সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় পাঁচটি আসনের ধানের শীর্ষের প্রত্যাশীরা

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

‘ধানের শীষ’ তুমি কার? দলীয় মনোনয়ন প্রাপ্তির পর শেষ ৫ এর লড়াইয়ে টিকে থাকছে কোন ৫ সৌভাগ্যবান তা নির্ধারন করবে আজ জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। আজ সোমবার বিকেলে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটসহ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ষ্টিয়ারিং কমিটির বৈঠকে ধানের শীষের প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করা হবে বলে দলীয় সূত্রে জানাগেছে। জানাগেছে, গত ২৮ নির্বাচন কমিশনে মনোনয়ন পত্র দাখিলের শেষ দিনে নারায়ণগঞ্জের ৫টি আসনে ধানের শীষের মনোনয়ন প্রাপ্ত ১৪ প্রার্থীর মধ্যে ১৩ প্রার্থী মনোনয়ন পত্র জমা দেন। সোনারগাঁ আসনে সোনারগাঁ উপজেলা বিএনপির সভাপতি খন্দকার আবু জাফর ধানের শীষের মনোনয়ন পেলেও তিনি নির্বাচন কমিশনে তা আর জমা দেননি। এরপর গতকাল রবিবার মনোনয়ন পত্র যাচাই-বাছাই শেষে ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ আসনের ধানের শীষের প্রার্থী নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদ ও সদর-বন্দর আসনে মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদের মনোনয়ন পত্র বাতিল ঘোষণা করে রিটার্নিং অফিসার।  ফলে ৫টি আসনে ধানের শীষের লড়াইয়ে টিকে রয়েছেন ১১ প্রার্থী। জানাগেছে, চলতি বছরের ৮ ফেব্রুয়ারী জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় দলীয় চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া ৫ বছরের সাজাপ্রাপ্ত হয়ে কারাবন্দি থাকার কারনে তাঁর কারামুক্তি ব্যতীত একাদশ সংসদ নির্বাচনে বিএনপির অংশ গ্রহণ নিয়ে প্রথমে ধোঁয়াশার সৃষ্টি হলেও শেষতক নির্বাচনে অংশ নেয় বিএনপি। এলক্ষ্যে নারায়ণগঞ্জ জেলায় সংসদীয় আসন ৫টি হলেও ধানের শীষের মনোনয়ন পান ২৩ দলীয় জোটের সমন্বয়ে গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক বিএনপি, সাম্যবাদী দল ও নাগরিক ঐক্যের মনোনীত ১৪ প্রার্থী।  দলীয় সূত্রে জানাগেছে, নারায়ণগঞ্জে সংসদীয় আসন ৫টি হলেও রাজনৈতিক কৌশলগত কারনেই একের অধিক সম্ভাব্য প্রার্থীদের ‘ধানের শীষ’ এর মনোনয়নের চিঠি দেয়া হয়েছে। ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ ও জাতীয় পার্টির সমন্বয়ে গঠিত মহাজোটের মনোনীত ৫ প্রার্থীর সাথে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দীতা করে বিজয় নিশ্চিতে সক্ষম হবেন এমন ৫ জন প্রার্থী চূড়ান্ত করতে ধানের শীষের মনোনীত ১৪ প্রার্থীকে নিজেদের মধ্যে সমঝোতার নির্দেশনা দিয়েছে বিএনপির মনোনয়ন বোর্ড। যা আগামী ৮ ডিসেম্বরের মধ্যেই চূড়ান্ত করতে বলা হয়েছে। কারন, আগামী ৯ ডিসেম্বর মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহারের শেষদিনের পূর্বেই নারায়ণগঞ্জের ৫টি আসনে চূড়ান্ত প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করবে ঐক্যফ্রন্ট। আর সমঝোতার ভিত্তিতে স্থানীয়ভাবে যদি ১৪ জন মনোনীত প্রার্থী ৫ জন দলীয় প্রার্থী চূড়ান্তে ব্যর্থ হন, সেক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় ভাবেই প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে বলে জানিয়েছেন, বিএনপির মনোনয়ন বোর্ডের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক সদস্য। জানাগেছে, আগামী ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ব্যানারে বিএনপিসহ ২৩টি রাজনৈতিক দল জোটবদ্ধ ভাবে নির্বাচনে অংশ নিলেও এই সকল দলের প্রার্থীরা বিএনপির প্রতীকেই লড়বেন ভোট যুদ্ধে। তাই, সকল দলেরই মনোনীত সম্ভাব্য প্রার্থীদের দেয়া হয়েছে বিএনপির প্রতীক ধানের শীষের মনোনয়ন। যার মধ্যে, গত ২৭ নভেম্বর নারায়ণগঞ্জের সংসদীয় ৫টি আসনের বিপরীতে বিএনপির ১২, সাম্যবাদী দলের ১ ও নাগরিক ঐক্যের সম্ভাব্য ১ জন প্রার্থীকে ‘ধানের শীষ’ এর মনোনয়ন পত্র দেয়া হয়েছিল।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *