সোমবার, ২৩ জুলাই ২০১৮ ইং, ৮ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ৯ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী, বিকাল ৩:৩০

শিরোনাম

‘ব্যক্তিত্ব বিকাশের প্রয়োজনীয়তা’ শীর্ষক আলোচনা        দুই ব্যবসায়ীকে যেভাবে সাত টুকরো করেছে পিন্টু        জগন্নাথ ঠাকুর বাড়ি ফিরলেন        আজাদ বিশ্বাসের উপর  পুলিশের অনেক বিশ্বাস!        যে নেতারা লাঙ্গলে ভোট দিয়েছে সামনে তারা কিসে ভোট দিবেন?        অন্যায় অবিচারের বিরুদ্ধে  রুখে দাঁড়াতে হবে : আইভী        আড়াইহাজার পৌর নির্বাচনে জেলা বিএনপির নেতাদের ভুমিকা নিয়ে প্রশ্ন        স্বপন হত্যায় আদালতে ঘাতক পিন্টুর জবানবন্দী       

শিক্ষার্থীদের বঙ্গবন্ধুর অনুসারি হতে হবে

Badal-nj | ০৪ জুলাই, ২০১৮ | ১২:৪৬ অপরাহ্ণ

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুল এন্ড কলেজের স্যারেরা এখনো শিক্ষার্থীদের চুল জোর করে কেটে দেন কিনা শিক্ষার্থীদের কাছে জানতে চাইলেন সদর-বন্দর আসনের সাংসদ এ কে এম সেলিম ওসমান। গতকাল মঙ্গলবার নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুল এন্ড কলেজের বার্ষিক মিলাদ মাহফিল ও নতুন ভবনের ভিত্তি প্রস্তর উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি শিক্ষার্থীদের কাছে এ কথা জিজ্ঞেস করেন। গত ২৭ মার্চ চুল বড় রাখার অভিযোগে নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্র কাশফি ও শান্ত নামের দুই শিক্ষার্থীকে শারীরিকভাবে শাস্তি দেয় অত্র স্কুলের শিক্ষক বিপুল সরকার। শুধু তাই নয়, ক্লাস রুম থেকে টেনে হিচড়ে বাইরে এনে অন্যান্য শিক্ষার্থীদের উপস্থিতিতে তাদের চুল কেটে দেয়া হয়। চুল কাটা ও শারীরিক নির্যাতনের ঘটনা বিভিন্ন গণমাধ্যমেও প্রকাশিত হয়। এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে সেলিম ওসমান শিক্ষার্থীদের এমন প্রশ্ন করেন। এসময় তিনি সেলিম ওসমান নিজের মুঠোফোন নাম্বার শিক্ষার্থীদের দিয়ে বলেন, ‘কোন রকম মারধর কিংবা খারাপ ব্যবহার করলে কেবল তাঁর নাম্বারে একটি এসএমএস পাঠিয়ে দিতে। বাকি ব্যবস্থা তিনি গ্রহন করবেন। তিনি বলেন, বাচ্চাদের হাসতে হবে, খেলতে হবে, তারপর পড়াশোনা করতে হবে। শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্য তিনি আরো বলেন, তোমাদেরকে নিয়ে স্কুল কর্তৃপক্ষ পিকনিকের ব্যবস্থা করবে। সামনে পরীক্ষা। ভাল করে পড়াশোনা করে পরীক্ষা দাও। ভালো রেজাল্ট করো। তোমাদের সাথে চৌরঙ্গী পার্কে দেখা হবে। সেদিন তোমাদের সাথে খেলা হবে, মজা হবে, অনেক আনন্দ হবে। যদি স্কুল কর্তৃপক্ষ তোমাদের নিয়ে যেতে পারে তাহলে তারা যাবে, আর না হয় তারা যেতে পারবে না। তোমাদেরকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের অনুসারী হয়ে চলতে হবে। শেখ মুজিবুর রহমানকে চিনতে হবে।’ উক্ত অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ কমল কান্তি সাহা, নারায়ণগঞ্জ কলেজের অধ্যক্ষ রুমন রেজা, নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুল এন্ড কলেজের পরিচালনা পরিষদের সভাপতি ও মহানগর আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ সভাপতি চন্দন শীল, পরিচালনা পরিষদের সদস্য ও জেলা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আব্দুস সালাম, বিদ্যানিকেতন হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক উত্তম কুমার সাহাসহ স্কুলের অন্যান্য শিক্ষক-শিক্ষার্থীবৃন্দ। এসময় তিনি শিক্ষার্থীদের আরো জিজ্ঞেস করেন, স্কুলের শিক্ষকরা তাদের মারেন কিনা। শিক্ষার্থীরা উত্তরে না বললে তখন সেলিম ওসমান বলেন, ‘নাম্বার কমিয়ে দেবে বলে বলছো না, নাকি?’ তিনি ইশারায় চুল কাটার ইঙ্গিত দিয়ে জিজ্ঞেস করেন, ‘এটা করে না তো?’ উত্তরে শিক্ষার্থীরা না বললে তিনি তাঁর নিজের মুঠোফোনের নাম্বার দিয়ে শিক্ষার্থীদের বলেন, ‘কেউ যদি তোমাদের মারে, চুল কেটে দেয় কিংবা কোন কিছু বলে তাহলে চুপ করে আমাকে খালি একটা এসএমএস করে দিবা। আমি তারপর দেখবো। তখন আইসা আমি আর মাফ করবো না। সবার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবো।’ তিনি আরো বলেন, ‘আমার বাচ্চাদের আগে হাসতে হবে। আগে খেলতে হবে, স্বাস্থ্য ভালো রাখতে হবে তারপর পড়াশোনা করতে হবে।’ এ সময় তিনি নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুল এন্ড কলেজের পরিচালনা পরিষদের সভাপতি ও মহানগর আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতিকে নির্দেশ দেন অর্ধ-বার্ষিক পরীক্ষা শেষে শিক্ষার্থীদের যেন পিকনিকে নিয়ে যাওয়া হয়। প্রয়োজন হলে মহিলা কলেজ, নারায়ণগঞ্জ কলেজ কিংবা চেম্বারের বাস ব্যবহার করতে পারবে। স্কুলের সকল শিক্ষার্থীদের নিয়ে কাছাকাছি খানপুরে অবস্থিত চৌরঙ্গি পার্কে নিয়ে যাবারও নির্দেশ দেন তিনি।

Copyright © Dundeebarta.com. ওয়েব ডিজাইন: মো: নাসির উদ্দিন, বন্দর, নারায়ণগঞ্জ। ০১৭১২৫৭৪৯৯০