আজ : মঙ্গলবার: ৮ ফাল্গুন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ ইং | ২ জমাদিউস-সানি ১৪৩৯ হিজরী | ভোর ৫:৫৬
fevro
শিরোনাম
23

দিক নির্দেশনাহীনতায় ভোগছে না’গঞ্জ বিএনপি

Badal-nj | ০১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ | ১২:৫৯ পূর্বাহ্ণ

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
নারায়ণগঞ্জ বিএনপি ও সহযোগি সংগঠনের তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করছে। খালেদা জিয়া’র রায়কে কেন্দ্র করে জেলা ও মহানগর পর্যায়ের নেতাকর্মীদের কাছ থেকে কোনো ধরণের দিক-নির্দেশনা না পাওয়ায় তাঁদের মধ্যে এ ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। তবে জেলা বিএনপি দাবি করছে, তাঁরা কেন্দ্রের থেকে দিক নির্দেশনা পেয়েছে, এবার সে মোতাবেক তৃণমূলকে নিয়ে বসবে। অপরদিকে মহানগর বিএনপি বলছে, নিবেদিত প্রাণ নেতাকর্মীদের দিক নির্দেশনা দিতে হয় না। পেপার পত্রিকা পড়েই তাঁরা নির্দেশনা পেয়ে যান। এদিকে তৃণমূল নেতাকর্মীদের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হচ্ছে, নেতৃত্বে থাকা নেতারা দলের এমন দুঃসময়েও তাঁদেরকে ডাকছেন না। কোনো রকম দিক নির্দেশাও দিচ্ছেন না। এমন পরিস্থিতিতে কি করণীয় তাঁদের- সেটিও তাঁরা বুঝে ওঠতে পারছেন না। ফলে এ নিয়ে তৃণমূল নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ দানা বাঁধতে শুরু করেছে। অপরদিকে অতীতের মতো জেলা ও মহানগর বিএনপি’র গুটি ক’জন নেতাকর্মী ছাড়া প্রায় অধিকাংশ নেতাকর্মীই আন্দোলন সংগ্রামে অনেকটা গা ঢাকা দিয়ে থাকেন। কোনো কর্মসূচি সামনে এলেই শীর্ষ নেতৃবৃন্দ হয় বিদেশ সফর করেন নয়তো অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি থাকেন। ফলে বিগত দিনে এখানকার সকল প্রকার কর্মসূচিই ফ্লপ করেছিলো। তাই প্রশ্ন জেগেছে এবারও কি তেমনই হবে? পরিচয় প্রকাশ না করার শর্তে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির তৃনমুল পর্যায়ের একাধিক নেতাকর্মী দাবি করে বলেন, “নারায়ণগঞ্জ বিএনপিতে এমন বেশ কয়েকজন নেতা আছেন যাঁরা আগামীতে এমপি-মন্ত্রী হবার বাসনা নিয়ে বসে আছেন। অথচ রাজপথে তাঁদের কখনও দেখা যায়না। রায়ের দিন সেই সুবিধাভোগি নেতাদের রাজপথে সক্রিয় অংশগ্রহণ থাকবে কিনা, তা নিয়ে এখনও আমরা সন্দিহান।” তাঁরা আরও বলেন, “রায় ঘোষণার তারিখ ঘনিয়ে আসলেও যতদূর জানি এ ব্যপারে ওইসব নেতারা তৃনমুলের আমাদের সাথে যোগাযোগ করেনি বা কোনো ধরণের দিক নির্দেশনাও দেননি। তাছাড়া আমাদের ধারণা, মামলা, হামলা ও গ্রেফতারের ভয়ে তাঁদের এ কর্মসূচিতেও দেখা মিলবেনা। অতীতের মতই তাঁরা গর্তে লুকিয়ে থাকবেন।” তবে তৃনমুলের নেতাকর্মীরা দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করে বলেন, “মিথ্যা মামলা থেকে দলের মা’কে বাঁচাতে কারো দিক নির্দেশনা বা ডাকের অপেক্ষায় থাকবো না। আমরা তৃণমুল সেদিন রাজধানীর রাজপথ দখলে রাখবো।” এ প্রসঙ্গে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মামুন মাহমুদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, “মাত্র গত মঙ্গলবার কেন্দ্র আমাদের নিয়ে বসেছিলেন এবং দিক নির্দেশনা দিয়েছেন। এখন আমরা তৃনমুলদের নিয়ে দুই একদিনের মধ্যে বসবো এবং দিক নির্দেশনা দেবো। ইতিমধ্যে প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গেছে।” নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল বলেন, “দলের মধ্যে কিছু লোক আছে, যাঁদের কাজই হচ্ছে কারণে অকারণে অভিযোগ করা। আসলে তাঁরা দলের জন্য কিছুই করেনা। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় কারাগারে নেয়ার চেষ্টা করা হলে আমাদের করণীয় কি হবে- তা গত দুই তিন মাসে বিভিন্ন সভা সমাবেশে নেতাকর্মীদের দিক নির্দেশনা দিয়ে আসছি। তাছাড়া দলের কেন্দ্রীয় নেতারা এ ব্যপারে প্রতিনিয়ত প্রেস ব্রিফিং করে যেসব কথা বলছেন সেগুলোইতো সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের জন্য দিক নির্দেশনা। দল বা নেত্রীর জন্য যাঁরা নিবেদিত প্রাণ, তাঁদেরকে ডেকে ডেকে দিক নির্দেশনা দেয়া লাগেনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *