ফতুল্লায় স্বামীর ছুরিকাঘাতে স্ত্রী নিহত-স্বামী আটক

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
ফতুল্লায় পারিবারিক কলহে তালাক দেয়া স্ত্রীকে ছুরিকাঘাত করে পালানোর সময় নিজাম উদ্দিন নামে এক ব্যক্তিকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে এলাকাবাসী। গতকাল শুক্রবার দুপুরে ফতুল্লার পাগলা ভাবী বাজার এলাকায় এঘটনার পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আহত ফেরদৌসী বেগম সাবিহা (৪০) চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুপুর ১টায় মারা যায়। আটক নিজাম উদ্দিন চৌধুরী (৫০) রাজধানীর ৯৩/৩ নবাবপুর এলাকার মৃত.গোলাম কিবরিয়া চৌধুরীর ছেলে। নিজাম উদ্দিন চৌধুরীর দাবী, সে বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা করতেন। বর্তমানে বেকার। ১৯৯১ সালে ফেরদৌসী বেগম সাবিহাকে বিয়ে করেছেন। বিয়ের পর তাদের তিন কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। এদের মধ্যে ২ মেয়েকে বিয়ে দেয় এবং এক মেয়ে লেখা পড়া করে। এরমধ্যে তার শ্যালক ইমরানুল হক মিঠু ব্যবসার জন্য তার কাছ থেকে ১৫ লাখ টাকা ধার নেয়। সে টাকা না দিয়ে উল্টো তার স্ত্রীর কাছ থেকে ১৫ ভরি স্বর্ণালংকার নিয়ে বিক্রি করে দেয় শ্যালক মিঠু। এনিয়ে তাদের স্বামী স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। এতে ১৪ সেপ্টেম্বর স্ত্রীকে তালাক দিয়ে পাগলা ভাবী বাজার এলাকায় একটি ম্যাসে থাকেন। আর এক মেয়েকে নিয়ে তার স্ত্রী ম্যাসের পাশে রতন মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থাকেন। তিনি আরো জানান, তাদের স্বামী স্ত্রীর পাগলা ভাবী বাজার এলাকায় ৬ শতাংশ জমিতে একটি বাড়ি রয়েছে পরিত্যাক্ত অবস্থায়। সে বাড়ির অর্ধেকের মালিক তার স্ত্রী আর অর্ধেক তার। দুপুর সাড়ে ১১টায় স্থানীয় লোকজন জানান তার বাড়ি দখলের জন্য তার স্ত্রী ও শ্যালক বাড়ির গেইটের তালা ভাঙ্গছে। এখবর পেয়ে দৌড়ে ওই বাড়িতে গিয়ে তার স্ত্রী ও শ্যালককে পেয়ে তর্কে ঝড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে তার স্ত্রীকে এলোপাতারি ছুরিকাঘাত করে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, নিজাম উদ্দিন তার তালাক দেয়া স্ত্রীকে ছুরিকাঘাত করে পালানোর সময় এলাকাবাসী তাকে আটক করে গাছের সাথে বেধে রাখে। পরে পুলিশ আসলে তাকে সোর্পদ করে। ঘটনাস্থলে যাওয়া ফতুল্লা মডেল থানার এসআই আমিনুল ইসলাম জানান, নিজাম উদ্দিনকে আটক করা হয়েছে। তার স্ত্রী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারাগেছেন। সেখান থেকে লাশ উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

২৯ thoughts on “ফতুল্লায় স্বামীর ছুরিকাঘাতে স্ত্রী নিহত-স্বামী আটক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *