কোরআন শরীফ অবমাননায় ফতুল্লায় মুসল্লীদের বিক্ষোভ

ফতুল্লা প্রতিনিধি
ফতুল্লায় কোরআন শরীফ অবমাননা করে ফেসবুকে একটি পোস্ট দেওয়ার ঘটনায় স্থানীয় মুসল্লীরা বিক্ষোভ দেখিয়েছে। ওই সময়ে মুসল্লীরা উত্তেজিত হয়ে উঠলে পুলিশ গিয়ে দ্রুত ওই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে কঠোর আইনের আওতায় আনার ঘোষণা দিলে পরিস্থিতি শান্ত হয়। পুলিশ তাৎক্ষনিক ওই ব্যক্তির বড় ভাইকে আটক করেছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ফতুল্লার পূর্ব দেলপাড়া এলাকার মজিবুর রহমান ওরফে মাছ মজিবুরের ছেলে হাসান উল ইসলাম (২৯) সম্প্রতি তার নামে থাকা ফেসবুক আইডিতে কোরআন শরীফ অবমাননা করে কয়েকটি ছবি পোস্ট করে। এতে ছবিটি ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে উঠে। এনিয়ে ফতুল্লায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়। পরে শুক্রবার দুপুরে জুমআর নামাজের পর স্থানীয় মুসল্লীরা জড়ো হয়ে বিক্ষোভ শুরু করে। তখন এলাকাতে উত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। বিক্ষোভের সভাপতিত্ব করেন, ইসলামী কালচার সংগঠনের কুতুবপুর ইউনিয়নের সভাপতি হাফেজ মাওলানা আবুল খায়ের। এসময় উপস্থিত ছিলেন পাগলা বাজার জামে মসজিদের ইমাম আনোয়ার হোসেন জিহাদীসহ কয়েক হাজার মুসল্লী। এসময় খবর পেয়ে বিক্ষোভ স্থলে হাজির হয়ে পরিস্থিতি শান্ত করতে বক্তব্য রাখেন ফতুল্লা মডেল থানার ওসি কামাল উদ্দিন, পরিদর্শক(তদন্ত) শাহ জালাল, পরিদর্শক(অপারেশন) মজিবুর রহমান, পরিদর্শক (আইসিপি) গোলাম মোস্তফা, কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মনিরুল আলম সেন্টু। এলাকাবাসী জানান, মাছ মজিবুরের ৫ মেয়ে ২ ছেলের মধ্যে হাসান উল ইসলাম ছোট। ছেলে-মেয়ে প্রত্যেকেরই বিয়ে দেয়া হয়েছে। হাসান উল ইসলাম ২বছর পূর্বে একই এলাকায় বিয়ে করেছে। তার সংসারে কোন সন্তানাধী হয়নি। কয়েক বছর যাবত মাদক সেবন করে উশৃঙ্খল চলা ফেরা করে। তাকে স্থানীয়রা মাদকাসক্ত হিসেবে চিনে। এছাড়া রূপগঞ্জে একটি ইট ভাটা ও ফতুল্লায় প্রচুর পরিমানের অর্থসম্পদ রয়েছে মাছ মজিবুরের। বাড়ির সামনে রয়েছে একটি মার্কেট। ফতুল্লা মডেল থানার ওসি কামালউদ্দিন জানান, বিক্ষোভ গিয়ে আমি লোকজনদের শান্ত করেছি। দ্রুত ওই হাসান উল ইসলামকে আইনের আওতায় আনার চেষ্টা চলছে। ঘটনার পর থেকে মাছ মজিবুরের পরিবারের লোকজন আত্মগোপনে রয়েছে। ঘটনা সম্পর্কে জানতে হাসানের বড় ভাই হেদায়েত উল ইসলামকে আটক করা হয়েছে। তার বাড়িতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *