দখলদারদের কব্জায় বালুর মাঠ সড়ক

 

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

নারায়ণগঞ্জ শহরের একটি অন্যতম প্রধান সড়ক হচ্ছে চাষাঢ়া বালুর মাঠের (ভাষা সৈনিক রোড) সড়কটি। নারায়ণগঞ্জ শহরের কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ রাস্তার যানজট রোধে এই রাস্তাটি কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারে। কিন্তু রাস্তার একপাশ ঘেষে ব্যবসায়ীদের দখলদারীত্ব আর গাড়ি পার্কিংয়ের কারণে বর্তমানে রাস্তাটি অকেজো হয়ে পড়েছে। নগরবাসীর স্বস্থিতে এই রাস্তাটি বর্তমানে কোন কাজেই আসছে না। জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে বেহাল অবস্থার কারণে চাষাঢ়া বালুর মাঠের (ভাষা সৈনিক রোড) সড়কটি ব্যাবহার অযোগ্য ছিল। এই রাস্তা দিয়ে নগরবাসী কোন রকমের যাতায়াত করতে পারত না। রোদ বৃষ্টিতে সবসময় নাকাল থাকতো এই রাস্তাটি। ফলে নগরবাসীর দীর্ঘদিনের দাবী ছিল এই রাস্তার সংস্কার কাজ করা। নগরবাসী কষ্ট লাঘব করার স্বার্থে নারায়নগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন চাষাঢ়া বালুর মাঠের (ভাষা সৈনিক রোড) সড়কটি সংস্কারের কাজে হাত দেয়। যার ধারবাহিকতায় ২০১৭ সালের ৬ আগষ্ট প্রায় তিন কোটি টাকা ব্যয়ে রাস্তাটির সংস্কার কাজের উদ্বোধন করেন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াত আইভী। সেই সাথে অনেক আলোচনা সমালোচনার পর রাস্তাটির সংস্কার কাজ শেষ হয়। যা আগামী ১০০ বছর পর্যন্ত স্থায়ী থাকবে বলে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা ঘোষণা দিয়েছেন। কিন্তু বর্তমানে এই রাস্তাটির বিন্দু পরিমাণও সুফল পাচ্ছে না নগরবাসী। রাস্তার একপাশ ঘেষে থাকা বাড়িওয়ালারা রাস্তাটিতে অকেজো করে রেখেছেন। প্রত্যেক বাড়ির নিচ তলায় ব্যবসায়ীদেরকে ভাড়া দিয়েছেন। আর ব্যবসায়ীরা নিজ ইচ্ছেমতো রাস্তাটির একপাশ দখল করে তাদের ব্যবসায়িক কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছেন। আর অন্যপাশে এলোপাথারীভাবে গাড়ি পার্কিং করে রাখা হচ্ছে। তাদের অবস্থা অনেক এরকম যেন তাদের ব্যবসায়িক কার্যক্রম আর গাড়ি পার্কিং করে রাখার জন্যই রাস্তাটির সংস্কার কাজ করা হয়েছে। তাদের এই দখলদারিত্বের কারণে রাস্তা দিয়ে কোন কোন সময় একটি রিক্সা যাওয়ারও উপায় থাকে না। সচেতন নাগরিকবাসীরা মনে করেন, বালুর মাঠের (ভাষা সৈনিক রোড) সড়কটি নারায়ণগঞ্জ শহরের যানজট রোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। কয়েকটি সড়কের যানবাহনের চাপ কমাতে পারে এই রাস্তাটি। কিন্তু কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারণে বাড়িওয়ালার ভাড়াটিয়া ব্যবসায়ীরা বেপোরোয়া হয়ে পড়েছে। তারা যে যেভাবে পারছে সেভাবেই রাস্তাটিকে ব্যবসায়িক কাজে ব্যবহার করে যান চলাচলে অযোগ্য করে রেখেছে। ফলে কয়েক কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ নগরবাসীর কোন কাজে আসছে না। এ বিষয়ে ১৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর খোরশেদ আলম জানান, ‘কয়েকজন বাড়িওয়ালা আর ব্যবসায়ীদের দখলে অসচেতনতার জন্য আজ রাস্তাটির সুফল জনগন ঠিকমত পাচ্ছে না। তারা রাস্তাটি তাদের ব্যাবসায়িক কাজে লাগাচ্ছে। যা খুবই দুঃখজনক বিষয়। তবে আমি বাড়ীওয়ালাদের সদয় সহযোগিতা কামনা করি, আসুন নিজের বেলায় অন্ধ না হই, সবাইকে নিয়ে ভাল থাকার চিন্তা করি।’

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *