আজ : মঙ্গলবার: ১১ বৈশাখ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ২৪ এপ্রিল ২০১৮ ইং | ৭ শাবান ১৪৩৯ হিজরী | সকাল ৯:১৪
BADAL
শিরোনাম
ডিএনডি’র জলাবদ্ধতায় পঞ্চাশ বিঘা জমির ধান পানির নিচে-❋-আওয়ামীলীগে কোন্দল সৃষ্টিকারীদের কেন্দ্রীয় হুশিয়ারি...-❋-হকার ইস্যুতে আবারও অশান্ত হওয়ার পথে নারায়ণগঞ্জ !-❋-ঢাকা-পাগলা-নারায়ণগঞ্জ পুরাতন সড়কের বেহাল দশা রোদে ধুলা-বৃষ্টিতে কাদায় জনভোগান্তি-❋-লন্ডনের কার্টেজ হোটেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সোনারগাঁয়ের উন্নয়ন নিয়ে ইঞ্জিনিয়ার শফিকুলের সাথে আলোচনা-❋-সকল মানুষেরই প্রাণের মায়া আছে :লিপি ওসমান-❋-নারায়ণগঞ্জে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহের উদ্বোধনীতে ডিসি : ফাস্টফুড আমাদের দেহের জন্য ক্ষতিকর-❋-সাড়ে চার কোটি টাকার মাদক ধ্বংস !-❋-মাঠে নামার প্রস্তুতিতে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি-❋-ওয়াসার দুর্গন্ধযুক্ত পানি ব্যবহারের অযোগ্য ॥ সীমাহীন ভোগান্তিতে নারায়ণগঞ্জবাসী

বঙ্গবন্ধুর ভাষন শুনে শিশুকে গলার হার খুলে দিলেন নাসরিন ওসমান

 

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

বন্দর উপজেলার আলীনগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দিত্বীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থী ইসহাক্ব। গতকাল শনিবার সকালে বন্দর সমরক্ষেত্র মাঠে যার কন্ঠে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষন শুনে মুগ্ধ হয়েছে প্রায় ২০ হাজার শ্রোতা। সবার মত মুগ্ধ হয়েছেন নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান এবং তাঁর সহধর্মিনী মিসেস নাসরিন ওসমান। সচরাচর এমপি সেলিম ওসমান কোন অনুষ্ঠানে গিয়ে শিক্ষার্থীদের কোন গুনে মুগ্ধ হলে তাৎক্ষনিক ভাবে তার গুনের সম্মান জানিয়ে পুরস্কিত করে উপস্থিত সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়ে থাকেন। তবে গতকাল শনিবার এমপি সেলিম ওসমান নন সবাইকে তাক লাগালেন তাঁর সহধর্মিনী মিসেস নাসরিন ওসমান। এমপি সেলিম ওসমানের উদ্যোগে এবং বন্দর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে বন্দর সমরক্ষেত্র মাঠে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস পালন করা হয়। এর আগে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষ্যে উপজেলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের মাঝে বিভিন্ন ইভেন্টে প্রতিযোগীতার আয়োজন করা হয়েছিলো। উক্ত প্রতিযোগীতায় মোট ২৭ জন শিক্ষার্থী প্রথম দ্বিতীয় এবং তৃতীয় স্থান পেয়ে বিজয়ী হয়। প্রাথমিক আনুষ্ঠানিকতা শেষে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি এমপি সেলিম ওসমান স্কুলের শিক্ষার্থীদের মঞ্চে ডেকে তুলে প্রতিযোগীতা কে কি পারফর্ম করে পুরস্কার বিজয়ী হয়েছেন জানতে চাইলে শিক্ষার্থীরা তাদের পারফর্ম পুণরায় সবার সামনে উপস্থাপন করেন। এর মাঝে পাজামা, সাদা পাঞ্জাবি, হাতাকাটা কালো কোর্ট পরে ৬ বছরের শিশু আলীনগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দিত্বীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থী ইসহাক্ব মাইকের সামনে আসে। ইসহাক্ব তার পারফর্মে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭মার্চের ভাষনের শুরু থেকে ‘ ভাইয়েরা আমার দিয়ে শুরু করে এবারের সংগ্রাম আমাদের স্বাধীনতার সংগ্রাম’ দিয়ে ভাষন শেষ করে। এ সময় উপস্থিত সকলে মনমুগ্ধ হয়ে শিশু ইসহাক্বের ভাষন শুনছিলো। ভাষন শেষ হওয়া মাত্র নিজের আসন ছেড়ে উঠে আসেন এমপি সেলিম ওসামনের সহ ধর্মিনী মিসেস নাসরিন ওসমান এবং শিশু ইসহাক্বকে এমপি সেলিম ওসমান কোলে তুলে নেন। এ সময় মিসেস নাসরিন ওসমান নিজের গলা থেকে স্বর্ণের নেকলেসটি খুলে ইসহাক্বের গলায় পড়িয়ে দেন। এ সময় অনুষ্ঠান স্থলে উপস্থিত সকলে একত্রে করতালি দিয়ে ইসহাক্বকে অভিনন্দন জানান। এছাড়াও মিসেস নাসরিন ওসমানের পক্ষ থেকে প্রতিযোগীতায় অংশ নেওয়া বিজয়ী ২৭জন প্রতিযোগী শিক্ষার্থীর প্রত্যেককে একটি করে মোবাইল ফোন পুরস্কার করা হয়।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন ও শিশু দিবস উপলক্ষ্যে যুবলীগের কেক কাটেন হাই-আইভী-বাদল

 

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে কেক কেটে দিবসটি উদযাপন করেছেন নারায়ণগঞ্জ শহর যুবলীগ। গতকাল শনিবার সকালে দিবসটি উপলক্ষে শহরে যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আহম্মদ আলী রেজা উজ্জলের নেতৃত্বে শহরের ২নং রেল গেট এলাকায় আওয়ামীলীগের কার্যালয়ের সামনে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন যুবলীগের নেতাকর্মীরা। পরে বেলা সাড়ে ১০টায় কার্যালয়ের সামনে শহরের যুবলীগের উদ্যোগে দিবসটি উপলক্ষে কেক কাটেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ও নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। পরে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাই ও সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহীদ বাদল এতে অংশগ্রহণ করে কেক কাটেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি ও জেলা যুবলীগের সভাপতি আব্দুল কাদির, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম আবু সুফিয়ান সহ বিভিন্ন ওয়ার্ড যুবলীগের নেতারা।

 

ভেজাল খাবারে সয়রাব শহরের রেস্তোরাগুলি

 

 

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

নারায়ণগঞ্জে ভেজাল খাবারের বিরুদ্ধে নেই কোন বাধা নিষেধ। শহরের অলিগলিসহ জনসমাগম স্থানে বিক্রেতারা দেদারছে বিক্রি করে চলছে এসব ভেজাল খাবার। রেস্টুরেন্টে অভিযান চালালেও গুণগত মনের বিষয়ে কোন প্রকার পরীক্ষা নিরীক্ষা বা যাচাই করতে দেখা যায় না। এতে একদিকে যেমন জনসাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়ছে ঠিক তেমনি ভেজালকারীরা হয়ে উঠছে আরো বেপরোয়া। ভেজালে সবচেয়ে এগিয়ে আছে পথের দুই পাশে থাকা ফুটপাতের খাবারের দোকানগুলো। এসব খাবারের মধ্যে রয়েছে চা, ঝালমুড়ি, পিঠা, বাদাম, ছোলা, চটপটি, ফুচকা, চাটনি, আচার, মিষ্টি, ডিম (ভাজা বা সেদ্ধ), রুটি, পরোটা, পুরি, চিপস, মোয়া, গজা, শিঙ্গারা, সমুচা, পেঁয়াজু, শরবত, ফলের রস, আখের রস, হালিম, আইসক্রিম, নুডলস, পোলাও, তেহারি, খিচুড়ি, ভাত, শিক কাবাব ইত্যাদি। এসব খাবারের বেশিরভাগ তৈরী হয় বস্তি এবং নোংরা পরিবেশে। আর এসব খাবার মুখরোচক করার জন্য যে কোন কিছু মেশাতে দোকানিরা পিছপা হয় না। এ বছর জানুয়ারি মাসে প্রকাশিত আইসিডিডিআরবির এক গবেষণায় উল্লেখ করা হয়েছে রাজধানী ঢাকার পথ খাবারের ৫৫ শতাংশে নানা ধরনের জীবাণু রয়েছে। এসব খাবার বিক্রেতাদের ৮৮ শতাংশের হাতে থাকে জীবাণু। এতে উল্লেখ করা হয় ঢাকা শহরের রাস্তাগুলোতে প্রায় দুই লাখ বিক্রেতা নানা ধরনের খাবার বিক্রি করেন। তাদের বিক্রির খাদ্যদ্রব্যের মধ্যে আছেÑ শুকনো, তেলে ভাজা, রান্না করা, আগুনে সেদ্ধ-পোড়ানো, তেলে মাখানো ইত্যাদি খাবার। গবেষণায় বলা হয়Ñ এসব খাবার সুস্বাদু হওয়ায় কোন প্রকার যাচাই না করে খেয়ে থাকে ভোক্তারা। এ অবস্থা রাজধানীর। আর ঢাকার পাশেই থাকা নারায়ণগঞ্জের অবস্থা এরচেয়ে ভয়াবহ। যা শহর এবং আশপাশে অবস্থা দেখেই বুঝা যায়। নারায়ণগঞ্জ শহরের কয়েকদিন পর পরেই ভেজাল বিরোধী অধিযানের নামে কয়েকটি বিষয় দেয়া হয়। তার মধ্যে রয়েছে ফ্রীজের খাবার কী কী রাখা হয়, রান্না ঘর পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রয়েছে কি না। মাঝে মাঝে ওজন এবং দাম বিষয়ে যাচাই করেন। অথচ এসব দোকানের খাবার কতটুকু ভেজাল বা পরিশুদ্ধতার বিষয়ে কোন পরিমাপ বা যাচাই বাছাই করে না বা করার কোন যন্ত্রপাতি তাদের কাছে থাকে না। আর ফুটপাতের খাবারের বিষয়ে কোন খোঁজই তাদের নাই। কামরুন্নেসা বলেন, খাদ্য মানুষের মৌলিক চাহিদাগুলোর মধ্যে অন্যতম, খাদ্য ছাড়া মানুষ বাঁচতে পারে না। কিন্তু পচা, বাসি, ভেজাল বা বিষাক্ত দ্রব্য মানুষের খাদ্য হতে পারে না। অথচ তাই আমরা খেয়ে যাচ্ছি নিরুপায় হয়ে। যা মানবদেহের জন্য বিপজ্জনক ও ঝুঁকিপূর্ণ। এতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয় শিশুদের। কারণ, তাদের পক্ষে ক্ষতিকর উপাদানের প্রতিক্রিয়া প্রতিরোধ করার ক্ষমতা খুবই কম। তিনি বলেন, অনেক সময় এই ধরনের দূষিত খাবার মানব দেহে বিষক্রিয়ার সৃষ্টি করে, যা মানুষের মৃত্যুর কারণও হতে পারে।  বিশেষজ্ঞদের গবেষণা পত্রে দেখা যায়, ইচ্ছাকৃত বা অধিক মুনাফালাভের আশায় খাদ্যের সাথে নিম্নমানের খাবার বা খাদ্য নয় এমন বস্তু মিশানো হয়ে থাকে। ইচ্ছাকৃত ভেজালটি সবচেয়ে ক্ষতিকারক। কারণ এখানে অধিক মুনাফার প্রতিযোগিতা থাকে। ফলে অনেকসময় এমন সব কেমিক্যাল খাদ্যে মিশানো হয় যা স্বাস্থের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকারক। পঁচনশীল খাবার যাতে সহজে পচে না যায় অর্থাৎ অধিকসময় ধরে পঁচনশীল খাবার যেমন ফলমূল (আঙ্গুর, আম, আপেল, কমলা, মাল্টা), মাছ-মাংস, শব্জি এমনকি দুধ ও দুগ্ধজাত মিষ্টি সংরক্ষণে ফরমালিনের সংমিশ্রণ করা হয়। এই ফলের বিষক্রিয়ায় কাশি, মাথা ব্যাথা ও শ্বাসকষ্ট হয়। দীর্ঘমেয়াদে কিডনি ও লিভারের মারাত্মক ক্ষতি এমনকি ক্যান্সারও হতে পারে। রফিকুল ইসলাম বলেন, বর্তমানে ভেজালের সার্বজনীন যে উৎসব চলছে তাতে আমরা সবাই কমবেশী আক্রান্ত। রান্না করা খাবার যেমন মাছ-মাংস, শব্জি এমনকি দুধ বা দুগ্ধজাত মিষ্টিতেও কেমিক্যাল এর মিশ্রণ রয়েছে। এসব ভেজাল খাবার নিজের এবং ছেলেমেয়েদের কিডনী এবং লিভারটিকে প্রতিনিয়ত একটু একটু করে নষ্ট করে দিচ্ছে। প্রায় প্রতিকারহীন এই অবস্থায় আমরা নিয়তির হাতে নিজের এবং সন্তানের ভাগ্যকে সমর্পণ করে দীর্ঘশ্বাস ফেলছি। তিনি খাবারের বিষয়ে খুবুই সচেতন থেকে প্রশাসনের নজর আশা করেন।

 

 

 

 

বঙ্গবন্ধুর আদর্শে শিশুদের গড়ে তুলুন: ডিসি

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

সন্তানদের মাদক থেকে দূরে রাখতে তাদের প্রতি বিশেষ ভাবে নজর দিতে আহবান জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া ও পুলিশ সুপার মঈনুল হক। একই সঙ্গে শিশুদের বঙ্গবন্ধুর আদর্শে জীবন গড়ে তোলার আহবান জানান তারা। গতকাল শনিবার সকালে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষ্যে শিশু সমাবেশ ও আলোচনা সভায় তারা এসব কথা বলেন। ‘বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন, বাংলাদেশের খুশীর দিন’ স্লোগানে ১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিবস ও জাতীয় শিশু দিবস ২০১৮ উদযাপন উপলক্ষ্যে শিশু সমাবেশ, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসন। বঙ্গবন্ধুর স্মরণে বিভিন্ন আলোচনা করে জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া বলেন, ‘আপনাদের সন্তানদের দিকে খেয়াল রাখবেন। তারা যেন মাদক ও জঙ্গিবাদে সম্পৃক্ত না হয়। বিশেষ ভাবে এসব বিষয়ে নজর রাখবেন। তারা কোথায় যায় কি করে কার সঙ্গে মিশে সব কিছুই। দেশকে গ্রাস করার জন্য একটি মহল চেষ্টা করছে। তাই সবাই সর্তক থাকবেন। দেশকে ভালোবাসবেন।’ এর আগে সকাল ৯টায় নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাঢ়া গোলচত্ত্বর এলাকায় বিজয় স্তম্ভে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া সহ জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা। এছাড়াও দিনটি উপলক্ষ্যে শিশু কিশোরদের আয়োজনে দেশীয় গান, আবৃত্তি ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন সংরক্ষিত নারী এমপি হোসনে আরা বেগম বাবলী, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন,  সিভিল সার্জন ডা. এহসানুল হক প্রমুখ।

বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে নয়শত ষাট পাউন্ডের কেক কেটে  সর্বকালের রেকর্ড ভাঙ্গলেন সেলিম ওসমান

 

 

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

নারায়ণগঞ্জে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন পালনে অতীতের নিজের সব রেকর্ড ভেঙ্গে দিয়ে নতুন করে রেকর্ড গড়েছেন নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান। সারাদেশে কোথাও এমন বিশাল আয়োজনে বর্ণাঢ্য ভাবে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন পালন করার খবর পাওয়া যায়নি। এ দিনে এমপি সেলিম ওসমানের নিজস্ব উদ্যোগে বন্দর সমরক্ষেত্র মাঠে ৫০০ পাউন্ড এবং নারায়ণগঞ্জ কলেজে ২৬০ পাউন্ড মোট ৭৬০ পাউন্ডের কেক কেটে বঙ্গবন্ধুর ৯৯তম জন্মদিন এবং জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন করা হয়েছে। আর পৃথক দুটি অনুষ্ঠানে স্কুল কলেজের প্রায় ২২ হাজার শিক্ষার্থী সহ বন্দর উপজেলার প্রায় শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দরা অংশ গ্রহন করেছেন। গতকাল শনিবার সকাল ৯টায় নারায়ণগঞ্জ কলেজ প্রাঙ্গন এবং বেলা ১১টায় বন্দরের সমরক্ষেত্র মাঠে এমপি সেলিম ওসমানের উদ্যোগে এবং নারায়ণগঞ্জ কলেজ ও বন্দর উপজেলার প্রশাসনের আয়োজনে পৃথকভাবে জন্মদিনের আনন্দ উদযাপন করা হয়েছে। এর আগে এমপি সেলিম ওসমানের উদ্যোগে ও বন্দর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে বন্দর সমরক্ষেত্র মাঠে ২০১৬ এবং ২০১৭ সাথে যথাক্রমে ৩০০ এবং ৪০০ পাউন্ডে কেক কেটে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনের আনন্দ উদযাপন করা হয়েছে। যা রীতিমত নারায়ণগঞ্জ সহ সারা দেশব্যাপী ব্যাপক আলোচিত হয়েছিলো। ওই অনুষ্ঠানে গুলো উপজেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোতে ১০ হাজারের অধিক সংখ্যক শিক্ষার্থী অংশ নিয়ে ছিলো। এ বছর বঙ্গবন্ধুর জীবনী এবং বাংলাদেশের সঠিক ইতিহাস সম্পর্কে ভবিষ্যত প্রজন্মকে জানানোর জন্য সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক এবং পরিচালনা কমিটির নেতৃবৃন্দদের প্রতি আহবান রেখে ছিলেন এমপি সেলিম ওসমান।  তাঁর আহবানে সাড়া দিয়ে শনিবার বন্দর সমরক্ষেত্র মাঠে বন্দর উপজেলার দুটি কলেজ, ২১টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ৭৫টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় সহ সকল কিন্ডার গার্টেন এবং মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন পালন উৎসবে  প্রায় ২০ হাজার শিক্ষার্থী অংশ গ্রহণ করেন। এছাড়াও নারায়ণগঞ্জ কলেজে আরো ২ হাজার শিক্ষার্থী অংশ গ্রহণ করেন। অনুষ্ঠানে এমপি সেলিম ওসমান উপস্থিত শিক্ষার্থীদের মঞ্চে ডেকে বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে কিছু বলার জন্য আহবান রাখেন। এ সময় বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষার্থীরা বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে তাদের জানা সকল বক্তব্য তুলে ধরেন। এ সময় আলী নগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একজন শিশু শিক্ষার্থী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের দেওয়া ঐতিহাসিক ৭মার্চের ভাষন মঞ্চে পরিবেশন করেন। ওই শিশুর ভাষনে মুগ্ধ হয়ে তাৎক্ষনিক পুরস্কার হিসেবে এমপি সেলিম ওসমানের সহ ধমির্নী মিসেস নাসরিন ওসমান তার গলায় পড়নে স্বর্ণের নেকলেসটি খুলে ওই শিশু গলায় পড়িয়ে দেন। এছাড়াও বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষ্যে উপজেলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোতে আয়োজিত বিভিন্ন ইভেন্টে প্রতিযোগীতায় প্রথম দ্বিতীয় এবং তৃতীয় স্থান অধিকারী সবাইকে মিসেস নাসরিন ওসমানের পক্ষ থেকে একটি করে মোবাইল ফোন পুরস্কার হিসেবে প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, বন্দর থানা আওয়ামীলীগে সভাপতি এম এ রশিদ, জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক আবুল জাহের, বন্দর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা পিন্টু বেপারী, সিটি করপোরেশনের ২৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাইফুদ্দিন আহম্মেদ দুলাল প্রধান, বন্দর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এহসান উদ্দিন, কলাগাছিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন প্রধান, ধামগড় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাসুম আহম্মেদ সহ অন্যান্যরা।

 

ডিবির হাতে প্রতারক  মঈন আটক

 

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

নারায়ণগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) জালে মঈন আজিজ (৪৭) নামে এক হ্যাকার ধরা পয়েছে। তাকে গত বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার জামতলা এলাকা থেকে আটক করলেও এখন পযর্ন্ত তার বিরুদ্ধে কোন আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। এখনও সে ডিবি হেফাজতে রয়েছে বলে ডিবি সূত্রে জানা গেছে। তবে ডিবির ইন্সপেক্টর রাশেদ মোবারক জানান তাকে গত শুক্রবার রাতে আটক করা হয়েছে। আটককৃত মঈন আজিজ নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার জামতলা এলাকার মৃত আব্দুল আজিজের ছেলে। ডিবির ইন্সপেক্টর রাশেদ মোবারক জানান, গত শুক্রবার রাতে উপজেলার জামতলা থেকে মঈন আজিজ নামে এক হ্যাকারকে আটক করা হয়েছে। সে কম্পিউটারের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের প্রতারণা করে থাকে। বিকাশ একাউন্ট, ফেসবুক আইডি হ্যাক করে ব্লাকমেইল করা তার কাজ ছিল। তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। উল্লেখ্য এর আগে গত বছর ২৮ ফেব্রুয়ারি নারায়ণগঞ্জ শহরের জামতলা ধোপাপট্টি এলাকা থেকে মঈন আজিজ কে কর্নেল পরিচয় দিয়ে প্রতারণার অভিযোগে আটক করে ফতুল্লা থানা পুলিশ। সেই সময় তাঁর কাছ থেকে ৩০টি মুঠোফোন, ২৫টি হাতঘড়ি, ৩টি ল্যাপটপ ও ১টি ডেস্কটপ কম্পিউটার উদ্ধার করা হয়।

 

কোন অশুভ শক্তি যাতে ক্ষমতায় না আসে : আইভী..

 

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছেন, ‘জাতিসংঘ বাংলাদেশকে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে ঘোষণা করেছে। বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে এই ঘোষণা বাংলাদেশের জন্য সবচেয়ে বড় উপহার।’ তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মেধার কারণেই বাংলাদেশ পvকিস্তান থেকে মুক্ত হয়েছে। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আজকের শিশুরাই দেশকে আগামীর অগ্রযাত্রায় এগিয়ে নিয়ে যাবে। কোনও অশুভ শক্তি ক্ষমতায় এসে যেন দেশকে পিছিয়ে নিতে না পারে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। দেশ আরও এগিয়ে যাবে।’ তিনি বলেন, আমরা চাই যে আমাদের দেশের ছোটছোট সোনামনিরা এদেশকে একদিন নেতৃত্ব দিক, এখান থেকেই বের হয়ে আসুক আমাদের প্রধানমন্ত্রী, রাষ্ট্রপতি ও নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র। আইভী বলেন, ‘জাতির পিতা ও তাঁর পরিবার রক্ত দিয়ে বাংলাদেশকে মুক্ত করেছে। পরবর্তীতে তাদের নাম পর্যন্ত নিতে কেউ সাহস পেতো না। তারই কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৯৬ সালে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর আবার আমরা নতুন করে তাদের নাম, অবদান বুঝার, জানার সুযোগ পেয়েছি। আমরা চাই না ভবিষ্যতে আর কোন দিন এ নামকে মুছে দেওয়ার জন্য কেউ পাঁয়তারা করুক অথবা এমন কোন আইন হোক যে আইনে বঙ্গবন্ধুকে অস্বীকার করে। আমরা চাই এ বাংলাদেশ এগিয়ে যাক, শেখ হাসিনার নেতৃতে এগিয়ে যাক, স্বাধীন বাংলাদেশে এ ভূখ-কে যারা রক্ষার করেছিল তাদেরই স্মৃতিবিজড়িত এ বাংলাদেশ যেন থাকে এটাই আমরা চাই। আমরা এমন কোন অপশক্তি চাই না যারা আবার আমাদের দেশকে পিছনের দিকে নিয়ে যাবে। আইভী বলেন, ‘আমাদের দেশের বাচ্চারা আগেও মেধাবী ছিল, এখনও আছে, ভবিষ্যতেও থাকবে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মেধার কারণেই আমরা পাকিস্তানের কাছ থেকে মুক্ত হতে পেরেছিলাম। বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রতির দেশ। আমরা চাই না কোন সাম্প্রদায়িক শক্তি মাথাচাড়া দিয়ে উঠুক। আমরা চাই যে, অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গড়ে উঠুক। এটাই যেন হয় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকীতে আমাদের অঙ্গিকার।’ অভিভাবকদের উদ্দেশ্যে মেয়র আইভী বলেন, ‘বাচ্চাদের ইতিহাস শেখাবেন। বইগুলোতে ইতিহাসের কথা যুক্ত হয়েছে বলেই বাচ্চা আজ এগুলো বলতে পারছে। একটা সময় এ বইগুলোর মধ্যে বঙ্গবন্ধুর নামও নিষিদ্ধ ছিল। কিন্তু আমরা চাই না আমাদের ইতিহাসকে কেউ মুছে দিক। আমরা চাই আমাদের বাচ্চারা সম্পূর্ণ ইতিহাস জানুক। আমরা চাই ৭১’র ইতিহাস, ৭৫’র ইতিহাস, ৫২’র ইতিহাস জানুক। এ ইতিহাস জেনেই যেন আমাদের সন্তানরা বিশ্বের বুকে মাথা উচু করে দাঁড়াতে পারে।’ মেয়র আইভী আরো বলেন, ‘বাংলাদেশ আজ জাতিসংঘের স্বীকৃতি পেয়েছে মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে। ১৬ মার্চ জাতিসংঘ ঘোষণা দিয়েছে যে, ‘বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হয়েছে।’ এটা আমাদের জন্য অনেক বড় সাফল্য। আজ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন আর আগের দিনের ঘোষণা বাংলাদেশের জন্য বড় একটি উপহার। আজ আমাদের দুইটা আনন্দ একটা বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন আরেকটা বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে।’ এর আগে সকাল সাড়ে ১০টায় বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকী ও শিশু দিবস উপলক্ষ্যে শহরের ২নং রেল গেট এলাকার আওয়ামীলীগের কার্যালয়ের সামনে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। গতকাল শনিবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশুদিবস উপলক্ষে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন আয়োজিত শিশু-কিশোরদের চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে মেয়র এসব কথা বলেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন, সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী এ এফ এম এহতেশামুল হক, নির্বাহী প্রকৌশলী আজগর হোসেন, কাউন্সিলর কবির হুসাইনসহ সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তারা। পরে মেয়র বিজয়ীদের শিশু-কিশোরদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন। এর আগে মেয়র আইভী দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে নগরীর দুই নম্বর রেলগেট জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভপতি আব্দুল কাদির, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সুফিয়ান, শহর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আহাম্মদ আলী রেজা উজ্জ্বল প্রমুখ।

 

আলীগঞ্জে শিশু দিবসের অনুষ্ঠানে-শ্রমিকলীগ নেতা পলাশ বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা উপহার আমরা ভোগ করছি

 

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

সদর উপজেলার আলীগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ে জাকজমকপূর্ন আনন্দঘন পরিবেশে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবাষির্কীতে ৯৯ পাউন্ড কেক কেটে জাতীয় শিশু দিবস উদ্যাপন করেছেন বিদ্যালয়ের সভাপতি, জাতীয় শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির শ্রমিক উন্নয়ন ও কল্যান বিষয়ক সম্পাদক আলহাজ্ব কাউসার আহমেদ পলাশ। গতকাল শনিবার সকালে বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল ও কেক কাটার মধ্যদিয়ে দিবসটি পালিত হয়। অনুষ্ঠানে কাউসার আহমেদ পলাশের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন বিদ্যালয়েল প্রধান শিক্ষক নিখিল চন্দ্র সরকার, সহকারি প্রধান শিক্ষক কামরুল হাসান, শিক্ষক জয়নাল আবেদীন, আলমগীর হোসেন, শিল্পী নাহার ও আঞ্জুমান আরা, ৩ জন অভিভাবক সদস্য সামছুল হক, মোবারক আলী ও আলী আহমেদ এবং ইউনাইটেড ফেডারেশন অব গার্মেন্টস ওয়ার্কার্স জেলা কমিটির সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন সেন্ট ও আলীগঞ্জ ট্রাক চালক সমিতির সম্পাদক আবুল হোসনসহ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও অভিভাবক মন্ডলী। বিদ্যালয়ের সভাপতি শ্রমিকলীগ নেতা কাউসার আহমেদ পলাশ বলেন, এদেশ মানুষকে অত্যাচার নির্যাতন থেকে রক্ষা করতে স্বাধীনতা উপহার দেওয়ার জন্য, পরাধিনতার শৃংখল থেকে মুক্তি উপহার দেওয়ার জন্য অনেক বীর সন্তানরা জীবন দিয়েছেন। কিন্তু তাদের মধ্যে কেউ বাঙ্গালী জাতির কাছে স্বাধীনতার স্বাদ পৌঁছে দিতে পারননি। একমাত্র জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের বাঙ্গালীর সেই কাংখিত স্বাধীনতার স্বাদ এনে দিতে সক্ষম হয়েছেন। বঙ্গবন্ধু জন্মের পর শৈশব থেকে যৌবন পর্যন্ত তার পদচারনায় দীর্ঘদিনে স্বাধীনতা বিরোধীদের অত্যাচার জেলাজুলুম সহ্য করে এক পর্যায়ে মানুষকে মুক্তির জন্য সংগ্রামের পথ দেখিয়ে বাংলার সাড়ে সাত কোটি মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করে পশ্চিমাদের বিরুদ্ধে রুখে দাড়াঁনোর পরিস্থিতি কায়েম করে ডাক দিয়ে ছিলেন এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম। তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বাধীন দেশ উপহার দেওয়ার স্বার্থকতা তখনই হবে যখন তোমরা স্কুল কলেজ শিক্ষার্থীরা সু-শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে দেশকে গড়ে তোলবে।

বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস পালিত

 

সোনারগাঁ প্রতিনিধি

সোনারগাঁ উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা জনপ্রতিনিধি ঐক্য ফোরামের উদ্যোগে গতকাল শনিবার উৎসব মুখর পরিবেশে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে সকালে নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁ) আসনের সংসদ সদস্য ও জাতীয় পার্টির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব লিয়াকত হোসেন খোকার নেতৃত্বে উপজেলা জনপ্রতিনিধি ঐক্য ফোরাম এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহীনুর ইসলামের নেতৃত্বে উপজেলা প্রশাসন বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনে অবস্থিত বঙ্গবন্ধুর ব্রোঞ্জ নির্মিত ভাস্কর্যে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন। পরে উপজেলা পরিষদ চত্বরে আলোচনা সভা ও বর্ণাঢ্য র‌্যালীসহ বিশাল আকারের দুটি কেক কাটা হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহীনুর ইসলামের সভাপতিত্বে এসময় সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- উপজেলা মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান ও এমপি লিয়াকত হোসেন খোকার সহধর্মীনি ডালিয়া লিয়াকত, উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাসিমা আক্তার, উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) রুহুল আমিন রিমন, উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অ্যাডভোকেট সামসুল ইসলাম ভূঁইয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক সুলতান আহমেদ মোল্লা বাদশা, উপজেলা জনপ্রতিনিধি ঐক্য ফোরামের সাধারণ সম্পাদক ও বারদী ইউপি চেয়ারম্যান জহিরুল হক, নোয়াগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান ইউসুফ দেওয়ান, পিরোজপুর ইউপি চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মাসুদুর রহমান মাসুম, শম্ভুপুরা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ, বৈদ্যেরবাজার ইউপি চেয়ারম্যান ডা. আব্দুর রউফসহ অন্যান্য চেয়ারম্যানবৃন্দ, উপজেলা শিক্ষা কমিটির সদস্য ও ভট্টপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আবু নাইম ইকবাল, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সাইদুল ইসলাম, স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. তানভীর আহম্মেদ চৌধুরী, কৃষি কর্মকর্তা আশেক পারভেজ, প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম, প্রকৌশলী আলী হায়দার খাঁন, সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মাহমুদা আক্তার, নির্বাচন কর্মকর্তা কামরুজ্জামান, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোরশেদ আলম (পিপিএম), উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আ.ফ.ম জাহিদ ইকবাল, হিসাব রক্ষন কর্মকর্তা আহসান উল্লাহ, সাব-রেজিস্টার মিজানুর রহমান, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম প্রধান, সমাজ সেবা কর্মকর্তা মোহাম্মদ নঈম জাহাঙ্গীর, যুব উন্নয়ণ কর্মকর্তা রেজাউল করিম তরফদার, পল্লী উন্নয়ণ কর্মকর্তা সারোয়ার আলম, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা বিবি তহুরা, পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম, ডি.জি.এম পল্লী বিদ্যুৎ মোহাম্মদ জোনাব আলী, উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা আনিছা খাতুন, পরিসংখ্যান কর্মকর্তা এ.কে.এম শামসুজ্জামান, আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা মবিন আলী, খাদ্য নিয়ন্ত্রক আব্দুল মুকিত, উপ-সহ প্রকৌশলী (জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল) নাজমুল হাছান, ফরেষ্টার আবু মুন্না, ইন্সট্রাক্টর ইউআরসি নাসরিন জাহান পপি ও উপ: প্র: অ: (পজীপ) সিরাজুল ইসলাম।  ভট্টপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বি.আর বিলকিসের সঞ্চালনায় এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন- পৌরসভার কাউন্সিলর জাহেদা আক্তার মনি, বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের সোনারগাঁ উপজেলা শাখার চেয়ারম্যান জাহানারা আক্তার, শিক্ষানুরাগী মাহমুদা ইসলাম ফেন্সী, জামপুর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক শাহ মো. হানিফ, জামপুর ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির সদস্য সচিব আলীজান মেম্বার, উপজেলা যুব সংহতি নেতা জাবেদ রায়হান, অহিদুল ইসলাম অহিদ, উপজেলা ছাত্র সমাজের সভাপতি ফজলুল হক, সাধারণ সম্পাদক সেকান্দার আলীসহ উপজেলা জনপ্রতিনিধি ঐক্য ফোরাম এবং উপজেলা জাতীয় পার্টি ও অঙ্গসংগঠনের বিপুল সংখ্যক নেতৃবৃন্দ।

আজ রাজপথে নামবে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি

 

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

দলীয় চেয়ারপার্সণের মুক্তির দাবীতে চলমান আন্দোলন সংগ্রামের পাশাপাশি ছাত্রদল নেতার মৃত্যুর প্রতিবাদে কেন্দ্র আহূত বিক্ষোভ কর্মসূচি পালনে আজ ফের রাজপথে নামছে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি। কারাবন্দি খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবী এবং পুলিশ হেফাজতে অসুস্থ হয়ে ছাত্রদল নেতা জাকির হোসেন মিলনের মৃত্যুর প্রতিবাদে গত ১৫ মার্চ দেশব্যাপী বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা করেন দলটির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। সেই লক্ষে দলীয় বিক্ষোভ কর্মসূচী পালনে আজ রবিবার সকালে নগরীর চাষাড়া বালুর মাঠ এলাকায় পৃথক সময়ে রাজপথে নামবে জেলা ও মহানগর বিএনপি। দলীয় সূত্রে জানাগেছে, জেলা বিএনপি সকাল ১১ টায় এবং মহানগর বিএনপি দুপুর ৩ টায় পালন করবে বিক্ষোভ কর্মসূচী। বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সাধারন সম্পাদক এটিএম কামাল জানান, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি এড. আবুল কালাম আজাদের সাথে কথা হয়েছে। তারা সকাল ১১টায় কর্মসূচী পালন করবেন। আর মহানগর বিএনপি দুপুর ৩ টায় নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাব চত্ত্বরে বিক্ষোভ কর্মসূচী পালন করবে।’  সূত্রে প্রকাশ, নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র শীর্ষ নেতারা নিজেদের মধ্যকার ব্যক্তিগত কোন্দলে জর্জরিত থাকায় দলের মাঝে সৃষ্টি হয়েছিলো বিভাজন। নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সাবেক সভাপতি এড. তৈমূর আলম খন্দকার, সাবেক এমপি মো: গিয়াসউদ্দিন, জেলা বিএনপি’র সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান, সহ সভাপতি মো: শাহ আলম, নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি’র সভাপতি এড. আবুল কালাম, সিনিয়র সহ সভাপতি এড. সাখাওয়াত হোসেন খানসহ নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র শীর্ষ নেতাদের মাঝে বিভক্তি ছিলো চরম আকারের। দলীয় বা জাতীয় কোন কর্মসূচিতে এসব নেতাদের এক কাতারে দেখা যায়নি কখনো। যদিও বিভাজনের নেপথ্যে এড. তৈমূর আলম খন্দকার- এমন অভিযোগ সাধারণ নেতাকর্মীদের। তাদের অভিযোগ নিজের স্বার্থ আদায় করতেই তৈমূর দলের মধ্যে বিভাজন সৃষ্টি করে রেখেছে।