নারায়ণগঞ্জের ঐতিহ্য ম্লান চাষাঢ়ায় অরুচিকর প্রবেশদ্বার

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
নারায়ণগঞ্জ শহরে সমস্যার অন্ত নাই। প্রাচীন এই শহরের ঐতিহ্য যেমন রয়েছে ঠিক তেমনি রয়েছে অনেক ব্যাক্তির জন্ম এবং বেড়ে উঠা। যারা বর্তমানে এই শহরের প্রতিনিধিত্ব করছে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিকভাবে। দিন দিন এই শহরের পরিবর্তন হচ্ছে। অনেক সৌন্দর্য বিকশিত হচ্ছে দ্রুত গতিতে। তারপরও কিছু স্থানে এর ছিটেফোঁটাও খুঁজে পাওয়া যায় না। তার মধ্যে একটি হচ্ছে চাষাঢ়া বঙ্গবন্ধু সড়কের প্রবেশদ্বার। এই প্রবেশদ্বারটি শহরের রুচিই নষ্ট করে দেয়। যা কোন ভাবেই মানতে নারাজ রুচিশীল নগরবাসী। শহরের গুরুত্বপূর্ণ একটি পয়েন্ট হচ্ছে চাষাঢ়া গোল চত্বর। এই চত্বর দিয়ে প্রতিদিন লাখ লাখ পথচারী চলাচল করে থাকেন। শহরে প্রবেশের ৮০ ভাগ লোক এই চত্বর দিয়ে প্রবেশ করেন। যার মধ্যে অন্যতম প্রবেশ মুখ বঙ্গবন্ধু সড়ক। এই সড়কের প্রবেশ পথে কয়েকটি স্থায়ী পিলার রয়েছে। যা তৈরী করা হয়েছে কয়েক বছর আগে। পিলারের মাথায় এলোমেলো কয়েকটি রড রয়েছে যা অবহেলায় এখন এঁকেবেঁকে পরিচয় লুকাবার চেষ্টা করছে। আর এই পিলারের উপরেই রয়েছে বাঁশ। যা সড়কে ভারী যানবাহনে বাঁধা সৃষ্টি করতে ব্যবহার করে সিটি করপোরেশন। এমন বাধা সৃষ্টির অনেক দন্ড এই শহরে রয়েছে। যার মধ্যে এই বাঁশ দন্ডটি হচ্ছে সবচেয়ে খারাপ নজির। অন্যান্য স্থানে রং করা সৌন্দর্য বর্ধক দন্ড ব্যবহার করা হয়েছে। যা নিয়ম মাফিক খোলা এবং বন্ধ করা যায়। পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ করা যায় কতৃপক্ষের ইচ্ছা মাফিক। বলতে গেলে প্রতিটি মহল্লার প্রবেশে এমন সৌন্দর্য বর্ধক প্রতিবন্ধকতা দেখা যায়। অথচ সিটি করপোরেশনের নাকের ডগায় এমন অবস্থায় কোন খবর নেই নগর কতৃপক্ষের। কোন বোধোদয় হচ্ছে না বছরের পর বছর। দেখেও দেখছে না এই শহরের কর্ণধার বলে যারা প্রতিদিন চিৎকার করে গলা ফাটায়। তাদের অবহেলায় নাক কাটা যাচ্ছে সাধারণ মানুষের। যারা গর্ব করে নারায়ণগঞ্জের বাসিন্দা বলে পরিচয় দেয়া তাদের। তোলারাম কলেজের ছাত্র রাগবির হোসেন বলেন, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন দেশের সুনাম ধন্য করপোরেশন। তবে একমাত্র করপোরেশন এটি নয়। অন্যান্য সিটির মধ্যে এমন অবস্থা খুব কমই দেখতে পাওয়া যায়। বিশেষ করে যেখান দিয়ে বেশি মানুষ যাতায়াত করে সে সব স্থানের প্রতি তাদের দৃষ্টি একটু ভিন্ন থাকে। তারা সেই সব স্থান এবং স্থাপনা সব সময় ত্রুটি মুক্ত রাখে। অথচ নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন এমন কাজটি যে করে না তার প্রমাণ বঙ্গবন্ধু সড়কের প্রবেশ দ্বার। অথচ বেশি খরচের বিষয় নয়। বিষয় হচ্ছে একটু দৃষ্টি দেয়ার। এই দৃষ্টির অভাবে আমরা অনেক স্থানে সুনাম নষ্ট করছি। ফাতেমা কানিজ বলেন, নারায়ণগঞ্জের মেয়র এবং সংসদ সদস্য যারা রয়েছেন তারা দেশের মধ্যে খুবই পরিচিত। তাদের যোগ্যতা বড়াই করার মতন। অথচ তাদের দৃষ্টিতে এমন ছোট ছোট বিষয় গুলি অবহেলার বস্তু হিসেবে থেকে যায় দিনের পর দিন। আমরা এ থেকে পরিত্রান চাই। আমরা চাই আমাদের শহরের সমস্যা গুলো দ্রুত সমাধানের। যাতে আমরা দৃষ্টান্ত হিসেবে থাকতে পারি অন্যান্য সিটি করপোরেশনের কাছে।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *