রবিবার | ১৮ নভেম্বর, ২০১৮ | ৪ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ | ৯ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪০ | বিকাল ৫:০২

একক সংবাদ

নাশকতাকারী আশা পৃষ্ঠপোষক কালাম!

Badal-nj | নভেম্বর ০১, ২০১৮

ডান্ডিবার্তা রিপোট

ভাল সময়েই পুলিশের ঝামেলা এড়াতে যেই মহানগর বিএনপির সভাপতি সাবেক এমপি এড. আবুল কালাম রাজপথে নামার পরিবর্তে ঘরে বসে কর্মসূচি পালন করতেন এবার সেই কালামই অসুস্থ্য থেকেও নাশকতার পৃষ্ঠপোষক ও অর্থায়ন সরবরাহকারী বনে গেছেন। আর বাবা আবুল কালামের পৃষ্ঠাপোষকতায় নাশকতার চেষ্টাকারী হিসেবে আসামী বনে গেছেন পুত্র মহানগর স্বেচ্ছা সেবকদলের সভাপতি আবুল কাউসার আশাও। গত মঙ্গলবার রাতে সদর মডেল থানায় বিস্ফোরক দ্রব্য ও বিশেষ ক্ষমতা আইনে ইন্সপেক্টর (অপারেশন) জয়নাল আবেদীনের দায়েরকৃত মামলার এজাহার থেকে এমনই তথ্য জানাগেছে। যেখানে পুলিশ অভিযোগ করেছেন, গত ৩০ অক্টোবর মহানগর বিএনপির সভাপতি এড. আবুল কালামের পৃষ্ঠপোষকতা, পরিকল্পনায় সরকার উৎখাতের লক্ষ্যে যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা, রেল পথের ক্ষতিসাধন, নৌপথ, সড়ক পথ অচল, মিল কারাখানা বন্ধ করে দেশকে অস্থিতিশীল করার জন্য আসামীরা চাষাড়ায় মিলিত হয়েছিল।  সেখান থেকে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদসহ ছাত্রদলের আরো ৩ জন কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে ২টি লাল স্কচটেপে মোড়ানে অর্ধেক ভাঙা পুরাতন জর্দার কৌটা ও ৪টি ইটের টুকরা জব্দ করা হয়েছে। আর এই নাশকতার অভিযোগে গ্রেফতারকৃত ৪ জনসহ বিএনপি, যুবদল ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি আবুল কাউসার আশাসহ ১৬ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৭/৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ।  অথচ, ৩০ অক্টোবর বিএনপি চেয়ারমপার্সন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় ৭ বছরের সাজা হওয়ার প্রতিবাদে কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচি পালনে রাজপথেই নামেনি আবুল কালাম ও তার পুত্র আশা। উপরন্তু, চাষাড়াস্থ সায়াম প্লাজার সামনে বিএনপির বিক্ষোভ কর্মসূচি পালনে নেতাকর্মীরা জড়ো হওয়ার পূর্বেই সেখানে পুলিশ হানা দিয়ে জেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদসহ ছাত্রদলের ৩ কর্মীকে আটক করে ফেলে। ফলে ভেস্তে যায় বিএনপির বিক্ষোভ কর্মসূচি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © দৈনিক ডান্ডিবার্তা, ওয়েব ডিজাইন: মো: নাসিরউদ্দিন-০১৭১২৫৭৪৯৯০

top