কিল্লারপুল হতে খানপুর সড়কের বেহাল দশা

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

নারায়ণগঞ্জ শহরের খানপুর থেকে সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল মোড় (চিটাগাং রোড) পর্যন্ত সড়কটি প্রায় ৮ কিলোমিটার। এই সড়কের শহরের খানপুর মেট্রো হল থেকে কিল্লারপুল মোড় পর্যন্ত হাসপাতালসহ বেশ কিছু সরকারী সেবামূলক দফতর রয়েছে। এছাড়া এই সড়কটি দিয়ে প্রতিদিন মহানগরীর সিদ্ধিরগঞ্জ ও বন্দরে যাতায়াত করে থাকেন হাজার হাজার মানুষ। তবে সড়কের বেহাল দশার কারণে প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা। সড়কের বিভিন্ন স্থানে ছোট বড় গর্তে খানা খন্দকের সৃষ্টি হয়েছে। প্রায়শই উল্টে যাচ্ছে যানবাহনও। তবে দীর্ঘদিন ধরেই সড়কটির এহেন বেহাল দশা বিরাজ করলেও সমস্যা সমাধানে উদ্যোগ নেই সংশ্লিষ্ট কারোই।  জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জ শহরের খানপুর থেকে সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল মোড় (চিটাগাং রোড) পর্যন্ত সড়কটি প্রায় ৮ কিলোমিটার। তবে দীর্ঘদিনেও এই সড়কটিতে লাগেনি প্রশস্ততার ছোয়া। সড়কটির খানপুর মেট্রো সিনেমা হল মোড় সংলগ্ন স্থানে রয়েছে জেলা ডিবি পুলিশের কার্যালয়। কিছুটা দূরেই রয়েছে নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতাল। যেখানে প্রতিদিন দূর দূরান্ত থেকে কয়েক হাজার রোগীর আগমন ঘটে। হাসপাতালের ঠিক পরেই রয়েছে জেলা প্রশাসকের বাসভবন। এরপর রয়েছে বিআইডব্লিউটিএ ও বিআইডব্লিউটিসি’র স্টাফদের কোয়ার্টার। বরফকল মাঠ সংলগ্ন স্থানে রয়েছে চৌরঙ্গী ফ্যান্টাসী পার্ক। বরফকল মাঠ থেকে কিল্লারপুল পর্যন্ত সড়কের দুই পাশেই রয়েছে অসংখ্য শিল্পপ্রতিষ্ঠান। কিল্লারপুল মোড়ে রয়েছে ডিপিডিসি ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের কার্যালয়। এছাড়া বরফকল খেয়াঘাট ও নবীগঞ্জ খেয়াঘাট দিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার যাত্রী পারাপার হয়ে থাকে। এছাড়া রয়েছে আদমজী ইপিজেড যেখানে অর্ধশতাধিক রপ্তানীমুখী শিল্পপ্রতিষ্ঠান রয়েছে। এই সড়কটিতে চলাচল করে শীতলক্ষ্যা পরিবহন, দুরন্ত পরিবহন, লেগুনা, টেম্পু ও বেবীট্যাক্সি। এছাড়া ব্যাটারীচালিত অটোরিক্সাও চলাচল করে থাকে। এদিকে সড়কটির খানপুর মেট্রো হল মোড় থেকে কিল্লারপুল পর্যন্ত সড়কটির বিভিন্ন স্থানে ভাঙাচোরা ও খানাখন্দকের কারণে বেহাল দশা। প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে যাত্রীরা। প্রায়শই উল্টে যাচ্ছে যানবাহন। এদিকে হাসপাতালসহ সরকারী সেবামূলক বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান থাকার পরেও জনগুরুত্বপূর্ণ সড়কটির সংস্কারে কোন ধরনের উদ্যোগ নিতে দেখা যায়নি সড়ক ও জনপথ কিংবা সিটি করপোরেশনকে। ফলে পবিত্র রমজান মাসেও দুর্ভোগ নিয়েই চলাচল করতে হয়েছে যাত্রীদের। আর ঈদের পূর্বে সংস্কার না হওয়ায় পবিত্র ঈদুল ফিতরেও নারায়ণগঞ্জবাসীকে দুর্ভোগকে সঙ্গে নিয়েই ওই সড়কে চলাচল করতে হবে বলেই মনে করছেন নারায়ণগঞ্জবাসী। এদিকে বেশ কিছুদিন পূর্বে এই সড়কটি প্রশস্থতার বিষয়ে উদ্যোগ নেয়ার কথা জানিয়েছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য শামীম ওসমান। তবে দীর্ঘদিনেও সেই প্রতিশ্রুতির কোন বাস্তবায়ন ঘটেনি। ফলে এই সড়কটি দ্রুত প্রশস্থতার উদ্যোগ না নেয়া হলে যাত্রীদের দুর্ভোগ আরো বাড়বে বলেই মনে করছেন সাধারণ মানুষ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *