বিএনপিতে আতাঁতকারীরাই সুবিধাজনক অবস্থানে

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

নারায়ণগঞ্জ বিএনপির নেতারা রাজপথে আন্দোলন করতে সাহস পাচ্ছে না। পুলিশের কঠোরতা ও গ্রেফতার আতংকে রাজপথে না থাকায় নারায়ণগঞ্জ বিএনপির এখন নাম মাত্র অস্তিত্ব রয়েছে। অপরদিকে,  বিএনপির একাধিক নেতা ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের সঙ্গে আতাঁতের অভিযোগ রয়েছে। বিএনপির কর্মসূচী পালনে আতাঁতকারীরা রাজপথে না থাকলেও ক্ষমতাসীনদের ইফতার মাহফিলে উপস্থিত থাকাসহ তাদের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখছেন। আবার কেউ কেউ গ্রেফতারের দোহাই দিয়ে রাজপথে না থাকলেও ক্ষমতাসীন দলের নেতার মেয়ের বিয়েতে উপস্থিত থাকছেন। জানাগেছে, নারায়ণগঞ্জে বিএনপির রাজনীতিতে যে সকল নেতারা আতাঁত করে রাজনীতি করছেন তারাই বেশ আরাম আয়েশে রয়েছেন। এরা সভা-সমাবেশে সরকার বিরোধী বক্তব্য দিলেও গোপনে গোপনে ক্ষমতাসীন দলের এমপির চাটুকারীতা করছেন। এ কারণে ঘুড়ে দাঁড়াতে পারছে না নারায়ণগঞ্জ বিএনপি। কেননা নারায়ণগঞ্জ বিএনপি ও সহযোগী সংগঠন গুলোতে গুরুত্বপূর্ণ পদ আকড়ে রেখেছেন আতাঁতকারীরা। এদের মধ্যে কারো কারো পরিবারের অন্য সদস্যরা ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী নেতা। তাই যে দলই ক্ষমতায় আসুকনা কেন তাদের কোন সমস্যা হয় না। তাই নারায়ণগঞ্জে বামঘোরনার নেতাদের চেয়ে নাজুক অবস্থা বিএনপির। পদ আকড়ে রেখে এসি রুমে বসে শুধু নির্দেশনা দিয়ে আসছে শীর্ষ নেতারা। সম্প্রতি রাজপথে আনন্দ র‌্যালী করতে গিয়ে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছে নারায়ণগঞ্জ মহানগর স্বেচ্ছা সেবকলীগ সভাপতি ও সাবেক এমপি আবুল কালামের পুত্র আবুল কালাম আশা। আর আশা গ্রেফতার পর জেলা ও মহানগর ছাত্রদলের কমিটি ঘোষনা হলেও কোন প্রকার সভা-সমাবেশ কিংবা মিছিল করেনি। এদিকে, দলীয় চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া কারাগারে যাওয়ার পর কেন্দ্র ঘোষিত কোন কর্মসূচী সফল করতে পারেনি নারায়ণগঞ্জ বিএনপি। তবে আতাঁতকারী অনেককে দেখা গেছে কর্মসূচী পালনের নামে ফটোসেশনে অংশ নিতে। গত ৯ জুন ফতুল্লায় ক্ষমতাসীন দলের এমপির ইফতার পার্টিতে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির তিন শীর্ষ নেতা। এছাড়া বিএনপির একাধিক নেতা রাইফেল ক্লাবে যাতায়েত রয়েছে। আবার কেউ ক্ষমতাসীন দলের নেতাকে নিজের নেতা দাবীও করছে। মূলত নারায়ণগঞ্জে বিএনপির সঠিক রাজনীতির  চর্চা হচ্ছে না। বিএনপির নেতারা নিজেদের সুবিধার্থে রাজনীতি করে আসছে। দলের সাধারণ নেতাকর্মীদের অভিযোগ, দীর্ঘবছর ধরে ক্ষমতার বাহিরে থাকা বিএনপির সুসংগঠিত করতে কোন প্রকার উদ্যোগ নিচ্ছে না স্থানীয় শীর্ষ নেতারা। বরং ক্ষমতাসীদের সাথে আতাঁত করে রাজনীতির নামে নিজেদের ফায়দা লুটছেন। তারা আরো বলেন, নারায়ণগঞ্জ বিএনপির মধ্যে কিছু সুবিধাবাদী নেতা রয়েছেন, যারা দলে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করার পায়তারা করছেন। একটি চক্র নিজেদের বিএনপির নেতা-কর্মী দাবী করলেও তারা সব সময় আওয়ামীলীগের সাথে আতাঁত করে বিএনপির সহযোগী সংগঠনের কমিটির নেতৃত্বে আসার অপচেষ্টায় লিপ্ত হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *