আজ : মঙ্গলবার: ৮ ফাল্গুন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ ইং | ২ জমাদিউস-সানি ১৪৩৯ হিজরী | ভোর ৫:৪৯
fevro
শিরোনাম

হকারদের পক্ষেই আছেন শামীম  আইভীর পক্ষে সেলিম ওসমান

 

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

নগরীর ফুটপাতে হকার বসাকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট সংঘাতে নিন্দুকের কাছে সমালোচিত হলেও ফের সেই গরীব হকারদের পক্ষেই নিজের অবস্থানের কথা তুলে ধরলেন ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী নেতা নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ¦ এ কে এম শামীম ওসমান। কিন্তু হকার ইস্যুতে তারই ভাই শামীম ওসমানের পরিবর্তে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন মেয়র ডা: সেলিনা হায়াত আইভীর পক্ষে আছেন জাতীয় পার্টির নেতা নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ¦ এ কে এম সেলিম ওসমান। গত মাসে হকার ইস্যুতে সংঘটিত অনাকাঙ্খিত ঘটনায় মেয়র আইভীকে চরম ভাবে অপমানিত করা হয়েছে দাবী করেন সেলিম ওসমান। সেজন্য লজ্জাবোধ ও দু:খ প্রকাশ করেন তিনি। আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের অর্পিত দায়িত্ব পালনের লক্ষ্যেই সেলিম ওসমান এখন আইভীর মুরুব্বি হিসেবে নিজের গ্রহণযোগ্যতা তৈরী করতেই হকার ইস্যুতে মেয়রের পক্ষেই অবস্থান নিয়েছেন। কারন, হকার ইস্যুতে আওয়ামীলীগের দুই প্রভাবশালী জনপ্রতিনিধি শামীম ওসমান ও আইভী ফের মুখোমুখি অবস্থানে চলে আসায় বিব্রতকর অবস্থায় পড়ে যায় কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ। তাই আগামী একাদশ নির্বাচনের পূর্বে এই দুই নেতার দ্বন্দ্বে যেন আর দলের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন না হয়, সেজন্য স্থানীয় আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দের পরিবর্তে শামীম ও আইভীর দ্বন্দ্ব নিরসনে জাতীয় পার্টির এমপি সেলিম ওসমানকেই মুরুব্বি হিসেবে দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানিয়ে যান কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। গত ২৮ জানুয়ারী দুপুরে নারায়ণগঞ্জের গোগনগর এলাকায় তৃতীয় শীতলক্ষ্যা সেতুর পাইলিং নির্মান কাজের উদ্বোধন শেষে ঢাকায় রওনা দেওয়ার আগ মূর্হুতে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এমপি সেলিম ওসমানকে বলেন, ‘আপনি শামীম ও আইভীর মধ্যকার চলমান দ্বন্দ্ব নিরসন করবেন। আমি জানি, আপনি আইভী ও শামীম ওসমানের মুরুব্বি। ওরা দু’জন আপনার কথা মানবে। তাই আমার বিশ্বাস আপনিই পারবেন।’ নারায়ণগঞ্জের উন্নয়নের স্বার্থে শামীম ওসমান ও আইভীর দ্বন্দ্ব নিরসন করা খুবই জরুরী মন্তব্য করে ওবায়দুল কাদের সেলিম ওসমানকে আরো বলেন, ‘এটা কোনো নেতা হিসাবে নয়, ওদের দু’জনের বড় ভাই হিসাবে আমি আপনাকে দায়িত্ব দিলাম। তাদের দু’জনকে এক সাথে বসিয়ে আলোচনার মাধ্যমে ওদের সম্পর্কটা ভালো করে তুলেন।’ এরপর গত ১৩ ফেব্রুয়ারী বিকেল সাড়ে ৪টায় নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে হকার সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে জেলা ও পুলিশ প্রশাসন এবং নগরীর বঙ্গবন্ধু সড়কের ফুটপাতে বসতে না পারা আন্দোলনরত হকারদের সাথে আলোচনা সভায় এমপি সেলিম ওসমান মেয়র আইভীর উন্নয়ণ কাজের প্রশংসা করে বলেন, ‘আমিও একজন হকার ছিলাম। বর্তমানে আল্লাহ আমাকে অনেক উপর স্থানে উঠিয়েছেন। আমি হকারদেরর কষ্ট বুঝি। তাই হকার ইস্যুটি নিয়ে সুষ্ঠু আলোচনা চলছিলো। কিন্তু একটি ভুল বুঝাবুঝির মধ্য দিয়ে গত ১৬ জানুয়ারীর ঘটনায় মেয়রকে চরমভাবে অপমানিত করা হয়েছে বলে আমি মনে করি। একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবে এটা কোন ভাবেই মেনে নেওয়া সম্ভব নয়। ওই ঘটনার জন্য একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবে আমি লজ্জিত এবং মেয়রের কাছে দু:খ প্রকাশ করছি।’ আর মেয়র আইভীর সাথে সহমত পোষণ করে কোন অবস্থায়ই শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কের ফুটপাতে হকার বসতে পারবে না বলে সেলিম ওসমান পুলিশ প্রশাসনকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ করেন। তবে সভায় হকার নেতারা সাপ্তাহিক ছুটির দিন শুক্র ও শনিবার হলিডে মার্কেটের মত বঙ্গবন্ধু সড়কে হকারদের বসতে দেওয়ার দাবী রাখলে, সেক্ষেত্রেও সেলিম ওসমান এরজন্য মেয়র আইভীর কাছ থেকে অনুমতি নেয়ার পক্ষে মত দেন। তিনি বলেন, ‘শুক্র ও শনিবার বঙ্গবন্ধু সড়কে হকারদের বসার দাবীটি সিটি কর্পোরেশনের মেয়রের কাছে লিখিত ভাবে জানাতে হবে। সিটি মেয়র অনুমতি দিলেই কেবল ওই দুই দিন বঙ্গবন্ধু সড়কে হকার বসতে পারবে। এক্ষেত্রে অবশ্যই প্রকৃত হকার হতে হবে এবং তাদের কাছে পরিচয় পত্র থাকতে হবে। জেলা পুলিশ প্রশাসন সেই পরিচয় পত্র তৈরি করে দিবেন। অন্যথায় কোন অবস্থায় বঙ্গবন্ধু সড়কে হকার বসতে পারবে না। আর যারা হলিডে মার্কেটের মত বঙ্গবন্ধু সড়কে সপ্তাহে দুই দিন দোকান বসিয়ে ব্যবসা করবে তাদেরকে বন্দরে ময়মনসিংহ পট্টিতে হকারদের জন্য মার্কেট করা হলে সেখানে দোকান বরাদ্দ দেওয়া হবে না।’ কিন্তু সেলিম ওসমান হকার ইস্যুতে আইভীর পক্ষে অবস্থান করলেও আদৌ গরীব হকারদের পক্ষেই অনড় অবস্থানে রয়েছেন গরীবের নেতা শামীম ওসমান। গত শনিবার রাতে চাষাড়ায় সরকারী মহিলা কলেজের পাশে বালুর মাঠে অনুষ্ঠিত একটি ওয়াজ মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্যকালে শামীম ওসমান আক্ষেপের সুরে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গরীব মানুষের কথা ভেবে পুনর্বাসনের পূর্বে হকার উচ্ছেদের কথা নিষেধ করলেও আজকে নারায়ণগঞ্জের গরীব মেহনতী হকারদের উপর নির্যাতন করা হচ্ছে। তাদের রুটি রুজি কেড়ে নেয় হয়েছে। কিন্তু একবার কি কেউ ভেবে দেখেছে, এতোগুলো মানুষের সংসার কিভাবে চলে?’ গত ১৬ জানুয়ারী হকার ইস্যুতে সংঘাতের সময় মেয়র আইভী আহত হওয়ার ঘটনায় তথাকথিত সুশীলদের মায়াকান্নার প্রেক্ষিতে শামীম ওসমান আরো বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জের কোন এক নেতা রাস্তায় পড়ে গিয়ে ব্যাথা পেয়েছে, সেটা দেখে সবার ব্যাথা লাগে। অথচ, এতগুলো মানুষের উপরে গুলি ছোড়া হলো, এতে অনেক মানুষ আহত হলো, কিন্তু তাতে কারো ব্যাথা লাগে না।’ তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘আজ লাখ লাখ অসহায় রোহিঙ্গাদের এদেশে আশ্রয় দেয়া হয়েছে। অথচ আমাদের দেশের গরীব হকারদের নারায়ণগঞ্জে কাজ করার সুযোগ হচ্ছেনা। কারন, এসব গরীব মানুষদের এখন আর তাদের দরকার পড়বে না। তবে নির্বাচনের আগে ঠিকই তাদের দরকার পড়ে। নির্বাচনের আগে জনপ্রতিনিধিরা তাদের মাথায় হাত রেখে মা-বাবা ডাকে, আর নির্বাচনে জয়লাভের পর এসব মানুষদেরকে প্রজা আর নিজেকে রাজা ভাবে। কিন্তু ভুলে গেলে চলবেনা যে, আমাদের মত মানুষদের এমপি বা জনপ্রতিনিধি বানানো হয়েছে মানুষের সেবা করার জন্য আর গরীব দু:খী মানুষদের পাশে এগিয়ে আসার জন্য।’ এসময় শামীম ওসমান গরীবের পাশে থাকার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করে বলেন, ‘গরীর মানুষদের উপর অত্যাচার নির্যাতন আল্লাহ পছন্দ করেন না। ইসলামে আছে কোথাও অন্যায় হলে তার প্রতিবাদ করতে হয়। আর যদি কেউ অন্যায়ের প্রতিবাদ না করে তাহলে সে মুসলমান থাকে না। তাই যে কয়দিন বেঁচে আছি, ন্যায্য কথা বলে যাব। আমি দুর্বলের পক্ষে ছিলাম, আছি, ভবিষ্যতেও থাকবো। কে কোন দল করে তাতে আমার কিছু আসে যায় না। সর্বদা দুর্বলের পক্ষে থাকবো আর অন্যয়ের প্রতিবাদ করবো। আর যদি তা করতে না পারি, তাহলে ঘৃণা করবো।’ তখন সেই ওয়াজ মাহফিলে উপস্থিত বেশ কয়েকজন হকার নেতা মন্তব্য করেন, ‘শামীম ওসমানই গরীবের আসল নেতা। আর আমাদের সদরের এমপি এখন মেয়রের মুরুব্বি হয়ে গেছেন।’

 

 

সাব্বাস না’গঞ্জের অপু

 

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

অভিষেকে বাজিমাত করলেন নারায়ণগঞ্জের ছেলে নাজমুল ইসলাম অপু। দলের বিবর্ণ পারফরমেন্সের দিনে বোলিংয়ে উজ্জলতা ছড়ালেন সাকিবের বিকল্প হিসেবে ডাক পাওয়া নাজমুল ইসলাম অপু। বোলিং ব্যর্থতায় দলীয় সর্ব্বোচ্চ স্কোর করেও হারা ম্যাচে ঠিকই নিজের সক্ষমতার জানান দিলেন অপু। দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের ছুঁড়ে দেওয়া ১৯৪ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর নিয়ে পরাজয়ের স্বাদ পায় বাংলাদেশ। ৬ উইকেটে ম্যাচ জিতে নেয় শ্রীলঙ্কা। শ্রীলঙ্কার যে চার ব্যাটসম্যান বধ হয়েছে তার মধ্যে দুইটিই পেয়েছেন নাজমুল ইসলাম অপু। শ্রীলঙ্কার দুই ওপেনার কুশল মেন্ডিস ও দানুশকা গুনাথিলাকার ব্যাটে দাপুটে শুরু করে লঙ্কানরা। বিপদজনক হয়ে ওঠা ওপেনিং জুটি ভেঙে মূল্যবান ব্রেকথ্রু এনে দেন অভিষিক্ত স্পিনার নাজমুল ইসলাম অপু। মুশফিকের স্ট্যাম্পে এই উইকেট পান অপু। অপুর অপর শীকার উপুল থারাঙ্গা কট বিহাইন্ড হন। ক্যাচটি ধরেন আফিফ হোসেন। পুরো ম্যাচে নাজমুল ইসলাম অপু দু’টি ও আফিফ হোসেন নেন একটি উইকেট। ৩.৪ বলে ৫২ রানের বিনিময়ে অন্যটি নেন পেসার রুবেল হোসেন। তিন ওভারে ৩২ রানের খরুচে বোলিং করেন মোস্তাফিজুর রহমান। দুই ওভারে ৩৩ রান দেন মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন। প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) ভালো খেলার পুরষ্কার হিসেবে এবং ওয়ানডে সিরিজের ফাইনালে সাকিব আল হাসান আঙ্গুলে চোট পেয়ে ছিটকে যাওয়ায় টি টোয়েন্টি দলে ডাক পান ২৬ বছর বয়সী অপু। বিপিএলে রংপুর রাইডার্সের চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পথে দারুণ অবদান ছিল তার। ১০ ম্যাচে উইকেট পেয়েছিলেন ১২টি। গড় ১৬.৩৩।

 

ফরিদপুরকে হারিয়ে নারায়ণগঞ্জের জিসানদের বিজয়

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
বিজয়ের মাসে নারায়ণগঞ্জবাসীকে আরেকটি বিজয়োল্লাসের উপলক্ষ এনে দিলেন জিসান আলম-তৈফিক ও নাজমুলরা। ৬৩ রানের বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে জয় পেয়েছে নারায়ণগঞ্জের কিশোরেরা। ইয়াং টাইগার অনুর্ধ্ব-১৪ বিভাগীয় ক্রিকেট টুর্ণামেন্টে প্রথম খেলাতে প্রতিবেশি জেলা ফরিদপুরের কিশোরদের হারিয়ে তারা এই বিজয় উপহার দেন। শরীয়তপুর থেকে নারায়ণগঞ্জ জেলা ক্রিকেট দলের টিম ম্যানেজার সোহেল হোসেন পাপ্পু লাইভ নারায়ণগঞ্জ’কে জানান, সকাল ৯টায় টসে জিতে ফরিদপুরের বিপক্ষে শরীয়তপুর স্টেডিয়ামে ব্যাটিংয়ে নামে নারায়ণগঞ্জ জেলা ক্রিকেট দল। ৩৮ ওভারে ১০ উইকেট হারিয়ে ১৩৮ রান করেন দলটি। এর মাঝে সাবেক জাতীয় দলের ক্রিকেটার জাহাঙ্গীর আলমের ছেলে অধিনায়ক জিসান আলমের ব্যাটে আসে ২২। এছাড়া নাজমুলের ব্যাটে আসে ৩৫ রান। দুপুরে ফরিদপুর ব্যাটিংয়ে নামলে নারায়ণগঞ্জের কিশোরদের বোলিংয়ে একের পর এক মাঠ ছাড়তে হয় ব্যাটসম্যানদের। ৪১ ওভার খেলে মাত্র ৭৫ রানেই ১০ উইকেট হারান দলটি।
এসময় নারায়ণগঞ্জের পক্ষে জিসান আলম ৬. ৪ ওভার ২টি মেডেন দিয়ে ৯ রানে ৩ উইকেট তুলে নেন ও তৌফিক ৮ ওভারে ৪টি মেডেন দিয়ে ৩ উইকেট এবং নাজমুল ৮ ওভারে ২ মেডেন দিয়ে ৯ রানে ৩ উকেট তুলে নেয়। আগামী কাল গোপালগঞ্জের সাথে দ্বিতীয় ম্যাচ খেলবেন নারায়ণগঞ্জের এই কিশোর ক্রিকেটাররা।

ভিক্টোরিয়াকে হারিয়ে ফারিয়া চ্যাম্পিয়ন

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল (ভিক্টোরিয়া) হাসাপাতালের উদ্যোগে প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে নগরীর জিমখানা আলাউদ্দিন খান ষ্টেডিয়ামে এ ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ভিক্টোরিয়া হাসাপাতালের আবাসিক অফিসার ডা. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান। খেলায় ভিক্টোরিয়া একাদশ ও ফারিয়া একাদশ দল অংশগ্রহন করে। খেলায় ভিক্টোরিয়া একাদশকে ৩-০ গোলে হারিয়ে ফারিয়া একাদশ দল চ্যাম্পিয়ন হয়। তবে এ খেলায় ফারিয়া দল চ্যাম্পিয়ন হলেও খেলার শুরু থেকে শেষ অব্দি চলে টানটান উত্তেজনা। খেলা শুরু হওয়ার মাত্র ৫ মিনিটের মাথায় মাহবুবের অসাধারন কিকে গোল এনে দেয় ফারিয়া একাদশকে। গোল হওয়ার পর আরো উত্তেজনা ছড়িয়ে পরে খেলার মাঠে। এরপর বেশ কয়েকটি সুযোগ আসে ভিক্টোরিয়া একাদশের, কিন্তু কোন সুযোগই তারা কাজে লাগাতে পারেনি। এরই মধ্যে বেজে উঠে র্যাফারির বাঁশি। জানান দেয়, খেলার মধ্যাহ্ন বিরতির। মধ্যাহ্ন বিরতির পর আবারো ঝড়ের গতি ছুটে চলে ফারিয়া একাদশ। ফারিয়া একাদশের তানভীরের পাঁয়ের যাদুর ছোঁয়ায় বল আবারো গোলপোষ্টের জালে আটকা পরে। ফলে আবারো গোল পায় ফারিয়া একাদশ। দু’দলের স্কোর যখন ২-০ অবস্থানে, ঠিক তখটি শুরু হয় তুমুল লড়াই। যেন কারো থেকে কেউ কম নয়। একচুল পরিমান ছাড় পাচ্ছেনা কোন খেলোয়ার। এদিকে খেলার শেষ হওয়ার যখন মাত্র ৭ মিনিট বাকি, তখনো বল ভিক্টোরিয়া একাদশের কাছে। বার বার গোল দেয়ার চেষ্টা ভিক্টোরিয়া একাদশের। এরই মধ্যে বল ছিনিয়ে নিলো ফারিয়া একাদশ। বল নিয়ে আবারো দৌড়াচ্ছে মাহবুব। বল ছিনিয়ে নিতে ভিক্টোরিয়া একাদশের হাজার চেষ্টা, কিন্তু না! অতপর: সকল খেলোয়ারদের পাস কাটিয়ে মাহবুবের অসাধারন আরো একটি গোল। সঙ্গে সঙ্গে লাফিয়ে পরে মাঠের দর্শক। সকলের মুখে তখন একটাই নাম বর্জকন্ঠে উচ্চারিত হতে থাকে, আর তা হলো, মাহবুব মাহবুব মাহবুব…..। এরই মাঝে খেলার সমাপ্তির বাঁশি বেজে উঠে। ৩-০ গোলের ব্যবধানে ভিক্টোরিয়া একাদশকে হারিয়ে বিজয়ী হয় ফারিয়া একাদশ। খেলার শেষে বিজয়ী দল ফারিয়া একাদশ দলের অধিনায়ক তানভীর আহম্মেদের হাতে চ্যাম্পিয়ন ট্রফি তুলে দেন প্রধান অতিথি ভিক্টোরিয়া হাসাপাতালের আবাসিক অফিসার ডা. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, ডা. এস.কে ফরহাদ, ভিক্টোরিয়া হাসপাতালের সার্জেন্ট কলসাল্টেন গাজী মো: সালাউদ্দিন, অর্থপেডিক সার্জারী ডা. আলমগীর হোসেন জনি, ডা. শেখ ফরহাদ প্রমূখ।

নারায়ণগঞ্জ ক্লাব ১৪তম প্রেসিডেন্ট কাপ ¯œুকার প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
গত বুধবার সন্ধ্যায় ক্লাব সবুজ চত্বরে পবিত্র কোরআন তেলোয়াতের মাধ্যমে ৬১৪তম প্রেসিডেন্ট কাপ টেনিস টূর্ণামেন্টের পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। ক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি ডাঃ এ কে এম শফিউল আলম ফেরদৌসের সাবলিল উপস্থাপনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন ক্লাবের কার্যনির্বাহী সদস্য ও পুল, বিলিয়াডর্স ও ¯œুকার উপ-কমিটির আহ্বায়ক হোসেন মোঃ তানিম তৌহিদ। প্রধান অতিথি হিসেবে ক্লাব সভাপতি তানভির আহমেদ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরন করেন। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন ¯œুকার ফেডারেশনের যুগ্ম সম্পাদক কর্নেল (অবঃ) রুহুল আমিন। এসময় অনুষ্ঠানের সভামঞ্চে অন্যান্যের মধ্যে ক্লাবের সহ-সভাপতি বেগম ফরিদা আক্তার ও কার্যনির্বাহী সদস্য খাজা এবায়দুল হক (টিপু), মোঃ মোফাজ্জল হোসেন মিন্টু, মোঃ রশিদুজ্জামান (জামান), মোঃ মাহফুজুর রহমান খান (মাহফুজ), মঈনুল হাছান, বিপ্লব কুমার সাহা সহ উপ-কমিটির সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। পুরস্কার বিতরণ পর্ব শেষে এ সময়ের জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী শিরসা রাক্ষিত ও সোবহাম ব্যানার্জী’র মনমাতানো সুরের মূর্ছনায় পুরো অনুষ্ঠানটি প্রাণবন্ত হয়ে উঠে। অনুষ্ঠানটি বিপুল সংখ্যাক ক্লাব সদস্য ও সদস্যপরিবার উপভোগ করেন।

দি ইউনাইটেড এসোসিয়েশন ক্লাবের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগীতার উদ্বোধন

ফতুল্লা প্রতিনিধি
মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে‘ ফতুল্লার পঞ্চবটিস্থ ঐতিহ্যবাহী দি ইউনাইটেড এসোসিয়েশন ক্লাবের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগীতার উদ্বোধন করা হয়েছে। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ক্লাব প্রাঙ্গনে ক্লাবের সভাপতি তোফাজ্জ্বল হোসেন তাপু প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ব্যাডমিন্টন, পুল বিলিয়ার্ড, দাবা সহ আয়োজিত মোট নয়টি খেলার উদ্বোধন করেন। এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কলাগাছিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ক্লাবের সদস্য দেলোয়ার হোসেন প্রধান। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন ক্লাবের সহ-সভাপতি মিজানুর রহমান মিজান, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক কামাল হোসেন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন ঢালী, অর্থ সম্পাদক মশিউর রহমান, সাহিত্য সম্পাদক রফিকুল ইসলাম খোকন, সাংস্কৃতিক সম্পাদক সাইদুর রহমান মনির, ক্রীড়া সম্পাদক রাগিব হাসান ভূইয়া , সহ- ক্রীড়া সম্পাদক রাশেদুল ইসলাম মিন্টু, সাবেক ক্রীড়া সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব, কার্যনির্বাহী সদস্য নজরুল ইসলাম, ক্লাবের সচিব এম. সাইফুল আহাম্মেদসহ অন্যান্য ক্লাব সদস্যবৃন্দ। জানা যায় ১৯৫৩ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকেই সংস্থাটি নানা প্রকার সামাজিক ও জাতীয় কর্মকান্ড পরিচালনার পাশাপাশি ক্রীড়াঙ্গনেও অংশগ্রহন করে আসছে।

মেসির গোল বাতিল নিয়ে তুলকালাম

দু’দিন আগে ভ্যালেন্সিয়ার মাঠে লা লিগার ম্যাচ খেলতে গিয়েছিল বার্সেলোনা। শুরু থেকে দারুণ খেলেও ভ্যালেন্সিয়ার রক্ষণ দেয়াল ভাঙতে পারছিল না বার্সা। ম্যাচের ৩০তম মিনিটে বক্সের প্রান্ত থেকে আচমকা এক শট নিয়েছিলেন লিওনেল মেসি। অপ্রস্তুত ভ্যালেন্সিয়া গোলরক্ষক গড় বড় করে বল ঠিকভাবে ধরতে পারলেন না। হাত ফসকে বল চলে গেল গোললাইন পেরিয়ে প্রায় ৬ ইঞ্চি দূরে। স্টেডিয়ামে যারা ছিলেন বা টিভি সেটের সামনে যারা ছিলেন সবাই পরিষ্কার দেখতে পারলেন বল ভেতরে চলে যাওয়ার বিষয়টা কিন্তু দেখতে পারলেন না খোদ রেফারি! সবাইকে অবাক করে মেসির ওই গোল দেননি রেফারি। হাত-পা ছুড়ে নিজে নিজে কিছুক্ষণ প্রতিবাদ জানালেন মেসি। তারপর তর্ক জুরে দেন রেফারি ও সহকারী রেফারির সঙ্গে। সেই যে তর্ক, বিতর্ক, সমালোচনা শুরু হয়েছে, সেটা চলছেই।

ম্যাচ শেষে জর্দি আলবা রেফারিকে রীতিমতো ধুয়ে দিয়েছেন। ‘জঘন্য’ সিদ্ধান্ত বলেছেন স্প্যানিশ ডিফেন্ডার। বার্সেলোনা কোচ ভালভারদেও ছেড়ে কথা বলেননি। বিতর্কিত ওই গোল বাতিলে রেফারিং নিয়ে সমালোচনা হচ্ছে সব মহল থেকে। প্রযুক্তি ব্যবহারে দাবিও উঠেছে। সেই দাবি মিটিয়ে লা লিগা সভাপতি হাভিয়ের তেবাস ঘোষণাই দিয়ে ফেললেন, আগামী মৌসুম থেকে ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি (ভিএআর) পদ্ধতি চালু করা হবে লা লিগায়। যাতে অমন বিতর্কিত বিষয়ের মুখোমুখি না হতে হয় আগামীতে। অবশ্য লা লিগায় এই প্রযুক্তি ব্যবহারে বিষয়ে টুকটাক আলোচনা হচ্ছিল বেশ কিছুদিন ধরেই। তবে মেসির ওই গোল বিতর্ক না উঠলে এখনই হয়তো সেটা আলোর মুখ দেখত না!

ভিএআর প্রযুক্তি ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ ও জার্মান বুন্দেসলিগায় চালু করা হয়েছে ইতোমধ্যেই। দুই লিগে বেশ সুফলও পাওয়া যাচ্ছে এই পদ্ধতিটির। এই প্রযুক্তিতে বল গোল লাইন পেরিয়ে গেল কিনা ভিডিও রিপ্লেতে দেখে পরে সিদ্ধান্ত নেন রেফারি। ফাউল বা পেনাল্টির ক্ষেত্রেও ভিএআরের সাহায্য নিয়ে থাকেন রেফারিরা। এদিকে, ভিএআর চালুর ঘোষণা দেয়ার পাশাপাশি লা লিগা সভাপতিও সমালোচনা করেছেন মেসির সেই গোলটি না দেয়ার বিষয়ে। তেবাস বলেন, ‘স্পেনসহ সারা বিশ্ব গোলটি দেখেছে। আমি যদি বলি এটা গোল ছিল না, তবে আপনারা আমাকে অন্ধ বলবেন। নিশ্চিতভাবেই এটা গোল ছিল। আমরা আশা করছি, আগামী মৌসুম থেকে ভিএআর প্রযুক্তির মাধ্যমে আমরা এমন সমস্যার সমাধান করতে পারব।’ লা লিগা সভাপতি যোগ করেছেন, ‘আমরা কঠোর পরিশ্রম করছি, যাতে আগামী মৌসুম থেকেই ভিএআর প্রযুক্তি চালু করা যায়।’

নারায়ণগঞ্জ ক্লাব সাঁতার প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
গত শনিবার সকালে মিনিটে জাঁকজমকপূর্ণ পরিবেশে নারায়ণগঞ্জ ক্লাব সাঁতার প্রতিযোগিতা-২০১৭ অনুষ্ঠিত হয়। সুইমিংপুল বিষয়ক উপ-কমিটির আহ্বায়ক মোঃ মাহফুজুর রহমান খান (মাহফুজ) এর সভাপতিত্বে উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে ফিতা কেটে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিযোগিতার শুভ উদ্ধোধন করেন ক্লাব সভাপতি তানভীর আহমেদ। ৮ ও ৭ টি করে ইভেন্টে বিভক্ত পুরুষ ও মহিলা বিভাগে যথাক্রমে ৪৫ ও ২৬ জন প্রতিযোগী অংশগ্রহন করেন। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পরিচালনা পর্ষদের সিনিয়র সহ-সভাপতি ডাঃ এ কে এম শফিউল আলম ফেরদৌস, কার্যনির্বাহী সদস্য খাজা এবায়দুল হক টিপু, মোঃ রশিদুজ্জামান (জামান), হোসাইন মোঃ তানিম তৌহিদ, সম্মানিত অতিথি হিসেবে ক্লাবের সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব খবির আহমেদ, মাহমুদ হোসেন, উপ-কমিটির সদস্যবৃন্দ সহ বিপুল সংখ্যক ক্লাব সদস্য প্রতিযোগিতা উপভোগ করেন। একই দিন অপরাহ্ন ৩:০০টায় মহিলা বিভাগের সাঁতার প্রতিযোগিতা শুভ উদ্ধোধন করেন ক্লাবের সহ-সভাপতি বেগম ফরিদা আক্তার। এসময় অন্যান্যের মধ্যে সম্মানিত অতিথি হিসাবে রোখসানা খবির, আঞ্জুমান আরা আকসির, রাহাত ফাতেমা রিনা ও সাকিনা মাহফুজ চাঁপা সহ বিপুল সংখ্যক প্রতিযোগী উপস্থিত ছিলেন।

ঢাকার বিশ্বাস ছিল পোলার্ডই পারবেন

বিশেষ সংবাদদাতা: জয়ের দোরগোড়ায় গিয়েও তা ছোঁয়া হলো না। যেন তীরে এসে তরী ডুবলো ঢাকা ডায়নামাইটসের। সাকিব, আফ্রিদি, নারিন, পোলার্ডদের ড্রেসিংরুমে কবরের মতো নিস্তবদ্ধতা। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে কথা বলতে আসা আবু হায়দার রনি অকপটে স্বীকার করলেন, নিশ্চিত জয় হাতছাড়া করেছে ঢাকা।

এ কারণেই মুখে এমন কথা, ‘আমরা খুব ভালো অবস্থায় ছিলাম। এখান থেকে জেতাটাই ছিল স্বাভাবিক; কিন্তু যে কোনো কারণেই হোক আমরা পারিনি।’

শেষ ওভারে পোলার্ডের তিন তিনটি ডট বলই (আসলে তিনি নিজেই সিঙ্গেল নিতে চাননি) কি আসলে পরাজয়ের মূল কারণ? সবার মুখে একই কথা। হাতে দুই উইকেট বাকি থাকার পরও পোলার্ড তৃতীয় বলে ছক্কা হাঁকিয়েও তিন তিনটি সিঙ্গেল নেবার সুযোগ দিলেন নষ্ট করে। ঘুরিয়ে বললে তিনটি সিঙ্গেলস নেননি তিনি ইচ্ছা করেই।
নন স্ট্রাইকে থাকা মোহাম্মদ আমিরকে শেষ ওভারে এক বলেও স্ট্রাইক দিতে চাননি এই ক্যারিবীয়। আত্মবিশ্বাস ছিল, তিনিই পারবেন। ছক্কা হাঁকিয়ে দলকে জেতাবেন।

প্রথম দুই বলে সিঙ্গেল না নিয়ে তৃতীয় বলটি ডিপ মিড উইকেটের ওপর দিয়ে তুলে সীমানার ওপারে ভাসিয়ে দিলে, সে সম্ভাবনার প্রদীপই জ্বলে উঠলো; কিন্তু চার নম্বর বলে আবার সিঙ্গেল নেয়ার সুযোগ থাকলেও নেননি। সেটাই কাল হলো। পঞ্চম ডেলিভারিতে তাকে ইয়র্কারে বোল্ড করলেন রংপুরের শ্রীলঙ্কান পেসার থিসারা পেরেরা।

সেই তিন রানেই হার। খালি চোখে মনে হচ্ছে, ওই তিনটি সিঙ্গেল না নেবার জন্যই হেরেছে ঢাকা; কিন্তু আবু হায়দার রনির কথা শুনে মনে হলো ড্রেসিং রুমে কেউ পোলার্ডকে দোষারোপ করেননি। রনির কথা, ‘সবার বিশ্বাস ছিল পোলার্ড ছক্কা হাঁকানোয় ওস্তাদ। তিনি পারবেন; কিন্তু যে কোনো কারণেই হোক আজ হয়নি।’

শেষ বলে ৪ রান দরকার থাকা অবস্থায় রনি উইকেটে এসে, রিভার্স সুইপ খেলতে গেলেন উইকেট সোজা বলে। তিনি কেন উইকেটের সামনে বা মিড উইকেটের ওপর দিয়ে ছক্কা কিংবা বাউন্ডারি হাঁকানোর চেষ্টা করলেন না?

রনি রিভার্স সুইপ না খেলে সোজা ব্যাটে লং অফ, লং অনের ওপর দিয়ে চালানোর চেষ্টা করলে হয়ত চালচিত্র অন্যরকম হতে পারতো। এমন ভাবছেন অনেকেই; কিন্তু যিনি ওই সময় ক্রিজে ছিলেন, সেই আবু হায়দার রনি কেন তা না করে ক্রস ব্যাটে ঝুঁকি নিয়ে রিভার্স সুইপ খেলতে গেলেন? তার ব্যাখ্যাও আছে।

রনির সোজা-সাপ্টা উত্তর, ‘ইয়র্কার লেন্থের ডেলিভারি হচ্ছিল। আমি ধরেই নিয়েছিলাম আরও একটি ইয়র্কারই আসবে। এসেছেও। আমি উইকেটে গিয়েই ওই ধরনের কঠিন ডেলিভারিতে লং অফ কিংবা লং অনের ওপর দিয়ে ছক্কা হাঁকাতে পারবো না। তা জেনে বুঝেই স্থির করি ফাইন লেগের পাশ দিয়ে রিভার্স সুইপ খেলে বলকে সীমানার ওপারে পাঠালে কেমন হয়? যেমন ভাবা তেমন কাজ। কিন্তু ব্যাটে বলে হয়নি।’

নারায়ণগঞ্জ ক্লাব টেনিস চ্যাম্পিয়নশীপের পুরস্কার বিতরণ

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
গত শনিবার সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জ ক্লাব সবুজ চত্বরে পবিত্র কোরআন থেকে তেলোয়াতের মাধ্যমে নারায়ণগঞ্জ ক্লাব টেনিস এবং পুল ও ¯নুকার চ্যাম্পিয়নশীপ-২০১৭ এর পুরস্কার বিতরণ করা হয়েছে। ক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি ডাঃ এ.কে.এম শফিউল আলম ফেরদৌসের উপস্থাপনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন টেনিস এবং পুল ও ¯œুকার উপ-কমিটির আহ্বায়ক যথাক্রমে মোঃ মোফাজ্জল হোসেন মিন্টু ও হোসাইন মোঃ তানিম তৌহিদ। এর আগে টেনিস এবং পুল ও ¯œুকার উপ-কমিটির আহ্বায়কদ্বয় সম্মানিত প্রধান অতিথি এবং বিশেষ অতিথিদ্বয়কে ফুল দিয়ে স্বাগত জানান। ক্লাব সভাপতি তানভীর আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান ও বিশেষ অথিতি হিসেবে উপস্থিত থেকে টেনিস এবং পুল ও ¯œুকার চ্যাম্পিয়নশীপ-২০১৭ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরন করেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য এ,কে,এম শামীম ওসমান, জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া ও পুলিশ সুপার মঈনুল হক। পুরস্কার বিতরণ পর্ব শেষে বিপুল সংখ্যক ক্লাব সদস্য ও সদস্য পরিবারের উপস্থিতিতে বাংলাদেশের জনপ্রিয় সংগীত শিল্পী ইমরান ও ঝিলিকের সুরের মূর্ছনায় পুরো অনুষ্ঠানটি প্রাণবন্ত হয়ে উঠে।