উপজেলা নির্বাচনে ভোটারদের উচ্ছ্বাস নেই

 

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

আসন্ন উপজেলা নির্বাচনের চতুর্থ ধাপে এ জেলার তিনটি উপজেলায় নির্বাচনে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে এ মাসের শেষ দিকে। সেই নির্বাচনকে ঘিরে রাজনীতিক নেতাকর্মীদের মাঝে উচ্ছ্বাস থাকলেও ভোটারদের মাঝে কোন উচ্ছ্বাস ও উদ্দীপনা নেই। যেকারণে সারা দেশের মত এ জেলার উপজেলা নির্বাচনও ভোটারহীন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে বলে সবার মাঝে ধারণা জন্মেছে। জানা গেছে, উপজেলা নির্বাচনের চতুর্থ ধাপে এ জেলার সোনারগাঁ, আড়াইহাজার ও রুপগঞ্জ উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে আগামী ৩১ মার্চ। নারায়ণগঞ্জের তিনটি উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনীতদের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। এর মধ্যে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলায় মনোনয়ন পেয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সেক্রেটারী শাহজাহান ভূইয়া, আড়াইহাজারে পেয়েছেন মুজাহিদুর রহমান হেলু সরকার, সোনারগাঁয়ে পেয়েছেন মোশারফ হোসেন। তবে মনোনয়ন বঞ্চিতরা এই মনোনয়নকে মেনে নিতে পারেনি। যেকারণে তিনটি উপজেলার প্রত্যেকটিতে বিদ্রোহী প্রার্থী দেখা যাচ্ছে। এর মধ্যে রূপগঞ্জ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বিদ্রোহী প্রার্থী মো: তাবিবুল কাদির তমাল আনারস প্রতিক পেয়েছেন, আড়াইহাজার উপজেলা চেয়ারম্যান পদে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে ইকবাল হোসেন মোল্লা আনারস প্রতিক পেয়েছে, সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাচনের চেয়ারম্যান পদে বিদ্রোহী প্রার্থী উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারী মাহফুজুর রহমান কালাম ঘোড়া মার্ক পেয়েছেন। গত ১৮ মার্চ সোমবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ জেলা রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগে মোশারফ হোসেন উল্লেখ করেছেন, সোনারগাঁ আসনের সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা বিদ্রোহী প্রার্থী মাহফুজুর রহমান কালামের পক্ষে উপজেলা পরিষদে বসে উপজেলার বিভিন্ন কর্মকর্তাদের নির্বাচনের জন্য প্রভাবিত করছেন। এছাড়াও বিভিন্ন ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধি, গন্যমান্য ব্যাক্তি ও আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে কাজ করার জন্য হুমকি দিচ্ছেন। এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা সোনারগাঁও রয়েল রিসোর্ট ও মোগরাপাড়া চৌরাস্তায় তার নিজস্ব কার্যালয়ে বসে নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে আচরণবিধি লঙ্ঘন করছেন। এছাড়া নৌকার প্রার্থী মোশরফের সাথে বিদ্রোহী প্রার্থী উপজেলা সেক্রেটারী মাহফুজুর রহমান কালাম সমর্থকদের সাথে দফায় দফায় সংঘর্ষ দেখা যাচ্ছে। তাছাড়া জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাই নৌকার প্রার্থী মোশারফের পক্ষে কাজ করছেন। আড়াইহাজার উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ইকবাল হোসেন মোল্লা স্থানীয় সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবুর ভাগ্নে। এই বিদ্রোহী প্রার্থী ইতোমধ্যে তার প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকার প্রার্থীকে নিয়ে কড়া হুঁশিয়ারি দিয়েছে। এভাবে রূপগঞ্জ, সোনারগাঁও ও আড়াইহাজার উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে প্রার্থী সহ রাজনীতিক নেতারা বেশ সবর রয়েছে। নির্বাচনে রাজনীতিক নেতারা এক পক্ষকে সমর্থন করেছে আবার কখনো অন্য পক্ষের বিরোধীতা করছে। এসবের মধ্য দিয়ে দলের রাজনীতিক নেতারা বেশ উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে সক্রিয় হয়ে উঠেছে। তবে রাজনীতিক নেতারা সক্রিয় হলেও এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ভোটারদের মধ্যে কোন উৎসাহ উদ্দীপনা দেখা যাচ্ছে। নির্বাচনকে ঘিরে তাদের মাঝে কোন আমেজ নেই। আবার অনেকে ভোটে বিষয়ে তেমন কিছুই জানেনা। তবে কেউ কেউ উপজেলা নির্বাচনের ভোটের বিষয়ে জানলেও তেমন কোন আগ্রহ নেই। উপজেলা নির্বাচনের ভোটাররা বলছেন, ‘এখন আর ভোট দিতে হয়না। এমনিতেই প্রার্থীরা পাশ হয়ে যায়। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট দেয়ার আগেই শুনেছি ভোট হয়ে গেছে। দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাঁড়িয়ে থাকার পর যদি শুনতে পাই ভোট হয়ে গেছে। তখন ভোট দেয়ার আগ্রহ কিভাবে থাকবে। তাই কেউ এখন আর ভোট নিয়ে মাথা ঘামায় না। তাই সবাই নির্বাচনের ভোট দেয়াকে বয়কট করেছে। কারণ এখন জনগণের ভোটের কোন মূল্য নেই।’ সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ‘একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটাররা অনিয়মের মধ্য দিয়ে ভোট দেয়া থেকে বঞ্চিত হয়েছে। যেকারণে নির্বাচনের ভোট প্রক্রিয়ার উপর তারা ভীষণ ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে। এর ফলে ভোট নিয়ে ভোটারদের মধ্যে কোন ধরণের আগ্রহ নেই। সেখানে উচ্ছ্বাস ও উদ্দীপনার প্রশ্নই উঠেনা। তবে উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে রাজনীতিক দলের মধ্যে ঠিকই উচ্ছ্বাস ও উদ্দীপনা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এর ফলে ভোটারহীন একটি উপজেলা নির্বাচনে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

About ডান্ডিবার্তা

View all posts by ডান্ডিবার্তা →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *