কুতুবপুরে বঙ্গবন্ধু-প্রধানমন্ত্রীসহ শামীমের ছবি ভাংচূর

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

সদর উপজেলার ফতুল্লার কুতুবপুর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ড মেম্বার জাহাঙ্গীর হোসেনকে চাঁদাবাজির অভিযোগে গ্রেফতারের প্রতিবাদে গতকাল বুধবার বিকেলে আধাঘন্টা ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডে ভূইগড়ে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে স্থানীয়রা। এতে করে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডে তীব্র যানজটে চরম দূর্ভোগে পড়তে হয় যাত্রীদের। পরে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। মেম্বারের সমর্থকরা জানিয়েছেন, উন্নয়ণ কাজে বাধা দিয়ে এক পুলিশ সদস্যের ভাই ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে অন্যায় ভাবে মেম্বারকে গ্রেফতার করেছে। এসময় শারীরিক ভাবে মেম্বার জাহাঙ্গীর হোসেনকে লাঞ্ছিতসহ মেম্বারের কার্যালয়ে ভাংচূর করাসহ পুলিশের বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমন, প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সাংসদ শামীম ওসমানের ছবি ভাংচূরের অভিযোগ করে মেম্বারের সমর্থকরা। তবে ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহ মঞ্জুর কাদের জানিয়েছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমন, প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সাংসদ শামীম ওসমানের ছবি পুলিশ নয়, বরং ঘটনাকে ভিন্ন দিকে দিতে কেউ এঘটনাটি ঘটিয়েছে। তবে যেই এঘটনা ঘনিয়েছে তারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমন ও প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ভালবাসেনা বলেই এমন কান্ড ঘনিয়েছে। এঘটনার সাথে জড়িত যেই হোক তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। সে যদি আমার পলিশের সদস্যও হয় সেও ছাড় পাবে না। তিনি আরো জানান, মেম্বার জাহাঙ্গীরকে চাঁদাবাজীর অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে। স্থানীয়রা জানান, কুতুবপুর ইউনিয়নের ভূইগড় কবরস্থান সংলগ্ন এলাকায় ৩ শতাংশ জমি ক্রয় করেন জাহাঙ্গীর আলম নামের একজন ব্যক্তি। তার ইব্রাহিম মতিঝিল থানার উপ-পরিদর্শক। তার বাড়ির পাশে রাস্তা নির্মাণে এলাকাবাসীর স্বার্থে কিছুটা জমি ছেড়ে দিতে বলেন। সকলে রাস্তার জন্য জমি ছেড়ে দিলেও জাহাঙ্গীর আলম জমি ছাড়তে অনীহা প্রকাশ করেন। পরবর্তীতে গতকাল বুধবার রাস্তা নির্মাণে জাহাঙ্গীর আলম আলমের জমিতে কাজ শুরু করলে পুলিশ এসে বাধা দেয়। এরপর পুলিশের সাথে স্থানীয় মেম্বার জাহাঙ্গীর হোসেন ভাকবিত-ের এক পর্যায়ে পুলিশ তাকে আটক করে। পরে স্থানীয়রা লিংক রোড অবরোধ করে। এর আগে জমির মালিক জাহাঙ্গীর আলম ফতুল্লা মডেল থানায় চাঁদাবাজির একটি অভিযোগ করেন। অভিযোগ পেয়ে ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মঞ্জুর কাদের ইউপি মেম্বারের মুঠোফোনে কল করে তাকে বিষয়টি নিষ্পত্তির জন্য থানায় যেতে বলেন। মেম্বার থানায় যেতে অস্বীকৃতি জানান। পরে ইউপি মেম্বার ও তার লোকজন জাহাঙ্গীর আলমের মালিকানাধীন জমির দেয়াল ভেঙ্গে ফেলে। খবর পেয়ে বিকেল পৌনে ৩ টার দিকে ফতুল্লা মডেল পুলিশ মেম্বারকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। এরপর তার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগে মামলা রেকর্ড হয়। এদিকে, এলাকাবাসীদের মধ্যে উত্তেজনা ড়িয়ে পড়লে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক অঞ্চল) মেহেদী ইমরান সিদ্দিকী, ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মঞ্জুর কাদেরসহ অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *