আজ : মঙ্গলবার: ১১ বৈশাখ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ২৪ এপ্রিল ২০১৮ ইং | ৭ শাবান ১৪৩৯ হিজরী | সকাল ৯:০৯
BADAL
শিরোনাম
ডিএনডি’র জলাবদ্ধতায় পঞ্চাশ বিঘা জমির ধান পানির নিচে-❋-আওয়ামীলীগে কোন্দল সৃষ্টিকারীদের কেন্দ্রীয় হুশিয়ারি...-❋-হকার ইস্যুতে আবারও অশান্ত হওয়ার পথে নারায়ণগঞ্জ !-❋-ঢাকা-পাগলা-নারায়ণগঞ্জ পুরাতন সড়কের বেহাল দশা রোদে ধুলা-বৃষ্টিতে কাদায় জনভোগান্তি-❋-লন্ডনের কার্টেজ হোটেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সোনারগাঁয়ের উন্নয়ন নিয়ে ইঞ্জিনিয়ার শফিকুলের সাথে আলোচনা-❋-সকল মানুষেরই প্রাণের মায়া আছে :লিপি ওসমান-❋-নারায়ণগঞ্জে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহের উদ্বোধনীতে ডিসি : ফাস্টফুড আমাদের দেহের জন্য ক্ষতিকর-❋-সাড়ে চার কোটি টাকার মাদক ধ্বংস !-❋-মাঠে নামার প্রস্তুতিতে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি-❋-ওয়াসার দুর্গন্ধযুক্ত পানি ব্যবহারের অযোগ্য ॥ সীমাহীন ভোগান্তিতে নারায়ণগঞ্জবাসী

না’গঞ্জে হচ্ছে ইসলামী রিসার্চ সেন্টার

 

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

নারায়ণগঞ্জে হচ্ছে বহুতল ইসলামি রিসার্চ সেন্টার। এই রিসার্চ সেন্টার নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ১৯ কোটি টাকা। ফতুল্লার সস্তাপুর এলাকায় অবস্থিত নতুন কোট সংলগ্ন পুরাতন মসজিদের স্থানে রিসার্চ সেন্টারটি নির্মমান করা হবে। সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. রাব্বি মিয়া সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে এতথ্য জানান। তিনি বলেন, জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের প্রবেশ গেটের সামনে অবস্থিত মসজিদ নতুন করে নির্মাণ হচ্ছে। সেখানে স্থানান্তর হলেই বর্তমান মসজিদের স্থানে একটি ইসলামী রিচার্স সেন্টারের কাজ শুরু হবে। ইতোমধ্যেই আমি একটি প্রস্তাবনা প্রেরণ করেছি। ইসলামী রিচার্স সেন্টারের ব্যয় ধরা হয়েছে ১৯ কোটি টাকা।

সদর-বন্দর আসনে আগামী নির্বাচনে পাল্টে যেতে পারে দৃশ্যপট

 

 

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সদর-বন্দর আসনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী কে হচ্ছে এ নিয়ে জল্পনা-কল্পনার শেষ নেই। ইতিমধ্যে অর্ধ ডজনেরও বেশী প্রার্থী আগামী নির্বাচনে নিজেদের প্রার্থীতা ঘোষণা করেছেন। মাঠে তেমন একটা সরগরম কিংবা নেতা-কর্মীদের মধ্যে তাদের নিয়ে তেমন একটা আলোচনা না চললেও হঠাৎ করে ৮ বছর পর সাবেক সাংসদ এসএম আকরামের এলাকায় আগমন ও নির্বাচন নিয়ে কথাবার্তা নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের নেতা-কর্মীদের মধ্যে নতুন করে আলোচনার জন্ম দিয়েছে। যদিও মহানগর আওয়ামীলীগের নেতা-কর্মীরা বলছেন, এসএম আকরাম আওয়ামীলীগের কেউ নন। দীর্ঘদিন আগে তিনি আওয়ামীলীগ থেকে পদত্যাগ করেছেন। বর্তমানে তিনি নাগরিক ঐক্যের উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করছেন। নাগরিক ঐক্যের আহবায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নার দলের সাথে সম্পৃক্ত কাউকে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রশ্নই উঠে না। তবে গতকাল শুক্রবার বন্দরের আলীনগরে চক্ষু চিকিৎসা শিবিরের উদ্বোধনকালে এসএম আকরাম বলেছেন, মানুষের সেবার জন্য এই বয়সেও মাঠে নামতে প্রস্তুত আছি। আওয়ামীলীগ থেকে মনোনয়ন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, যদি প্রধানমন্ত্রী ডাকেন তবে অবশ্যই যাব। তিনি (শেখ হাসিনা) দেশের প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামীলীগের সভাপতি তাঁর ডাকে অবশ্যই সাড়া দিবো। আওয়ামীলীগ থেকে কোন ধরণের গ্রীণ সিগন্যাল পেয়েছেন কী না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি হেসে বলেন, এখনই এ বিষয়ে কিছু বলব না। তার এই না বলা কথার মধ্যে অনেক কিছু লুকিয়ে আছে। অনেকে মনে করছেন, এসএম আকরাম আবার আওয়ামীলীগে ফিরে আসার চেষ্টা করছেন। আর নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগে ফিরিয়ে আনার জন্য একটি মহল দলের শীর্ষ নেতাদের সাথে দেন দরবার করছেন বলে বিশ^স্ত একটি সূত্র জানান। এদিকে নারায়ণগঞ্জে আওয়ামীলীগের সদর-বন্দর আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পাওয়ার প্রতিযোগিতায় মেতে উঠেছে একাধিক প্রার্থী। এদের মধ্যে শেষ পর্যন্ত কেউ আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পাবেন কি না এ নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ থাকলেও নির্বাচন করুক কিংবা নাই করুক আগামী নির্বাচনে তারা নিজেদেরকে যোগ্যপ্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দিয়ে বসে আছেন। যদিও দেশের সর্বত্র আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য প্রার্থীরা সরব হলেও নারায়ণগঞ্জের সদর-বন্দর আসনের সম্ভাব্য প্রার্থীরা তেমন সরব নন। ইতিমধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও নির্বাচনী প্রচারণায় বিভাগীয় শহর গুলোতে ভোট চেয়ে প্রচারণা শুরু করেছেন। দেশ ব্যাপী আওয়ামীলীগ নির্বাচনী প্রচারণায় মাঠে নেমে গেলেও নারায়ণগঞ্জে আওয়ামীলীগ ও তাদের মিত্র দলগুলো এখনো মাঠে নামেনি। নির্বাচনী প্রচারণার চাইতে নিজেদের মধ্যে দ্বন্দ্ব কলহ নিয়েই নারায়ণগঞ্জের রাজনৈতিক নেতারা বেশি ব্যস্ত। নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগে কোন্দলের কারণে বিভিন্ন কর্মসূচী আলাদা আলাদা ভাবে পালিত হচ্ছে। এর মধ্যে আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশী বলে ইতিমধ্যে ঘোষণা দিয়েছেন জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাই, মেয়র আইভীর ভগ্নিপতি আব্দুল কাদির, আরজু রহমান ভূইয়া, এড. খোকন সাহা, আনিসুর রহমান দিপু, শুক্কুর মাহমুদ ও জিএম আরাফাত। এরমধ্যে মাঠ পর্যায়ে আরজু রহমান ভ’ইয়া কিছু উঠান বৈঠক করলেও এখন অনেকটাই নিরব।  অপর দিকে খোকন সাহা গতকাল শুক্রবার শহরের একটি অনুষ্ঠানে বলেন, এই আসনে ১৭ বছর ধরে দলীয় কোন এমপি নেই। আর তাই প্রতিটি কর্মীর প্রাণের দাবি নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনে নৌকার প্রার্থী দেয়া। ৪২ বছর ধরে আমি আওয়ামীলীগের রাজনীতি করে আসছি। আমার জুনিয়র অনেকেই মন্ত্রী হয়েছে। নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনে আমি অবশ্যই প্রার্থী হবো। নেত্রী আমাকে মনোনয়ন দিলে আমি অবশ্যই জয়ী হবো বলে আমার বিশ্বাস।  অন্যপ্রার্থীদের এখনও পর্যন্ত কোন প্রচার প্রচারনা দৃশ্যমান হয়নি। তাদের প্রার্থীতা এখনও পর্যন্ত ঘোষণার মধ্যেই সীমাবদ্ধ বলে খোদ আওয়ামীলীগের নেতা-কর্মীরা জানান। তবে আওয়ামীলীগের হাই কমান্ড সূত্রে জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জ সদর-বন্দর আসনে প্রার্থী তালিকায় চমক আসামর সম্ভাবনাই বেশী। সে ক্ষেত্রে যারা নৌকার মাঝি হওয়ার জন্য দেন দরবার করছেন শেষ পর্যন্ত তারা নৌকার হাল নাও ধরতে পারে। তবে শেষ পর্যন্ত সদর-বন্দর আসনে আওয়ামীলীগ সমর্থিত কিংবা মনোনীত প্রার্থী কে হন তা একমাত্র দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনাই নিশ্চিত করে বলতে পারেন। তবে ধারণা করা হচ্ছে দীর্ঘ আর্ধযুগেরও বেশী সময় পর হঠাৎ করে এসএম আকরামের এলাকায় আগমন এবং নির্বাচনে অংশ গ্রহণের আগ্রহ নারায়ণগঞ্জের রাজনৈতিক দৃশ্যপটকে পাল্টে দিতে পারে।

নির্বাচন করতে প্রস্তুত আছি: আকরাম

 

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

নির্বাচনের সুষ্ঠ পরিবেশ হলে আবারও নির্বাচন করতে চান উল্লেখ করে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য এস এম আকরাম বলেছেন, মানুষের সেবার জন্য এই বয়সেও মাঠে নামতে প্রস্তুত আছি। আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, যদি প্রধানমন্ত্রী ডাকেন তবে অবশ্যই যাব। তিনি (শেখ হাসিনা) দেশের প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতি তাঁর ডাকে অবশ্যই সাড়া দিবো। আওয়ামী লীগ থেকে কোন ধরণের গ্রীণ সিগন্যাল পেয়েছেন কী না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি হেসে বলেন, এখনই এ বিষয়ে কিছু বলব না। গতকাল শুক্রবার বন্দরের আলীনগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দিনব্যাপী বিনামূল্যে চক্ষু চিকিৎসা ক্যাম্প অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি এসব কথা বলেন। লায়ন্স ক্লাব অব ঢাকা শাহবাগ সেন্ট্রাল ও এসএম আকরামের উদ্যোগে এ ক্যাম্পের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে এস এম আকরাম বলেন, যতদিন বেচে থাকব মানুষের সেবার মধ্যে নিয়োজিত থাকব। শেষ সময়ে মানুষের দোয়া ও ভালবাসা নিয়ে মরতে চাই। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন-লায়ন্স ক্লাব ৩১৫ বি২ এর ডিস্ট্রিক গর্ভনর কাজী সাইফুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে আরও উপস্থিত ছিলেন- জোনায়েদ ইকবাল, আশফাকুর রহমান, মোবারক হোসেন। চক্ষু ক্যাম্পে সহ¯্রাধিক রোগীর চোখ পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হয়। এরমধ্যে শতাধিক রোগীকে ঢাকায় নিয়ে অপারেশনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এসব রোগীর অপারেশন ও চিকিৎসা ব্যয় লায়ন্স ক্লাব ও এস এম আকরাম যৌথভাবে বহন করবেন। চক্ষু ক্যাম্প সার্বিক ব্যবস্থাপনা করে-স্বাধীনতা যুবসংঘ। আলীনগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি শফিউদ্দিন শফু, যুবসংঘের সভাপতি ফরিদ আহমাদ রানা, সাধারণ সম্পাদক সাগর আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক ফাহিম উদ্দিন, সাবেক সভাপতি কামরুল হাসান বাবুল, জহির, সাবেক সাধারণ সম্পাদক হাজী কামরুজ্জামান, আব্দুল গাফ্ফার সহ ক্লাবের কার্যকরী কমিটির সদস্যগণ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

 

 

সনাতন ধর্মালম্বীদের ¯œানোৎসব শুরু

 

নাসির উদ্দিন

সনাতন হিন্দু সম্প্রদায়ের পাপমোচন পুণ্য ¯œানার্থে এক অন্যন্য তীর্থ ভূমি নারায়ণগঞ্জ বন্দরের লাঙ্গলবন্দে আজ শনিবার থেকে শুরু হচ্ছে ধর্মীয় পবিত্র মহাতীর্থ অষ্টমী ¯œান উৎসব। শুল্কাতিথি অনুযায়ী আজ শনিবার সকাল ১০ টা ৩০ মিনিট ৫০ সেকেন্ডে লগ্ন শুরু হবে। দুই দিনব্যপী এ ¯œান উৎসব শেষ হবে আগামীকাল রোববার সকাল ৭ টা ৫২ মিনিট ৩০ সেকেন্ড। আগত পূর্ণার্থীদের নিরাপত্তা জোরদারে জেলা ও উপজেলা প্রশাসন লাঙ্গলবন্দ ৩ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। জগতের যাবতীয় সংকীর্ণতা ও পঙ্কিলতার আবরণ থেকে মুক্তির বাসনায় নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার লাঙ্গলবন্দের ব্রহ্মপুত্র নদে অষ্টমী ¯œান শুরু হবে।   দেশি ও বিদেশি আগত ভক্তদের ¯œান উৎসব শান্তিপূর্ণ ও নির্বঘেœ পালন করার লক্ষ্যে ইতোমধ্যে সকল প্রস্তুতি শেষ পর্যায়ে জানিয়েছেন হিন্দু নেতারা। গতকাল শুক্রবার সরেজমিনে বন্দরের লাঙ্গলবন্দের ব্রহ্মপুত্র নদের গিয়ে দেখা গেছে, অন্যান্য বার কচুরিপনা থাকলেও এবার সেটা দূর হয়েছে। ¯œানের পর নরী পুণ্যার্থীদের কাপড় বদলের নেই কোন সুব্যবস্থা। ঘাটগুলোর পাশে কয়েকটি ছোট রুম থাকলেও চাহিদার তুলনায় অনেক কম। এছাড়াও সেগুলো নোংরা ও অপরিষ্কার। এখনও নতুন করে অস্থায়ী কোন কাপড় বদলের সুব্যবস্থা করা হয়নি। তবে ¯œান উপলক্ষে ৩৩টি ধর্মীয় স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সেবামূলক সংগঠন পুণ্যার্থীদের সেবা দিতে ক্যাম্প স্থাপন করা হচ্চে। এসব ক্যাম্প থেকে পুণ্যার্থীদের রান্না করা খাবার ও চিকিৎসা দেওয়া হবে। বাংলাদেশ হিন্দু কল্যাণ সংস্থার কেন্দ্রীয় সদস্য রনজিৎ মোদক জানান, এবার ললিত সাধুর ঘাট, অন্যপূর্ণ ঘাট, রাজ ঘাট, কালীগঞ্জ ঘাট, মা কুঁড়ি সাধুর ঘাট, মহাত্মা গান্ধী ঘাট, বড় দেশ্বরী ঘাট, জয়কালি ঘাট, রক্ষাকালী ঘাট, প্রেম তলা ঘাট, চর শ্রীরাম ঘাট, সাবদি ঘাট, বাসনকালী ও জগৎবন্ধু ঘাটে ¯œান করা হচ্ছে।সনাতন ধর্মাবম্বীদের বিশ্বাস ব্রহ্মপূত্রের জলে পাপমুক্ত করেছিল পরশুরাম মুনিকে।  হিন্দু ধর্মলবম্বী লোকজন মনে করেন, মহা ভারতের বর্ণনা মতে পরশুরাম মুনি পাপমুক্তির জন্য ব্রহ্মপূত্র নদে যে স্থানের জলে স্নান করেছিলেন, তা লাঙ্গলবন্দ অবস্থিত। সেই থেকে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস এ সময়ে বহ্মপূত্র নদে স্নান খুবই পূণ্যের। এ স্নানের ফলে ব্রহ্মার সন্তুষ্টি লাভের মাধ্যমে পাপমোচন হয়। এ বিশ্বাস নিয়ে সুদীর্ঘকাল ধরে এ স্নানে অংশ নেওয়ার জন্য প্রতিবৎসর ভারত,নেপাল,ভুটানসহ বিভিন্ন দেশ থেকে পূর্নাথীদের আগমন ঘটে।এবং দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে অসংখ্য মানুষ আসেন লাঙ্গলবন্দে। পাপমোচনের এ উৎসবে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের লাখ লাখ মানুষ এসে এখানে সমাবেত হয়। পরশুরামের পাপ থেকে মুক্তি হওয়ার  কথা স্মরণ করে শ’শ’ বছর ধরে লাঙ্গলবন্দে ব্রহ্মপূত্র নদে অষ্টমী স্নান অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। বন্দর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পিন্টু বেপারী জানান, স্নান নির্বিঘ্ন করতে  জেলা প্রশাসক সব ধরনের ব্যবস্থা সম্পন্ন করেছে। স্নান ঘাটলাগুলোতে কাপড় পাল্টানোর পর্যপ্ত  ব্যবস্থা, বিদ্যুতিক বাতি, বিশুদ্ধ খাবার পানি সরবরাহ, পূণ্যার্থীদের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে ১০ শয্যা বিশিষ্ট অস্থায়ী হাসপাতালসহ ৫টি মেডিকেল টিম সার্বক্ষনিক থাকবে। এছাড়াও  পূণ্যার্থীদের উন্নত সেবা প্রদানে  ১০টি এ্যাম্বোলেন্স সার্ভিস চালু থাকবে। লাঙ্গলবন্ধ ¯œান উৎসব উদযাপন পরিষদের কার্যকারী সদস্য ও বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি শংকর সাহা বলেন, ইতোমধ্যে ¯œানোৎসবের সকল প্রস্তুতি শেষ পর্যায়ে। পুণ্যার্থীদের জন্য নদীতে নির্দিষ্ট সীমানের মধ্যে বাঁশের বেড়া দিয়ে দেওয়া হবে।’ তিনি আরো বলেন, ‘এবছর ¯œানের তিথি দুইদিনে হওয়ায় ভক্তরা শান্তিপূর্ণ ভাবে ¯œান করতে পারবে। শনিবার সকাল সকাল ১০টা ১৪ মিনিট থেকে পরদিন রোববার সকাল ৭টা ৫২ মিনিট পর্যন্ত তিথি রয়েছে। এ সময়ের মধ্যে ভক্তরা পুণ্য ¯œান করবেন। দীর্ঘ সময় হওয়ায় এবার ঘাটগুলো ভীড় না হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তারও পরিস্থিতি মোকাবেলায় ২০০ থেকে ২৫০ স্বেচ্ছাসেবক কর্মী ২৪ ঘন্টা কাজ করে যাবে।’ লাঙ্গলবন্ধ ¯œান উৎসব উদযাপন পরিষদের সভাপতি সরোজ কুমার সাহা বলেন, ‘পুণ্যার্থীদের জন্য ১০০টি অস্থায়ী পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা, ৬০টি গভীর নলকূপ সহ ট্যাংকের সাহায্যে অস্থায়ী বিশুদ্ধ জল থাকবে। পুণ্যার্থীদের কাপড়ের বদলের জন্য বড় করে অস্থায়ী প্যান্ডেল করা হবে। ইতোমধ্যে সব প্রস্তুতি শেষ। আশা করি শান্তিপূর্ণ ভাবে ¯œানোৎসব পালন করতে পারবে ভক্তরা।’

 

 

সিদ্ধিরগঞ্জে মিতালী মার্কেটের নতুন কমিটির পরিচিত সভায় শামীম ওসমান আমি হারাম খাইনা-খাইতে দিমু না

 

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান বলেছেন, আমি হারাম খাইনা, হারাম খাইতেও দিমু না। আল্লাহ অখুশি হন, এমন কাজ আমি করবো না। গতকাল শুক্রবার বিকালে সিদ্ধিরগঞ্জের লিংক রোডস্থ মিতালী মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির নবনির্বাচিত কমিটির দোয়া অনুষ্ঠানে তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাংসদ শামীম ওসমান এসময় কোন ব্যবসায়ীর আমানত যাতে খেয়ানত না হয়, সে দিকে খেয়াল রাখার নির্দেশ দিয়েছেন। সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও নবনির্বাচিত কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব ইয়াছিন মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উক্ত অনুষ্ঠানে তিনি আরো বলেন, আমি এমপি হয়েছি, মানুষের সেবা করতে। মানুষের মাথায় কাঠাল রেখে ভেঙ্গে খেতে চাই না। এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এহসানুল হক নিপু, সিদ্ধিরগঞ্জ থানার অফিসার্স ইনচার্জ আব্দুস সাত্তার টিটু, নাসিক ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক ক্রীড়া সম্পাদক আরিফুল হক হাসান, নাসিক কাউন্সিলর ইফতেখার আলম খোকন, নারায়ণগঞ্জ জেলা তাঁতী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ জসিম উদ্দিন আহামেদ চৌধুরী, আদমজী আঞ্চলিক শ্রমিক লীগের সভাপতি আব্দুস সামাদ বেপারী ও নারায়ণগঞ্জ মহানগর ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক নাসিম মাহমুদ তপন প্রমূখ। শামীম ওসমান আরো বলেন, এ মার্কেট নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে সমস্যা চলছে। এখানে অনেক মানুষ দোকানের জন্য টাকা লগ্নি করেছেন। কিন্তু দোকান বুঝে পাননি। আবার অনেকই আছেন- টাকা দেন নাই, কিন্তু দোকান নিয়ে বসে আছেন। তিনি বলেন, যার যতটুকু প্রাপ্য তাকে সেটুকু বুঝিয়ে দেন।

হাফেজ আনিস হত্যা মামলায় তিন জন কারাগারে

 

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

বন্দরে চাঞ্চল্যকর হাফেজ আনিস হত্যা মামলার ৩আসামীকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার দুপুরে জামিন চেয়ে আদালতে আত্মসমর্পণ করলে আদালত অভিযুক্ত ৩ আসামীর জামিন নামঞ্জুর করে তাদেরকে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন। আসামীরা হচ্ছে সাবদী কলাবাগ এলাকার আবদুল আউয়াল মিয়ার ছেলে শাহ আলম (৪০) একই এলাকার দিদার মিয়ার ছেলে পারভেজ(২৩) ও শামীম(২০)। বন্দর থানার কলাগাছিয়া ইউনিয়নের সাবদী কলাবাগ এলাকার হাজী আমানউদ্দিনের ছেলে হাফেজ আনিসের সঙ্গে ড্রেজার ব্যবসা নিয়ে বিরোধ ছিল। এরই জের ধরে একই এলাকার আবদুল আউয়াল মিয়ার ছেলে শাহ আলম,এলাকার দিদার মিয়ার ছেলে পারভেজ ও শামীমসহ ১৫/২০জনের একটি দল গত বছরের ২৫ মে বিকেলে স্থানীয় কালি মন্দিরে ডেকে নিয়ে ধারালো অস্ত্র-সস্ত্র দিয়ে নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা করে। এ ঘটনায় হাফেজ আনিসের বড় ভাই জামান বাদী হয়ে বন্দর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। দীর্ঘ দিন পালিয়ে থাকার পর মামলার অন্যতম আসামী শাহ আলম, পারভেজ ও শামীম গত বৃহস্পতিবার নারায়ণগঞ্জ আদালতে আতœসমর্পণ করলে আদালত তাদের জামিন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণ করে। এদিকে আসামীদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে মামালার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডি ইন্সপেক্টর প্রদীপ কুমার সরকার ৭দিনের করে রিমান্ড প্রার্থণা করলে আদালত আগামী রোববার শুনানীর দিন ধার্য্য করেন।

ত্রিশ কোটি টাকায় লিঙ্ক রোডের সংস্কার হলো না

 

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

নারায়ণগঞ্জ থেকে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যাওয়ার অন্যতম ব্যস্ততম সড়ক হচ্ছে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড। অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও ব্যস্ততম সড়ক সংস্কারে গেল ৫ বছরে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ৩০ কোটি টাকার বেশী। তবে সমন্বয়হীনতার কারণে বছর না ঘুরতেই বর্ষাকালে সংস্কারকৃত সড়কটিতে বৃষ্টির পানি জমে ছোট বড় গর্ত সৃষ্টি হওয়ার পাশাপাশি অনেকস্থানে পরিণত হচ্ছে খানা খন্দকে। যাতে চরম দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে যানবাহন চালক ও যাত্রীদের। গত কয়েকদিন আগে সড়কটিতে ১৮ কোটি ১৪ লাখ টাকা ব্যয়ে সংস্কার কাজ শুরু হলেও সেটাও দায়সারা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সংস্কারকাজে সমন্বয়হীনতার কারণে বর্ষাকালে সড়কটির পিচ উঠে গিয়ে আবারো পূর্বের ন্যায় দুর্ভোগের কারণ হয়ে দাড়াবে বলেই আশঙ্কা ওই রুটে চলাচলরত যাত্রীদের। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা থেকে নারায়ণগঞ্জ যাতায়াতের অন্যতম রুট হলো ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড। ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-পাগলা রুট থাকলেও উড়াল সেতুর (যাত্রাবাড়ি ফ্লাইওভার) কারণে লিংক রোড দিয়েই মূলত লোকজন বেশী চলাচল করে। প্রাইভেট কার ছাড়াও গণপরিবহনে এ রুটে যাত্রী সংখ্যাও বেশী। নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাঢ়া থেকে সাইনবোর্ড পর্যন্ত ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের দৈর্ঘ্য ৮ দশমিক ৪ কিলোমিটার। এর মধ্যে ফতুল্লার শিবুমার্কেট এলাকাতে গড়ে উঠেছে অসংখ্য শিল্পপ্রতিষ্ঠান। পাগলাতেও রয়েছে অসংখ্য শিল্পপ্রতিষ্ঠান। এছাড়া লিংক রোডের দুই পাশেই রয়েছে অসংখ্য শিল্পপ্রতিষ্ঠান। জানা গেছে, ২০১৪ সালের ১৫ এপ্রিল ১২ কোটি ১২ লাখ টাকা ব্যায়ে ৮ কিলোমিটার দীর্ঘ ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডটির সংস্কার কাজের উদ্বোধন করেন সংসদ সদস্য শামীম ওসমান। সড়কটিতে যাতে পানি না জমে সেজন্য দীর্ঘ ৩ কিলোমিটার ব্যাপী ড্রেনও নির্মাণ করে সড়ক ও জনপথ কর্তৃপক্ষ। তবে সেই ড্রেন সড়কটির পানি নিস্কাশনের কোন কাজেই আসেনি। কারণ সেই ড্রেনটি পরিপূর্ণ ছিল মাটি ও ময়লার স্তুপে। অপরিকল্পিতভাবে ও সমন্বয়হীনতায় সড়ক ও ড্রেন নির্মাণ করার কারণে রাস্তাটি পরের বছরই পরিণত হয় খানাখন্দকে। এরপর আবারো কোটি টাকা ব্যায়ে সড়কটির সংস্কার কাজ করে সড়ক ও জনপথ কর্তৃপক্ষ। তবে প্রতি বছর বর্ষা মওসুম এলেই সড়কটিতে পানি জমে ছোটা বড় গর্তের পাশাপাশি সড়কটি পরিণত হচ্ছে খানা খন্দকে। এদিকে গত ৮ মার্চ ফতুল্লার সস্তাপুর এলাকায় ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের রাস্তার সংস্কার কাজ পরিদর্শনে আসেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী এবং বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সেক্রেটারী ওবায়দুল কাদের। তিনি ওইসময় সংবাদকর্মীদের  বলেন, ‘রাস্তটি ভালো ভাবে করার জন্য নির্দেশ দিয়ে দিয়েছি। ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড ৮ কিলোমিটার রাস্তার নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ১৮ কোটি ১৪ লাখ টাকা। যদিও বাস্তবায়ন কাল ৬ মাস ধরা হয়েছে তবে সেটা এপ্রিলের মধ্যে বর্ষার আগে কাজ শেষ করতে চাই। কারণ বর্ষায় জনগণের ভোগান্তি ও জনদুর্ভোগের কথা বিবেচনা করে দিন রাত কাজ করতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে যাতে করে তিন মাস আগে কাজ শেষ হয়।’ মন্ত্রী আরো বলেন, কোথাও কাজের মান খারাপ হলে সেখানের ইঞ্জিনিয়ার, ঠিকাদার সংশ্লিষ্ট সকলকেই জবাবদিহিতা করতে হবে এবং কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। নি¤œ মানের কাজ হলে শাস্তি, ভালো কাজের জন্য পুরস্কার আর খারাপ কাজ হলে শাস্তিভোগ করতে হবে।’ এদিকে সরেজমিনে দেখা গেছে, গত ৫ বছরে সড়কটির সংস্কারে ৩০ কোটি টাকার উপরে বরাদ্দ দেয়া হলেও সম্প্রতি শুরু হওয়া বিগ বাজেটের অর্থাৎ ১৮ কোটি ১৪ লাখ টাকা ব্যায়ের সংস্কার কাজেও রয়েছে সমন্বয়হীনতার অভাব। বিশেষ করে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের দুই পাশের যে পানি নিস্কাশনের খাল ছিল সেগুলোর বেশীরভাগই ভরাট হয়ে গেছে। আর সড়ক ও জনপথের নির্মিত ড্রেন মাটি দ্বারা ভরাট হয়ে থাকার কারণে বৃষ্টির পানি লিংক রোডে জমে থাকে। এছাড়া বিগত দিনে দেখা গেছে সংস্কারকৃত সড়কের অনেক স্থানেই উচু নিচু থাকে। ওইসকল স্পটগুলোতে বৃষ্টি হলেই পানি জমে থাকে। আর পিচের প্রধান শত্রু হচ্ছে পানি। বৃষ্টির পানি জমে থাকা ওই সড়ক দিয়ে গণপরিবহনসহ পণ্যবাহী যানবাহন চলাচলের কারণে সড়কটিতে বছর না ঘুরতেই সৃষ্টি হয় অসংখ্য ছোট বড় গর্তের। ক্রমান্বয়ে যা খানা খন্দকের আকার ধারন করে। সড়ক ও জনপথ নারায়ণগঞ্জ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আলিউল হোসেন বলেন, আগে কি কাজ হয়েছিল সেটা আমি জানিনা। তবে আমি আসার পরে সড়কটির বেহাল অবস্থা দেখে সড়কটি সংস্কারে ঊর্ধ্বতনদের কাছে চিঠি প্রেরণ করি। বর্তমানে সড়কটি সংস্কারে কোন ধরনের গাফিলতি নেই বলে তিনি দাবি করেন। সড়কটির যে টাইপের কাজ অনুমোদন হয়েছে সেটার আলোকেই সংস্কার কাজ চলছে।

যুবদল ছাড়া অঙ্গ সংগঠনের অস্তিত্ব নেই !

 

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপির ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, শ্রমিকদল সহ কয়েকটি অঙ্গ সংগঠন কাগজে কলমে থাকলেও বাস্তবে রাজপথে এদের কোন অবস্থান নেই। সংগঠনগুলোর মধ্যে জেলা ও মহানগর যুবদলকে মাঝে মাঝে রাজপথে দেখা গেলেও বাকি সংগঠনগুলো দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার জেলে যাবার সাথে সাথে হারিয়ে গেছে। জানা যায়, গত ৮ ফেব্রুয়ারি দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া একটি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে কারাগারে যান। তখন থেকে এখনো তিনি রয়েছেন কারাগারেই। খালেদা জিয়া কারাগারে যাবার পর প্রতিটি জেলার নেতাকর্মীদের কথা চিন্তা করে একেবারেই শান্তিপূর্ণ কর্মসূচী ঘোষণা করছেন দল, এসব কর্মসূচী পালিত হচ্ছে প্রতিটি জেলায়ই। নারায়ণগঞ্জেই তার ব্যতিক্রম, হয়নি পালন কোন কর্মসূচীই। জেলা ও মহানগর শাখার এসব সংগঠনগুলোর অনেক নেতাকর্মীরা কর্মসূচী পালনের জন্য উদগ্রীব থাকলেও দায়িত্বপ্রাপ্তরা কর্মসূচী পালন থেকে নিজেরা বিরত থাকার পাশাপাশি নেতাকর্মীদেরকেও বিরত রাখছেন। দলের সর্বোচ্চ নেত্রীর জন্য রাজপথে তাদের এমন নিস্ক্রিয়তাকে নেতাকর্মীরা নিজেদের ব্যর্থতা হিসেবেই গ্রহন করছেন। এদিকে সংগঠনগুলোর কেন্দ্র থেকেও নেতাকর্মীদের সক্রিয় করতে কোন কার্যকর উদ্যোগ নিতে দেখা যাচ্ছেনা। দলের নেতাকর্মীরাও চাচ্ছেন কেন্দ্র থেকে দায়িত্বশীলদের উপর চাপ সৃষ্টি করে কর্মসূচী পালনের জন্য সক্রিয় করা। নেতাকর্মীরা জানান, আমাদের মায়ের মত নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার জন্যই যদি আমরা রাজপথে সক্রিয় না হই তবে আর কবে হবো। এখনই আমাদের সংগঠনগুলোকে দেখা যাচ্ছে নিস্ক্রিয়, এটা কোনভাবেই কাম্য নয়। আমাদের দলের নেতাদের উচিত এখনই এ ব্যাপারে দৃষ্টি দেয়া, প্রয়োজনে কমিটিগুলো স্থগিত করে দিয়ে আন্দোলনকালীন কমিটি ঘোষণা করে হলেও সক্রিয় নেতাকর্মীদের হাতে সংগঠনের নেতৃত্ব তুলে দেয়া। গত ২০ মার্চ দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে ১২টা ৪০ মিনিট পর্যন্ত বালুরমাঠস্থ মডার্ন ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের নির্মাণাধীন ভবনের সামনে জেলা যুবদলের সমাবেশে জেলা যুবদলের সভাপতি মোশারফ হোসেনের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম মুকুল, আড়াইহাজার থানা যুবদলের আহবায়ক জুয়েল আহম্মেদ, ফতুল¬ার থানা যুবদলের সহ-সভাপতি ফরিদ আহম্মেদ, সাধারণ সম্পাদক মাসুদুর রহমান, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আলমগীর হোসেন, রূপগঞ্জ থানা যুবদলের আহ্বায়ক সালাউদ্দিন, এনায়েতনগর ইউনিয়নের যুবদলের সভাপতি মনির হোসেন, জুম্মনসহ শতাধিক নেতাকর্মী। এটিএম কামাল বক্তব্যে বলেন, মৃত্যু উপাত্যকা ও কারাগারের দেশে আমরা বাস করছি। এখন কাউকে ধরতে, মামলা দিতে কোন কারণ প্রয়োজন হয়না পুলিশের। স্বাধীন দেশেও এদেশের নাগরিকরা আজ পরাধীনতার শৃঙ্খলে আবদ্ধ। মোশারফ হোসেন বলেন, খালেদা জিয়াকে বন্দি রেখে সরকার যদি মনে করে থাকে বিএনপি নিঃশেষ হয়ে গেছে এবং দেশে আবারো একতরফা নির্বাচন করে ফেলবে তাহলে সরকার বোকার স্বর্গে বাস করছে। বাংলাদেশের মাটিতে বেগম খালেদা জিয়া ছাড়া আর কোন নির্বাচন হতে দেয়া হবেনা।

 

 

 

 

মেয়র আইভীকে ফুলহরবাসীর কৃতজ্ঞতা    

 

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

নাসিক ২৭নং ওয়ার্ডের ফুলহরে মদনপুর-মদনগঞ্জ সড়কের পশ্চিম প্রান্তে ০.২৭ একর সরকারি হালোট দীর্ঘদিন দখলে থাকায় জনগণের চলাচলে নাভিশ্বাস উঠে গিয়েছিল এবং তা দখলমুক্ত করে জনগণের চলাচলে নতুন রাস্তা নির্মানের ঘোষনা ও পরিকল্পনা হাতে নেয়ায় স্থানীয় ফুলহর বাসী নাসিক মেয়র ডাঃ সেলিনা হায়াত আইভীকে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। গতকাল গণমাধ্যমকে স্থাণীয়রা জানান, উক্ত জায়গা স্থানীয় আনোয়ার হোসেন নামক এক ব্যক্তি দখল করে বদয়াল নির্মাণ করায় জনগণের চলাচলে বিঘœ ঘটায় স্থানীয়রা উক্ত জায়গা দখলমুক্ত করতে নিয়মিতভাবে প্রতিবাদ করেছিলেন। এ বিষয়ে স্থানীয়দের অভিযোগ ও কয়েকবার গণমাধ্যমে খবর প্রকাশের জের ধরে গত বছরের ২৭ নভেম্বর সিটি কর্পোরেশন থেকে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা সরেজমিনে দখলকৃত জায়গা পরিদর্শন করেন এবং সরকারি জায়গা দখল করে ব্যক্তিগত স্থাপনা নির্মাণ করা হয়েছে সে বিষয়ে নিশ্চিত হয়েছিলেন। এ প্রেক্ষিতে তাদের উপস্থিতি দেখতে পেয়ে স্থানীয়রা জড়ো হন এবং এ নির্মানের কারণে তাদের চলাচল অসুবিধা হচ্ছে বলে কর্মকর্তাদের অবহিত করেন। উল্লেখ্য উক্ত হালোটে ব্যক্তিগত দেয়াল নির্মাণের কারণে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা, বয়স্করা এবং বিভিন্ন রোগীরা সামান্য দূরত্বে মূল সড়কে আসতে পারলেও এ দেয়ালের কারণে তারা এ রাস্তা ব্যবহার করতে পারছিলনা। তাছাড়া জরুরি প্রয়োজনে এ্যম্বুলেন্স প্রবেশ করতে পারতনা এবং অত্র এলাকার কেউ মারা গেলে তার লাশ বের করাও কষ্টসাধ্য বিষয় হয়ে দাড়িয়েছিল। গত বছর স্থানীয় এক ব্যক্তি মারা গেলে দেয়ালের উপর দিয়ে লাশসমেত খাটটি স্থানান্তর করা হয় বলে বিষয়টি স্থাণীয়রা তাদের অবহিত করেন। পরবর্তীতে সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক জায়গাটি বেদখল করার নির্দেশনা দেন এবং মেয়র আইভীও জায়গাটি পরিদর্শন করে ৯০ দিনের মধ্যে একটি রাস্তা নির্মাণের ঘোষনা দেন। সেদিন ফুলহরবাসী কৃতজ্ঞতা স্বরূপ মেয়র আইভীকে ফুলের মালা দিয়ে বরণ করে নেন। সিটি কর্পোরেশনের নির্দেশনা অনুযায়ী এবং স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে গতকাল রাস্তা করার জন্য উক্ত দেয়াল ভেঙ্গে দেয়া হয়। ফলে জনমনে সন্তোষ প্রকাশ করা হয় এবং এ মহতি উদ্যোগের জন্য ফুলহরবাসী মেয়র আইভীকে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন সহ তার দীর্ঘায়ু কামনা করেছেন।

 

আমি মানুষের জন্য কাজ করতে চাই :শামীম ওসমান

 

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ আসনের এমপি শামীম ওসমান নতুন প্রজন্মকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘আমি মানুষের জন্য কাজ করতে চাই। আর মানুষের জন্য কাজ করে ¯্রষ্টাকে খুশি করতে চাই। এই পৃৃথিবীতে কেউ স্থায়ী নয়। এই পৃথিবীতে আমরা পরীক্ষা দিতে এসেছি। যারা নিজের ধর্ম সহীভাবে পালন করছেনা তারা জানোয়ারের চেয়েও অধম। আর যখনই মানুষ জানোয়ারের চেয়ে অধম হয় তখন এ দেশে ২ থেকে ৫ বছরের শিশুকে ধর্ষণ হয়, মানুষকে জবাই করে হত্যা করে। ক্ষুদ্র কারণে মানুষ মানুষকে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মেরে ফেলে।  গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় শহরের রামকৃষ্ণ মিশনে শ্রীরামকৃষ্ণদেবের ১৮৩ তম জন্মতিথি ও বার্ষিক উৎসব উপলক্ষে ৪দিন ব্যাপী অনুষ্ঠানের শেষ দিনের অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। শামীম ওসমান আরো বলেন, ‘রামকৃষ্ণের ১৮৩ বছর পরেও যদি তার জন্মদিন পালন করার মধ্য দিয়ে তাকে স্মরণ করা হয়ে থাকে তাহলে তোমাকে যেন ১৮ বছর পরে মানুষ মনে রাখে সেই কাজটা করো। তাহলেই তোমরা যোগ্য উত্তরসূরি হতে পারবে। আর এই কাজটা করতে হলে একেক জনে একেক নামে স্রষ্টাকে ডাকে। আর আমাদেরকে ¯্রষ্টা সরাসরি পাঠায়নি। ¯্রষ্টা আমার মায়ের মাধ্যমে আমাকে পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন। তাই আমি মনে করি যেই সন্তান তার মা-বাবাকে সম্মান ও শ্রদ্ধা করে সে ইহকাল ও পরকালে সম্মানিত হবে। আপনি যতই ধর্ম কর্ম করেননা কেন যদি আপনার কারণে আপনার মা-বাবা কষ্ট পায় তাহলে ওই ধর্ম-কর্মের কোন মূল্যই থাকেনা। আমাদের ধর্মে আছে কোন সন্তান যদি তার মাকে ভালোবাসার দৃষ্টিতে তার দিকে তাকায় তাহলে তাকে হজের সওয়াব পাওয়া যায়। সতুরাং আমরা যদি ¯্রষ্টাকে সন্তুষ্ট করতে চাই তাহলে যার মাধ্যমে সৃষ্টি হয়েছি তাকে সন্তষ্ট করতে হবে।