মঙ্গলবার | ২০ নভেম্বর, ২০১৮ | ৬ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ | ১১ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪০ | রাত ১১:২৭

একক সংবাদ

মনোনয়ন পত্র সংগ্রহে ড্যামী প্রার্থীরা এগিয়ে!

Habib Badal | নভেম্বর ১০, ২০১৮
ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
নারায়ণগঞ্জে নির্বাচনী আমেজে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা চাঙ্গা হতে শুরু করেছে। গত বৃহস্পতিবার একাদশ সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষনার পর পরই নারায়ণগঞ্জে নির্বাচনী মাঠ গরম হতে শুরু করে। আর আর তফসিল ঘোষনার পরের দিনই মনোনয়ন ফরম বিক্রি করেছে আওয়ামীলীগ। গতকাল শুক্রবার প্রথম দিনেই নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের বেশ কয়েকজন মনোনয়ন প্রত্যাশী মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছেন। তবে নারায়ণগঞ্জের নির্বাচনী আসনে যারা মনোনয়ন পত্র ক্রয় করেছেন তাদের অধিকাংশই ড্যামী প্রার্থী। পাঁচটি আসনে আওয়ামীলীগের মূল প্রার্থীরা গতকাল শুক্রবার মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ না করতেও ড্যামী প্রার্থীরা খুব আগ্রহের সাথেই মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছে। আর নারায়ণগঞ্জের পাঁচটি আসনের মধ্যে আওয়ামীলীগের বর্তমান তিনজন সাংসদ, শামীম ওসমান, নজরুর ইসলাম বাবু ও গোলাম দস্তগীর গাজী মনোনয়ন ফরম ক্রয় করেন নি। জানাগেছে, একাদশ সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন পেতে মনোনয়ন ফরম ক্রয় করেছেন সদর-বন্দর আসনে নৌকা প্রত্যাশী বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের জাতীয় কমিটির সদস্য এড. আনিসুর রহমান দিপু, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সুফিয়ান, ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ আসনে জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এড. আবু হাসনাত মো: শহীদ বাদলের সহধর্মীনি নাহিদা হাসনাত, আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় অর্থ ও পরিকল্পনা উপ-কমিটির সদস্য কামাল মৃধা, সোনরগাঁ আসনে সাবেক এমপি আব্দুল্লাহ আল কায়সার হাসনাত, সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক আলহাজ¦ মাহফুজুর রহমান কালাম, আড়াইহাজার আসনে মমতাজ হোসেনসহ সম্ভাব্য প্রার্থীরা। এছাড়াও জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এড. আবু হাসনাত মো: শহীদ বাদলের পক্ষে সদর-বন্দর আসনের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করা হয়েছে। এরা সবাই বিগত দিনে আওয়ামীলীগের ক্রান্তি সময়ে রাজপথে না থাকলেও নির্বাচন ইস্যুতে সবার আগেই মনোনয়ন ফরম সংগ্রহে ছুটে গেছেন। এদের কেউ কেউ একেবারেই কর্মী শূণ্য নেতা। কর্মী না থাকলেও ভাড়াটে লোক দিয়ে নির্বাচনী মাঠে নেমেছেন। একাদশ সংসদ নির্বাচককে সামনে রেখে অনেক কর্মী বিহীন নেতাও নির্বাচন করার ঘোষনা দিয়েছেন। শুধু ঘোষনাই নয়, নির্বাচনী গনসংযোগও করেনে তারা। তবে গনসংযোগে দলীয় প্রতীকের নয়, বরং নিজেদের নির্বাচনী প্রচারণা ও ফেসভেলু বাড়তে মাঠে নেমেছেন। কেননা সাধারণ ভোটার তো দূরের কথা দলের নেতা কর্মীরাও তাদের ভাল করে চিনেন না। অনুন্ধানে জানাগেছে, গতকাল শুক্রবার সদর-বন্দর আসনে নৌকা প্রত্যাশী আনিসুর রহমান দিপু মনোনয়ন ফরম ক্রয় করেছেন। আদালতপাড়ার রাজনীতিবিদ নির্বাচন ইস্যুতে সাংসদ শামীম ওসমানের বলয থেকে তার বিরোধীদের সাথে হাত মিলিয়েছেন। তাই তাকে স্থানীয় নেতারা পল্টিবাজ নেতা হিসেবেই এখন বেশি চিনেন। এই আসনে জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সুফিয়ান মনোনয়ন পত্রের ফরম ক্রয় করেছেন। নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ময়ের সেলিনা হায়াত আইভীর কল্যানে জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হয়েছেন তিনি। এরআগে তাকে সবাই সিটি কর্পোরেশনের ঠিকাদার হিসেবেই চিনতো নারায়ণগঞ্জবাসী। জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হওয়ার পরই মেযর আইভীর আশির্বাদে এমপি হওয়ার খায়েস জেগেছে সুফিয়ানের। তাই কমিটিতে স্থান পাওয়ার পর পরই জেলার বিভিন্ন স্থানে পোষ্টারও ছাটিয়েছিলেন তিনি। তবে মেয়র আইভীর আশির্বাদে নির্বাচনী মাঠে নামলেও বিএনপি-জামাতের সাথে আইভীর আতাঁতের তথ্য ফাঁদ হয়ে যাওয়ায় সুফিয়ান এখন চিন্তিত হয়ে পড়েছেন। মনোনয়ন পত্র সংগ্রহে শহরবাসীকে তাক্ লাগিয়েছেন আবু হাসনাত শহিদ বাদল। তার পক্ষে সদর-বন্দর আসনে মনোনয়ন পত্র ফরম সংগ্রহ করার পাশাপামি তার সহধর্মীনি নাহিদা হাসনাত ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ আসনে মনোনয়ন পত্র সঙগ্রহ করেছেন। যা নিযে সর্বত্র আলোচনা চলছে। শামীম ওসমানের বন্ধু হিসেবে পরিচিত ভিপি বাদল পল্টিবাজীর চমক দেখিয়েছেন বলে মন্তব্র করেছেন অনেকে। ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ আসনে আরো মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছেন আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় অর্থ ও পরিকল্পনা উপ-কমিটির সদস্য আলোচিত সমালোচিত ও বিতর্কিত কামাল মৃধা কামাল মৃধা। ১৯৯৫ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর কামাল মৃধা আনুষ্ঠানিক ভাবে বিএনপিতে যোগ দেন। ২০০২ সালে যৌথবাহিনীর অপারেশন ক্লিনহার্টের সময় দেশ ত্যাগ করেন। গত চার বছর আগে দেশে এসে বিএনপির চেযারপার্সনের সাথে দেখাও করেন তিনি। সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জে মেট্রো রেলের দাবীতে সরব হন তিনি। হঠাৎই নির্বাচন করার ঘোষনা দেন তিনি। কর্মীবিহীন নেতা কামাল মৃধা বরাবরই বিভিন্ন ঘটনার জন্মদিয়ে সমালোচিত হয়েছেন। সোনরগাঁ আসনে সাবেক এমপি আব্দুল্লাহ আল কায়সার হাসনাত ও সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক আলহাজ¦ মাহফুজুর রহমান কালাম নির্বাচনকে সামনে রেখে রাজপথে বেশ সক্রিয় হযেছেন। কিন্তু দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের এক বছর পর সাড়া দেশের ন্যায় নারায়ণগঞ্জেও বিএপি-জামাত নাশকতা চালিয়েছিল তখন তাদের রাজপতে দেখা যায়নি। তবে মাঠ পর্যায়ে সোনারগাঁ আসনে জনসমর্থনে এগিয়ে রয়েছেন মাহফুজুর রহমান কালাম। স্থানীয় আওয়ামীলীগের কর্মীরা বলছেন, নিস্ক্রীয়রাই মনোনয়ন পত্র সংগ্রহে সবার আগে এগিয়ে রয়েছেন। তবে দল যোগ্য ব্যক্তিকেই আগামীতে দলীয় প্রতীক ‘নৌকা’ দিবে এটা শতা ভাগ নিশ্চিত। তবে যারা মনোনয়নের জন্য এদিক সেদিক ছুটছেন তারা মূলত কিছু সুবিধা আদায়েই সরব হয়েছে। গতকাল শুক্রবার যারা মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছেন তাদের অধিকাংশই রাজনীতিতে দূর্বল নেতা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © দৈনিক ডান্ডিবার্তা, ওয়েব ডিজাইন: মো: নাসিরউদ্দিন-০১৭১২৫৭৪৯৯০

top