আজ : মঙ্গলবার: ১১ বৈশাখ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ২৪ এপ্রিল ২০১৮ ইং | ৭ শাবান ১৪৩৯ হিজরী | সকাল ৯:১০
BADAL
শিরোনাম
ডিএনডি’র জলাবদ্ধতায় পঞ্চাশ বিঘা জমির ধান পানির নিচে-❋-আওয়ামীলীগে কোন্দল সৃষ্টিকারীদের কেন্দ্রীয় হুশিয়ারি...-❋-হকার ইস্যুতে আবারও অশান্ত হওয়ার পথে নারায়ণগঞ্জ !-❋-ঢাকা-পাগলা-নারায়ণগঞ্জ পুরাতন সড়কের বেহাল দশা রোদে ধুলা-বৃষ্টিতে কাদায় জনভোগান্তি-❋-লন্ডনের কার্টেজ হোটেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সোনারগাঁয়ের উন্নয়ন নিয়ে ইঞ্জিনিয়ার শফিকুলের সাথে আলোচনা-❋-সকল মানুষেরই প্রাণের মায়া আছে :লিপি ওসমান-❋-নারায়ণগঞ্জে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহের উদ্বোধনীতে ডিসি : ফাস্টফুড আমাদের দেহের জন্য ক্ষতিকর-❋-সাড়ে চার কোটি টাকার মাদক ধ্বংস !-❋-মাঠে নামার প্রস্তুতিতে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি-❋-ওয়াসার দুর্গন্ধযুক্ত পানি ব্যবহারের অযোগ্য ॥ সীমাহীন ভোগান্তিতে নারায়ণগঞ্জবাসী
2

লিংক রোড নিয়ে তালবাহানা কতকাল !

Habibor badal | ১৬ এপ্রিল, ২০১৮ | ১:৩১ পূর্বাহ্ণ

 

 

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের সংস্কার কাজ এখনো চলমান রয়েছে। মোট কাজের ৫ ভাগের এক ভাগ ইতমধ্যে সম্পন্ন হয় নাই। অথচ রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে সংস্কার করা সড়ক বেহাল অবস্থায় পতিত হয়েছে। ব্যবহারের আগেই মুখ থুবড়ে পড়ছে কোটি টাকার সংস্কার প্রকল্প। দীর্ঘ দিন ধরে এই সড়কে খানা খন্দকে ভরা অবস্থায় দুর্ভোগে চলাচল করে আসছে লাখ লাখ মানুষ। এ অবস্থায় কারো কোন মাথা ব্যাথা না থাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করছেন পথচারীরা। তাদের অভিযোগ জনগণের টাকা এভাবেই গচ্চা দিচ্ছে কর্মকর্তারা। ভাঙ্গলেই তাদের পোয়াবারো। আবার টেন্ডার, আবার টাকা হরিলুটের ব্যবস্থা। সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় লিংক রোডের পশ্চিম দিকের লেনে পিচ ঢালার কাজ চলছে পুরোদমে। এ কাজের জন্য বাতাস যন্ত্রের মাধ্যমে ধূলা পরিষ্কার করা হচ্ছে। অথচ সড়ক দ্বীপের পাশে থাকা বালু বিপরীত লেনে ফেলা হচ্ছে। ফুটপাতের যে মাটি পিচের উপরে চলে এসেছে তা পরিষ্কার করে আবার ফুটপাতে উপরেই রাখা হচ্ছে। ফুটপাতের উপরে রাখায় এমন উচু হয়ে গেছে যে অল্প বৃষ্টিতেই সড়কে পানি জমে উঠে এসেছে। অথচ এই পানি হচ্ছে পিচের শত্রু। পনি জমলে সেখানে পিচ উঠবে এবং সড়ক দুর্বল হয়ে যায়। কোথাও কোথাও দেখা গেছে সড়কের উপরেই ময়লা আর মাটির স্তুূপ। এ অবস্থা দেখাগেছে চানমারি, সিবু মার্কেট, স্টেডিয়াম, জালকুড়ি এলাকায়। এলাকাবাসী রতন বলেন, কদিন পর পরেই সংস্কার কাজ হয় যা কোন উপকারে আসে না। একদিকে সংস্কার হয় অন্য দিকে আবার যেই সেই। এজন্য দরকার রক্ষণাবেক্ষণ করা। বিটুমিনের সড়ক পানি জমলেই নষ্ট হয়ে যায়। তাই পানি সরানোর জন্য ফুটপাত ড্রেন করতে হবে। যদি তা সম্ভব না হয় তাহলে ফুটপাত নিচু করতে হবে যাতে সড়কে বৃষ্টির পানি দ্রুত সরে যায়। অথচ রাস্তার পাশে থাকা দোকানিরা মাটি উচু কর এমন অবস্থা করে যে আস্তে আস্তে সেই মাটি রাস্তা ঢেকে ফেলে। এমন অবস্থার কারনে সিবু মার্কেটের সামনে রাস্তা ভেঙ্গে বড় বড় গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। এ বিষয়ে আরো তৎপর দেখানো উচিত সড়ক কতৃপক্ষকে। উল্লেখ্য ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড সংস্কারে ৫ বছরে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ৩০ কোটি টাকার বেশি। ক’দিন আগে এ সড়কে ১৮ কোটি ১৪ লাখ টাকা ব্যয়ে সংস্কার কাজ চলমান রয়েছে। ২০১৪ সালের ১৫ এপ্রিল ১২ কোটি ১২ লাখ টাকা ব্যয়ে ৮ কিলোমিটার দীর্ঘ ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের সংস্কার কাজ করা হয়। সড়কে যাতে পানি না জমে সেজন্য দীর্ঘ ৩ কিলোমিটার ড্রেনও নির্মাণ করে সড়ক ও জনপথ কর্তৃপক্ষ। তবে সেই ড্রেন সড়কের পানি নিষ্কাশনের কোনো কাজেই আসেনি। এ সংস্কার নিয়ে চলছে তালবাহানা। সড়ক রক্ষণাবেক্ষণের অবহেলার বিষয়ে ফুটে উঠে সওজের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী (ঢাকা সড়ক সার্কেল) মো. সবুজ উদ্দিন খানের সই করা এক প্রতিবেদনে। সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে, ২১ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ২০১৪ সালের ৬ এপ্রিল থেকে ৫ সেপ্টেম্বর আট কিলোমিটার দীর্ঘ এই আঞ্চলিক সড়কটির ডাবল বিটুমিন সারফেসিং পদ্ধতিতে আস্তরণ কাজ সম্পন্ন করে। ঠিকাদারের কাজের দায়বদ্ধতার মেয়াদ এক বছরের মধ্যেই সড়কটির ছয় কিলোমিটার অংশে গর্ত ও সরু ফাটলের সৃষ্টি হয়। এরপর সওজের নির্দেশে ওই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সড়কটির ১ হাজার ৪১০ বর্গমিটার অংশ আবার মেরামত করে দেয়। কিন্তু তাতেও তেমন কোনো উন্নতি হয়নি।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *