না’গঞ্জকে অস্থিতিশীল করার পাঁয়তারা চলছে!

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

আরমাত্র ২৩ দিন পর একাদশ সংসদ নির্বাচন। নির্বাচনকে সামনে রেখে নারায়ণগঞ্জ বিভিন্ন ইস্যুতে উত্তপ্ত হতে শুরু করেছে। নারায়ণগঞ্জে অস্থিতিশীল পরিবেশের চেষ্টা করছে একটি মহল। সেক্ষেত্রে কখনো শিক্ষার্থী আবার কখনো শ্রমিকদের ব্যবহার করা হচ্ছে। নির্বাচনের আগে অস্থিতিশীল পরিবেশ মোকাবেলায় বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়ে প্রশাসনের জন্য। ফতুল্লার বিসিকে একের পর এক তান্ডবে উত্তাপ ছড়িয়ে পড়ছে নারায়ণগঞ্জে। আগামী কাল শনিবার নারায়ণগঞ্জে শ্রমিকদের উস্কানী দিয়ে বড় ধরণের তান্ডব চালানো হবে বলে বিভিন্ন সূত্র থেকে জানাগেছে। আর এর নেপথ্যে শ্রমিক নেতাদের ইন্ধন রয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন। জানাগেছে, গত ৩ ডিসেম্বর ফতুল্লার বিসিক শিল্প নগরীতে ফকির এপারেলসের উৎপাদন মজুরী বৃদ্ধির দাবীতে বিক্ষোভ করে শ্রমিকরা। পরবর্তিতে একটি মহল শ্রমিকদের উস্কানী দিলে শ্রমিকরা ব্যাপক তান্ডব চালিয়েছিল। পরে শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে ফের রণক্ষেত্রে পরিনত হয়েছিল বিসিক। ঐ ঘটনায় পুলিশসহ অন্তত একশ জন আহত হয়েছিল। গত ৪ ডিসেম্বর বিকেএমইএ সভাপতি একেএম সেলিম ওসমান শ্রমিকদের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠার আশ্বাস দিলে ফকির এপারেলসের শ্রমিকরা কাজে যোগদান করে। ঘটনার দুইদিন পরই গতকাল বৃহস্পতিবার এন আর গার্মেন্টের শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে ফের রণক্ষেত্রে পরিনত বিসিক সংলগ্ন ভোলাইল এলাকা। এসময় শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে বুবলি বেগম নামে এক নারী শ্রমিকের মৃত্যু হয়। এঘটনার পর পরিস্থিতি আরো ঘোলাটে হতে শুরু করে। শ্রমিকরা ভোলাইলে পুলিশের সাথে সংঘর্ষের পর কাশীপুরে একাধিক গার্মেন্টে ভাংচূর চালায়। সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, কাশীপুরের স¤্রাট হল সংলগ্ন একটি গার্মেন্টে শ্রমিকদের সাথে বহিরাগতরা লাঠি দিয়ে ভাংচূড় চালায়। এসময় বহিরাগতদের ছবি তুলতে গেলে স্থানীয় একটি দৈনিকের সাংবাদিকের তেড়ে বহিরাগতারা। পরে সাধারণ শ্রমিকরা ঐ সাংবাদিককে উদ্ধার করে নিরাপদ স্থানে দিয়ে যায়। তখন শ্রমিকরা নিজেরাই স্বীকার করেছেন তাদের সাথে বহিরাগতরা ভাংচূড় চালিয়েছে। এদিকে, আগামী কাল শনিবার ব্যাপক তান্ডবের প্রস্তুতি নিচ্ছে ইন্ধন দাতারা। এরই মধ্যে গতকার রাতে নিহত বুবলির বাড়িয়ে গিয়ে শ্রমিকদের উস্কানী দিয়ে এসেছেন এঘটনার নেপথ্যের খলনায়ক এক শ্রমিক নেতা। যিনি ফকির এপারেলসের শ্রমিকদেরও উস্কানী দিয়েছেন। তার কারণেই গতকাল এতো তান্ডব হয়েছে ভোলাইলে। কেননা গতকাল কাশীপুরে অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনী উঠান বৈঠকে যোগ দিতে এসে সাংসদ শামীম ওসমান এন আর গার্মেন্টের শ্রমিক অসন্তোষ দেখে তাদের শান্ত করার চেষ্টা করেন। তিনি তখন বেশ কয়েকজন শ্রমিক নিয়ে এন আর গার্মেন্টে প্রবেশ করে বিক্ষোভের ব্যাপারে খোঁজ নেন। শ্রমিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, সামনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। আর ঠিক এরআগ মুহুর্তেই বহিরাগত শ্রমিক নামধারী নেতারা পরিবেশ অস্থিতিশীল করে তুলতে উস্কানী দিয়ে শ্রমিকদের রাস্তায় নামিয়ে অর্থনীতিকে ধ্বংসের পাঁয়তারা করছে। পরে শামাম ওসমান শ্রমিকদের শান্ত করে ঊঠান বৈঠকে চলে যান। এর আধা ঘন্টা পরও বহিরাগতারা বিভিন্ন গার্মেন্টে ভাংচূড় চালায়। এতে স্পষ্ট যে, শ্রমিকদের নামে একটি মহল তান্ডব চালিয়ে নারায়ণগঞ্জকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করছে।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *