল (ভিক্টোরিয়া) হাসাপাতালের উদ্যোগে প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে নগরীর জিমখানা আলাউদ্দিন খান ষ্টেডিয়ামে এ ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ভিক্টোরিয়া হাসাপাতালের আবাসিক অফিসার ডা. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান। খেলায় ভিক্টোরিয়া একাদশ ও ফারিয়া একাদশ দল অংশগ্রহন করে। খেলায় ভিক্টোরিয়া একাদশকে ৩-০ গোলে হারিয়ে ফারিয়া একাদশ দল চ্যাম্পিয়ন হয়। তবে এ খেলায় ফারিয়া দল চ্যাম্পিয়ন হলেও খেলার শুরু থেকে শেষ অব্দি চলে টানটান উত্তেজনা। খেলা শুরু হওয়ার মাত্র ৫ মিনিটের মাথায় মাহবুবের অসাধারন কিকে গোল এনে দেয় ফারিয়া একাদশকে। গোল হওয়ার পর আরো উত্তেজনা ছড়িয়ে পরে খেলার মাঠে। এরপর বেশ কয়েকটি সুযোগ আসে ভিক্টোরিয়া একাদশের, কিন্তু কোন সুযোগই তারা কাজে লাগাতে পারেনি। এরই মধ্যে বেজে উঠে র্যাফারির বাঁশি। জানান দেয়, খেলার মধ্যাহ্ন বিরতির। মধ্যাহ্ন বিরতির পর আবারো ঝড়ের গতি ছুটে চলে ফারিয়া একাদশ। ফারিয়া একাদশের তানভীরের পাঁয়ের যাদুর ছোঁয়ায় বল আবারো গোলপোষ্টের জালে আটকা পরে। ফলে আবারো গোল পায় ফারিয়া একাদশ। দু’দলের স্কোর যখন ২-০ অবস্থানে, ঠিক তখটি শুরু হয় তুমুল লড়াই। যেন কারো থেকে কেউ কম নয়। একচুল পরিমান ছাড় পাচ্ছেনা কোন খেলোয়ার। এদিকে খেলার শেষ হওয়ার যখন মাত্র ৭ মিনিট বাকি, তখনো বল ভিক্টোরিয়া একাদশের কাছে। বার বার গোল দেয়ার চেষ্টা ভিক্টোরিয়া একাদশের। এরই মধ্যে বল ছিনিয়ে নিলো ফারিয়া একাদশ। বল নিয়ে আবারো দৌড়াচ্ছে মাহবুব। বল ছিনিয়ে নিতে ভিক্টোরিয়া একাদশের হাজার চেষ্টা, কিন্তু না! অতপর: সকল খেলোয়ারদের পাস কাটিয়ে মাহবুবের অসাধারন আরো একটি গোল। সঙ্গে সঙ্গে লাফিয়ে পরে মাঠের দর্শক। সকলের মুখে তখন একটাই নাম বর্জকন্ঠে উচ্চারিত হতে থাকে, আর তা হলো, মাহবুব মাহবুব মাহবুব…..। এরই মাঝে খেলার সমাপ্তির বাঁশি বেজে উঠে। ৩-০ গোলের ব্যবধানে ভিক্টোরিয়া একাদশকে হারিয়ে বিজয়ী হয় ফারিয়া একাদশ। খেলার শেষে বিজয়ী দল ফারিয়া একাদশ দলের অধিনায়ক তানভীর আহম্মেদের হাতে চ্যাম্পিয়ন ট্রফি তুলে দেন প্রধান অতিথি ভিক্টোরিয়া হাসাপাতালের আবাসিক অফিসার ডা. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, ডা. এস.কে ফরহাদ, ভিক্টোরিয়া হাসপাতালের সার্জেন্ট কলসাল্টেন গাজী মো: সালাউদ্দিন, অর্থপেডিক সার্জারী ডা. আলমগীর হোসেন জনি, ডা. শেখ ফরহাদ প্রমূখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *