আনসারুল্লাহ টিমের তিন জঙ্গী গ্রেফতার

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
নারায়ণগঞ্জের আদমজীতে অবস্থিত র্যাব-১১ এর একটি টিম গত শনিবার ৩০ ডিসেম্বর রাতে ঢাকার সবুজবাগ থানাধীন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে একাধিক মামলার এজাহার নামীয় পলাতক আসামী ও নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গী সংগঠন আনসার আল ইসলাম (আনসারুল্লাহ বাংলা টিম) এর তিন সক্রিয় সদস্যকে আটক করেছে। তারা হলো আহমদ উল¬্যাহ পাটোয়ারী ওরফে ইমরান সানি শ্যামল (২১), জাবাল-ই-নুর সিয়াম ওরফে মুসাব (২৪) ও মুফতি হোসাইন আহমেদ ওরফে হোসেন বেলাল (৩২)। তাদের কাছ থেকে জঙ্গীবাদী বই, লিফলেট ও জঙ্গী অর্থায়নের ২ লাখ ৭ হাজার ৮৮০ টাকা উদ্ধার করা হয়। গত শনিবার বিকেলে র্যাব জানান, আহমদ উল¬্যাহ পাটোয়ারী ওরফে ইমরান সানি শ্যামল (২ ২০০৮ সালে কোরআনের হাফেজ পাশ করেন। ২০১২ সালে মাদ্রাসাতুল রাহবার এ কিতাব বিভাগে পড়াশুনা করা কালীন সময়ে মোবাইলে জসিম উদ্দিন রাহমানির ওয়াজ শুনে জঙ্গীবাদের প্রতি আকৃষ্ট হয়। এরপর সে জসিম উদ্দিন রাহমানির মসজিদে যাতায়াত শুরু করে এবং এই যাতায়াতের সময় জনৈক এক বন্ধুর সাথে তার পরিচয় হয় এবং তারা বিভিন্ন স্থানে ১/২ মাস অন্তর অন্তর দেখা করে। পরবর্তীতে ২০১৩ সালের শুরুর দিকে সে তার এক সমবয়সীর মাধ্যমে আনসার আল ইসলাম (আনসারুল¬াহ বাংলা টিম) এ যোগদান করে। আহমদ উল¬্যাহ পাটোয়ারীর নেতৃত্বে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জসহ দেশের একাধিক জেলায় নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন আনসার আল ইসলামের সদস্যদের একাধিক গোপন বৈঠক হয়। ফেইসবুক সহ সামাজিক যোগাযোগ এর মাধ্যমে বব্লগারদের অনুসরণ করা এবং ব্লগারের বিভিন্ন পোস্ট শীর্ষ জঙ্গী নেতাদের দৃষ্টি গোচর করাই ছিল তার প্রধান কাজ। এছাড়াও সে ঢাকা উত্তর অঞ্চলের নিয়ন্ত্রক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে। সে আনসার আল ইসলামের সদস্য সংগ্রহ এবং নিয়মিতভাবে সংগঠনের জন্য অর্থ সংগ্রহের কাজ করে আসছিল। সে নারায়ণগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় আনসার আল ইসলামের সদস্যদের নিয়মিত প্রশিক্ষক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করে আসছিল। জাবাল-ই-নুর সিয়াম মুসাব (২৪), ২০১১ সালে পারিবারিক এক বন্ধুর মাধ্যমে হিযবুত তাহরীরে যোগদান করে এবং ২০১১ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত সে এই সংগঠনে ছিল। পরবর্তীতে ২০১৬ সালে আনসার আল ইসলাম (আনসারুল¬াহ বাংলা টিম) এ যোগদান করে। সে সংগঠনে প্রতি মাসে ৩ হাজার টাকা করে ইয়ানত দিয়ে আসছিল। সংগঠনে বিশ্বস্ততা ও দক্ষতা অর্জন করলে রায়হান ও ফয়সাল তাকে আনসার আল ইসলামের ঢাকা উত্তরের নিয়ন্ত্রক আহমদ উল¬্যাহ পাটোয়ারী ইমরান ফরহাদ হোসাইন সানি শ্যামল এর সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়। মুফতি হোসাইন আহমেদ হোসেন বেলাল (৩২), ২০১৪ সালে তিনি বায়তুন নুর জামে মসজিদ, সবুজবাগে ইমামতি শুরু করে এবং ইমামতির আড়ালে নিষিদ্ধ ঘোষিত জিহাদী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের সদস্যদের সাথে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ বৃদ্ধি করে এবং নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গী সংগঠন আনসার আল ইসলাম (আনসারুল¬াহ বাংলা টিম) এর সক্রিয় সদস্য হিসেবে কাজ করতে থাকে। সে মসজিদের ইমাম হিসেবে দায়িত্ব পালন করায় তার মসজিদে আগত বিভিন্ন মুসলি¬দের পর্যবেক্ষণ করে প্রাথমিক দাওয়াতী কাজ সম্পন্ন করে আনসার আল ইসলামে সদস্যভূক্তি করে। এরপরে নতুন সদস্যদেরকে আনসার আল ইসলামের দায়িত্বশীল নেতার কাছে হস্তান্তর করে এবং সে নিজেও প্রশিক্ষক হিসেবে কাজ করে আসছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *