বুধবার | ২১ নভেম্বর, ২০১৮ | ৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ | ১১ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪০ | রাত ১২:২৬

একক সংবাদ

না’গঞ্জে নির্বাচনী উত্তেজনার মাস শুরু

Badal-nj | নভেম্বর ০২, ২০১৮

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

শুরু হয়েছে উত্তেজনার মাস নভেম্বর। আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে। নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর পরই নারায়ণগঞ্জের রাজনৈতিক মাঠ উত্তপ্ত হতে শুরু করবে। তখন বিএনপি তথা ঐক্যফ্রন্ট নেতা-কর্মীদের নিয়ে মাঠে নামবে। আওয়ামীলীগ তখন আর ফাঁকা মাঠে গোল দিতে পারবেনা। রাজনীতি হবে সমানে সমান। মাঠ দখলে মরিয়া হয়ে উঠবে আওয়ামীলীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টিসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলি। যার প্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় নির্দেশনা মোতাবেক নারায়ণগঞ্জেও রাজপথ নিজেদের দখলে রাখতে এখন মরিয়া হয়ে উঠেছেন দেশের প্রধান এই তিনটি রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দসহ সম্ভাব্য মনোনয়ন প্রত্যাশীরা। জানাগেছে, চলতি নভেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে আওয়ামীলীগ সরকার নির্বাচনকালীন সরকার গঠন করতে যাচ্ছেন। কিন্তু বিএনপি সংসদ বহাল রেখে নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের বিপক্ষে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণায় অনড়। তত্তাবধায়ক সরকার গঠনসহ বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার মুক্তিসহ ৭ দফা দাবীতে রাজপথে রয়েছে বিএনপি। আর নির্বাচন উপলক্ষ্যে মাঠ দখলে রাখতে নৌকার পক্ষে গণসংযোগ করে যাচ্ছেন নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগ। নারায়ণগঞ্জে আওয়ামীলীগের ছাড় দেয়া দু’টি আসনে জাতীয় পার্টির দুই জন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মাঠে নেমে পড়ায় একধরনের উত্তেজনা বিরাজ করছে। পাশাপাশি বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সমন্বয়ে গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট দেশের প্রতিটি জেলায় সমাবেশ করে যাচ্ছেন। তাই চলতি মাসটি উত্তেজনাকর বলে মন্তব্য করেছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। প্রসঙ্গত, নারায়ণগঞ্জ জেলার ৫টি আসনে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশায় মাঠে রয়েছেন প্রায় ২ ডজনেরও বেশী সম্ভাব্য প্রার্থী। যার মধ্যে সবচেয়ে বেশী রয়েছে সদর-বন্দর আসনে। দশম নির্বাচনে জাতীয় পার্টিকে ছাড় দেয়া উক্ত আসনে একাদশ নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশায় মাঠে রয়েছেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের জাতীয় পরিষদের সদস্য এড. আনিসুর রহমান দিপু, জাতীয় শ্রমিকলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আলহাজ¦ শুক্কুর মাহমুদ, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হাই, সাধারন সম্পাদক এড. আবু হাসনাত মো: শহীদ বাদল, সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কাদির, আরজু রহমান ভূইয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সুফিয়ান, মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এড. খোকন সাহা, সাংগঠনিক সম্পাদক জি এম আরাফাতসহ বেশ কয়েকজন প্রার্থী। উক্ত আসনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসেবে আছেন, বর্তমান এমপি সেলিম ওসমান। বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে মাঠে রয়েছেন মহানগর বিএনপির সভাপতি সাবেক এমপি এড. আবুল কালাম ও সিনিয়র সহ-সভাপতি এড. সাখাওয়াত হোসেন খান। ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশায় কয়েকমাস পূর্বে মাঠে নেমে আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় অর্থ ও পরিকল্পনা উপ-কমিটির সদস্য কামাল মৃধা মাঠে নেমে চুপসে গেলেও প্রতিদ্বন্দীতায় রয়েছেন বর্তমান এমপি সাংসদ আলহাজ¦ একেএম শামীম ওসমান ও জাতীয় শ্রমিকলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির শ্রম কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক আলহাজ¦ কাউসার আহম্মেদ পলাশ। লাঙ্গল প্রত্যাশী হিসেবে মাঠে রয়েছেন জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সালাউদ্দিন মোল্লা খোকা। বিএনপির প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন, সাবেক এমপি গিয়াস উদ্দিন আহম্মেদ ও ফতুল্লা থানা বিএনপির সভাপতি শাহ আলম। সোনারগাঁ আসনটি দশম নির্বাচনে জাতীয় পার্টিকে ছাড় দেয়া হলেও একাদশ নির্বাচনে আর ছাড় না দেয়ার দাবীতে অনড় থেকে নৌকা প্রত্যাশী হিসেবে মাঠ দাবড়িয়ে বেড়াচ্ছেন উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক আলহাজ¦ মাহফুজুর রহমান কালাম, সাবেক এমপি আব্দুল্লাহ আল কায়সার হাসনাত, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক ডা: জাফর চৌধুরী বীরু। আর জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসেবে মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন বর্তমান এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা ও মহিলা পার্টি কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারন সম্পাদিকা অনন্যা হুসাইন মৌসুমী। বিএনপির প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন, সোনারগাঁ উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক আজহারুল ইসলাম মান্নান, সাবেক প্রতিমন্ত্রী রেজাউল করিম। আড়াইহাজার আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশায় গণসংযোগে নেমে পড়েছেন বর্তমান সাংসদ আলহাজ¦ নজরুল ইসলাম বাবু, জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক ইকবাল পারভেজ ও সাবেক রাষ্ট্রদূত মমতাজ উদ্দিন। উক্ত আসনে লাঙ্গল প্রত্যাশায় মাঠে নামছেন জাতীয় পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান আলমগীর শিকদার লোটন। বিএনপির প্রার্থী হিসেবে আছেন, কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক নজরুল ইসলাম আজাদ, সাবেক এমপি আলহাজ¦ আতাউর রহমান আঙ্গুর। রূপগঞ্জ আসনে নৌকা প্রত্যাশায় জোর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বর্তমান সাংসদ গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতিক, কায়েতপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ¦ রফিকুল ইসলাম রফিক, সাবেক এমপি কে এম শফি উদ্দিনসহ কয়েকজন সম্ভাব্য প্রার্থী। বিএনপির প্রার্থী হিসেবে আছেন, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা এড. তৈমূর আলম খন্দকার, জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান ও কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান ভূইয়া দিপু।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © দৈনিক ডান্ডিবার্তা, ওয়েব ডিজাইন: মো: নাসিরউদ্দিন-০১৭১২৫৭৪৯৯০

top