সোমবার, ২৩ জুলাই ২০১৮ ইং, ৮ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ৯ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী, বিকাল ৩:৫৫

শিরোনাম

‘ব্যক্তিত্ব বিকাশের প্রয়োজনীয়তা’ শীর্ষক আলোচনা        দুই ব্যবসায়ীকে যেভাবে সাত টুকরো করেছে পিন্টু        জগন্নাথ ঠাকুর বাড়ি ফিরলেন        আজাদ বিশ্বাসের উপর  পুলিশের অনেক বিশ্বাস!        যে নেতারা লাঙ্গলে ভোট দিয়েছে সামনে তারা কিসে ভোট দিবেন?        অন্যায় অবিচারের বিরুদ্ধে  রুখে দাঁড়াতে হবে : আইভী        আড়াইহাজার পৌর নির্বাচনে জেলা বিএনপির নেতাদের ভুমিকা নিয়ে প্রশ্ন        স্বপন হত্যায় আদালতে ঘাতক পিন্টুর জবানবন্দী       

দিনে শহরে ট্রাক প্রবেশ করতে দেয়নি পুলিশ

Habibor badal | ০২ আগস্ট, ২০১৭ | ৪:৪২ পূর্বাহ্ণ

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর অনুরোধ ব্যবসায়ী নেতা ও এমপি সেলিম ওসমানের হস্তক্ষেপে প্রশাসনের সহযোগিতায় গতকাল মঙ্গলবার থেকে নিতাইগঞ্জে দিনের বেলায় বন্ধ রয়েছে লোড আনলোড। প্রশাসনের সিদ্ধান্তের কারণে শহরে পণ্যবাহী ট্রাক দিনের বেলাতে চলাচল নিষিদ্ধ ছিল। শহরের চাষাঢ়া, খানপুর এলাকাতে অনেক ট্রাককে আটকে ও ফেরত পাঠিয়ে দেয় পুলিশ ও ট্রাফিক পুলিশের লোকজন।

এদিকে লোড আনলোডের সময়সীমা নিয়ে ধু¤্রজালের কারণে গতকাল মঙ্গলবার প্রথমদিনে ভোগান্তি পড়তে হয়েছে ব্যবসায়ী, পাইকার ও ট্রাক চালকদের। প্রশাসনের সঙ্গে ব্যবসায়ীদের বৈঠকে সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দিনের বেলায় বঙ্গবন্ধু সড়কে কোন ট্রাক প্রবেশ করতে পারবেনা এমন সিদ্ধান্ত হলেও সেটি সঠিকভাবে প্রচার করা হয়নি। বরং সোমবার স্থানীয়ভাবে মাইকে প্রচার হয়েছে ব্যবসায়ীদের সভার পূর্বতন সিদ্ধান্ত। আর এ ধু¤্রজালের কারণে মঙ্গলবার প্রথমদিনে অনেক ব্যবসায়ীর পাশাপাশি দেশের দূরবর্তী স্থান থেকে আসা পাইকার ও ট্রাক চালকদেরও ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে।

জানা গেছে, গত ৩১ জুলাই নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলনকক্ষে নিতাইগঞ্জের ট্রাকস্ট্যান্ড নিয়ে ব্যবসায়ী ও শ্রমিক নেতাদের সঙ্গে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। যাতে সিদ্ধান্ত হয় ১ আগষ্ট থেকে নারায়ণগঞ্জের নিতাইগঞ্জে পাইকারী মোকামে লোক আনলোড রাতের বেলায় চলবে। দিনের বেলায় কোন ট্রাক থাকতে পারবেনা এমনকি তাদেরকে শহরের বঙ্গবন্ধু ও সিরাজদ্দৌলা সড়ক দিয়ে প্রবেশ করতে দেয়া হবেনা। রাত ৯টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত নিতাইগঞ্জের বোটখালের উপরে লোড আনলোড করবে ব্যবসায়ীরা। একটি ট্রাক লোড আনলোডে সর্বোচ্চ সময় পাবে সর্বোচ্চ ৩ ঘন্টা। যদি কেউ নির্দেশনা অমান্য করে দিনের বেলায় ট্রাক নিয়ে অবস্থান করে তাহলে তাকে জরিমানা ছাড়াও ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে জেল দেয়া হবে। আগামী ১ মাস পুলিশের পাশাপাশি ৪০ জন আনসার সদস্য কাজ করবে। এর আগে গত ২৬ জুলাই এমপি সেলিম ওসমানের উদ্যোগে বিকেএমইএ, নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সসহ ব্যবসায়ী নেতাদের নিয়ে অনুষ্ঠিত বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছিল ২৪ ঘন্টাই বোটখালে লোড আনলোড করা যাবে। বঙ্গবন্ধু সড়কসহ মন্ডলপাড়া থেকে খালঘাট মোড় পর্যন্ত কোন লোড আনলোড করা যাবেনা। তবে ৩১ জুলাই জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে ওইসকল সিদ্ধান্তের অনেকগুলোই পরিবর্তন করা হয়। বিশেষ করে শহরের বঙ্গবন্ধু সড়ক ও সিরাজদ্দৌলা সড়কে দিনের ট্রাক প্রবেশ করতে না দেয়ার বিষয়টি জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে গণবিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সকাল ৬টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত কোন ট্রাক শহরে প্রবেশ ও লোড আনলোড করতে পারবে না। যারা এ নিষেধ অমান্য করবেন তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়াও শহরের মাইকিং করা হয়েছে।’

এদিকে গত সোমবার নতুন সিদ্ধান্ত হলেও গেল কয়েকদিন ধরেই ব্যবসায়ী নেতারা মাইকে ও স্থানীয়ভাবে গত ২৬ জুলাইয়ের সিদ্ধান্তগুলো প্রচার করতে থাকে। এর এ কারণে গতকাল অনেক ব্যবসায়ীসহ পাইকার ও পণ্যবাহী ট্রাক চালকদের বিপাকে পড়তে হয়। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে সরেজমিনে শহরের খানপুর এলাকায় দেখা গেছে অসংখ্য ট্রাক শহরের সিরাজদ্দৌলা ও বঙ্গবন্ধু সড়ক দিয়ে প্রবেশ করতে ব্যর্থ হয়ে প্রধান সড়কের একপাশে ট্রাক দাড় করিয়ে রেখেছে।

ঘোষনা অনুযায়ী গতকাল মঙ্গলবার সকাল থেকে শহরের ট্রাক চলাচলে কঠোর হয়ে উঠে পুলিশ প্রশাসন। শহরে ট্রাক বা কাভার্ডভ্যান প্রবেশ করলেই আটকে দিচ্ছেন তারা। কোন কোন ট্রাকের কাগজপত্র আটক রেখে ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে। তাছাড়া দু’একজন চালক ইতোমধ্যে জরিমানা দিয়ে কাগজ ছড়িয়ে নিয়েছেন। আর এসব কিছুর জন্য ট্রাক মালিক সমিতির নেতাদের দায়ী করছেন পুলিশ ও চালকেরা।’

যা বললেন শ্রমিক নেতা

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে নিতাইগঞ্জ মোড়ের কার্যালয়ে জেলা ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, ট্যাকলরী মালিক-শ্রমিক ঐক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মো. মাসুদুর রহমান মানিক বলেন, ‘খুব ভালো হয়েছে। শুরু রাতে লোড আনলোড হলে আরো ভালো হয়। তবে তিন ঘণ্টার জন্য যে সুযোগ দিয়েছে বোটখালে লোড আনলোডের জন্য সেটা দিয়ে কোন উপকার পাচ্ছে না চালকেরা। কারণ এখনে লোড আনলোড করে গাড়ি বের হয়ে যেতে গেলেই পুলিশ গাড়ি আটকে কাগজপত্র রেখে দিচ্ছে। ইতোমধ্যে টানবাজার এলাকায় পণ্য অনলোড করে বের হয়ে যাওয়ার সময় দুইটি গাড়ির কাগজ আটকে রাখে ট্রাফিক পুলিশ। এছাড়াও নিতাইগঞ্জ থেকে পণ্য আনলোড করে বের হয়ে যাওয়ার সময় আরো একজনের কাগজ আটকে রাখে। তাদের মধ্যে একজন ২ হাজার টাকা জরিমানা দিয়ে কাগজ ছাড়িয়ে এনেছেন। প্রশাসনের বৈঠকে ট্রাক চলাচলের উপর কোন নিষেধাজ্ঞা দেয়নি তাহলে কেন গাড়ি আটকে কাগজ রেখে দেওয়া হচ্ছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘এখনও সমস্যা বুঝা যাবে না মাত্র শুরু হয়েছে। ক’দিন পর সমস্যা চিহ্নিত করা যাবে। বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় রাতে পণ্য লোড আনলোড করা হয়। এখানেও করা হবে। সেটা সমস্যা না।

গতকাল মঙ্গলবার বিকালে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে গণবিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সকাল ৬টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত কোন ট্রাক শহরে প্রবেশ ও লোড আনলোড করতে পারবে না। যারা এ নিষেধ অমান্য করবেন তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এছাড়াও শহরের মাইকিং করা হয়েছে।’

যা বললেন ট্রাক চালক

এদিকে ট্রাক মালিক সমিতির মিথ্যা ও বিভ্রান্তমূলক প্রচারণার বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ট্রাক চালক ও হেলপাররা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন ট্রাক চালক বলেন, ‘এ মালিক সমিতির নেতারা তাদের এ বিষয়ে আগে থেকে জানায়নি। যার ফলে সকাল থেকে ট্রাক নিয়ে শহরের প্রবেশ করেছেন। এছাড়াও ট্রাক নিয়ে বের হতে গিয়ে জরিমনা দিতে হচ্ছে। এসব কিছুর জন্য মালিক সমিতির নেতারা দায়ি। প্রশাসন এসব নেতাদের কঠোর ব্যবস্থা নিয়ে ট্রাক দিনের বেলায় চলবে না। কারণ তারাই বাধ্য করে ট্রাক শহরের প্রবেশের জন্য।

ট্রাক চালক ইয়াসিন জানান, তিনি নাটোর থেকে চাল নিয়ে এসেছেন। কিন্তু দিনের বেলায় শহরে যে ট্রাক নিয়ে প্রবেশ করা যাবেনা এ সিদ্ধান্তের বিষয়টি তাদেরকে আগে থেকে জানানো হয়নি। তিনি যে প্রতিষ্ঠানের জন্য চাল নিয়ে এসেছেন তারাও প্রশাসনের সিদ্ধান্তের বিষয়টি জানেননা। একই কথা জানান নওগা থেকে আসা ট্রাক চালক আব্দুল জব্বার। এদিকে নিতাইগঞ্জে লোড আনলোড বন্ধ হওয়ার কারণে সিমেন্ট কিংবা অন্যান্য মালামাল নিয়ে আসা ট্রাক চালকরাও পড়েছেন বিপাকে। কারণ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কোন ট্রাকই প্রবেশ করতে দেয়নি। তবে টানবাজার এলাকায় পণ্য অনলোড করে বের হয়ে যাওয়ার সময় দুইটি গাড়ির কাগজ আটকে রাখে ট্রাফিক পুলিশ। এছাড়াও নিতাইগঞ্জ থেকে পণ্য আনলোড করে বের হয়ে যাওয়ার সময় আরো একজনের কাগজ আটকে রাখে। তাদের মধ্যে একজন ২ হাজার টাকা জরিমানা দিয়েছে। বিভ্রান্তমূলক প্রচারনার বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ট্রাক চালক ও হেলপাররা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছিুক কয়েকজন ট্রাক চালক বলেন, ‘সমিতির নেতারা তাদের এ বিষয়ে আগে থেকে জানাননি। যার ফলে সকাল থেকে ট্রাক নিয়ে শহরের প্রবেশ করেছেন। এছাড়াও ট্রাক নিয়ে বের হতে গিয়ে জরিমনা দিতে হচ্ছে। এসব কিছুর জন্য মালিক সমিতির নেতারা দায়ি। প্রশাসন এসব নেতাদের কঠোর ব্যবস্থা নিয়ে ট্রাক দিনের বেলায় চলবে না। কারণ তারাই বাধ্য করে ট্রাক শহরের প্রবেশের জন্য।

ট্রাফিক পুলিশে বক্তব্য

নারায়ণগঞ্জ জেলা ট্রাফিক পরিদর্শক একেএম শরফুদ্দিন বলেন, ‘আমরা শুধু নির্দেশ পালন করছি। যারাই আইন অমান্য করে শহরের ট্রাক প্রবেশ করছে তাদের জরিমানা করা হচ্ছে। এর আগে জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, এমপি, সিটি করপোরেশন, ব্যবসায়ী ও ট্রাক চালক, মালিক ও নেতাদের নিয়ে যৌথ বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়। যার ফলে এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে ট্রাক চালক ও মালিকদের আগেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল।

Copyright © Dundeebarta.com. ওয়েব ডিজাইন: মো: নাসির উদ্দিন, বন্দর, নারায়ণগঞ্জ। ০১৭১২৫৭৪৯৯০