ওসমান পরিবারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ ঝাড়লেন রাব্বি

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
নারায়ণগঞ্জের মেধাবী ছাত্র তানভীর মুহাম্মদ ত্বকী হত্যার বিচার ও দ্রুত অভিযোগপত্র দায়েরের দাবি জানিয়ে মোমবাতি প্রজ্জলন কর্মসূচী পালন করেছে নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোট। গতকাল শনিবার সন্ধায় নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের উদ্যোগে শহরের জিমখানায় অবস্থিত শেখ রাসেল নগর পার্কে কর্মসূচীটি পালন করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন নিহত ত্বকীর বাবা ও ত্বকী মঞ্চের আহ্বায়ক রফিউর রাব্বি, নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি মাহবুবুর রহমান মাসুম, বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ) এর নারায়ণগঞ্জ জেলার সমন্বয়ক নিখিল দাস, খেলাঘর নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি রথিন চক্রবর্তী, নাগরিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুুর রহমান, নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক ধীমান সাহা জুয়েলসহ বিভিন্ন সাংস্কৃতি জোটের নেতৃবৃন্দ। এসময় নিহত ত্বকীর বাবা রফিউর রাব্বি বলেন, দুর্বৃত্ত শক্তিরা রাজনৈতিক অপশক্তি নারায়ণগঞ্জের মানুষের অধিকার লুন্ঠন করে, খর্ব করে, পদদলিত করে তাদের পেছনে যখন সরকার থাকে প্রশাসন থাকে তখন। এ শক্তিগুলো জনগণের শক্তিকে ভয় পায়, যখন তাদের পেছনে প্রশাসন থাকে না সরকার থাকে না তখন তারা দেশ থেকে পালায়। নারায়ণগঞ্জে বিভিন্ন সময় এই অপশক্তিগুলো মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। এখনো মাথাচাড়া দিযে রয়েছে। নারায়ণগঞ্জে এই অপশক্তিগুলোর বিরুদ্ধে জনগন ঐক্যবদ্ধভাবে বিভিন্ন সময় দাঁড়িয়েছে, আজকেও দাড়িয়েছে। এসময় তিনি আরো বলেন, ত্বাকী হত্যার পরে তদন্ত কাজ পুলিশের হাত থেকে যখন র‌্যাবের হাতে যখন যায় তখন র‌্যাব ১বছরের মাথায় সংবাদ মম্মেলন করে জানায় নারায়ণগঞ্জের ওসমান পরিবারের নেতৃত্বে তাদের পৃষ্ঠপোশকতায় তাদের টর্চার সেলে ত্বকীকে হত্যা করা হয়েছে। তারা বলেছিল কিভাবে, কারা হত্যা করেছিল এবং কোন গাড়ি দিয়ে লাশ শীতলক্ষ্যায় ফেলে ছিল। সমস্ত কিছু তারা জানিয়েছে। এবং তারা বলেছিল আমরা অচিরেই অভিযোগপত্রটি আদালতে পেশ করবো। সেটা তারা জারিনয়েছে পাঁচ বছর আগে। কিন্তু তাদের চার্জশীটটি আদালতে পেশ করা হয় নাই। কেন হয় নাই। যেহেতু এই পরিবারটি রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার অংশীদার, সেহেতু এই বিচারটি শুরু করা হয় নাই। সরকার যা চায় সেই বিচার হয়, যেটা চায় না সই বিচার হয় না। সুতরা এই বিচারটিকে সরকার চায় নাই। আমরা পৌনে ছয় বছর ধরে সরকারের কাছে আবেদন নিবেদন করছি। বিচার করার জন্য। আজকে শেষ সীমায় এসে সরকারের কাছে আর আবেদন নিবেদন আমরা করতে চাই না। কারণ তরা আমাদের কথা শুনে নাই। তারা হত্যাকারীদের আশ্রয় দিয়েছে। বিচার বন্ধ রেখেছে।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *