বুধবার | ২১ নভেম্বর, ২০১৮ | ৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ | ১১ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪০ | রাত ১২:২৬

একক সংবাদ

‘নৌকা’ নিয়ে চলছে টানাটানি

Habib Badal | নভেম্বর ১০, ২০১৮
ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
আগামী সংসদ নির্বাচন যত ঘনিয়ে আসছে ক্ষমতাসীন দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সংখ্যা ততই বেড়ে চলেছে। নারায়ণগঞ্জের ৫টি আসনে এ পর্যন্ত অন্তত ৩৫ জনের বেশী মনোনয়ন প্রত্যাশী নিজেদের আগামী নির্বাচনে নৌকার মাঝি হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। কেউ কেউ ইতিমধ্যে নির্বাচনী প্রচারণায় মাঠ গরম করে তুলেছে। এরই মধ্যে নির্বাচনের তফসিল ঘোষনার পর গতকাল শুক্রবার মনোনয়ন ফরম বিক্রি করছে আওয়ামীলীগ। এখনও ৫টি আসনের সম্ভাব্য প্রার্থীদের সম্পর্কে ক্ষমতাসীন দলের কেন্দ্র থেকে কাউকে গ্রীণ সিগন্যাল না দিলেও মনোনয়ন প্রত্যাশীদের বেশ কয়েকজন গতকাল শুক্রবার মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন।এদিকে, আওয়ামীলীগের মিত্রদল জাতীয়পার্টি ইতিমধ্যে ৭০টি আসন দাবি করেছেন। সেই হিসাবে জাতীয়পার্টির সাথে আওয়ামীলীগ ঐক্যবদ্ধ ভাবে নির্বাচন করার ঘোষনা দিয়েছে সংলাপের মাধ্যমে। তাই নারায়ণগঞ্জের দুইটি আসন ছেড়ে দেয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে আওয়ামীলীগের একাধিক সূত্রে জানাগেছে। যদিও নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের শীর্ষ নেতারা কোন অবস্থাতেই ৫টি আসনের একটিও জাতীয়পার্টিকে ছাড়তে নারাজ। এমনকি জাতীয় পার্টির দখলে থাকা আসনে মনোনয়ন পত্র ফরম ক্রয় করেছেন আওয়ামীলীগের একাধিক মনোনয়ন প্রত্যাশী। তবে নির্বাচন নিয়ে বিএনপি এখনও অনেকটাই নিশ্চুপ। তারা দলীয় চেয়ারপর্সান বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি নিয়ে বেশী চিন্তিত। তবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে থেকে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবীতে সরব হচ্ছে বিএনপির নেতারা। সম্প্রতি ঢাকা ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশে বিশাল শো-ডাউন করেছে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি।  অপর দিকে আওয়ামীলীগ ৩শ’ আসনে তাদের প্রার্থী যাচাই বাছাই করে চলেছে। জাতীয়পার্টিও এক্ষেত্রে বসে নেই। আগামী দশ দিনের মধ্যে প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করবে আওয়ামীলীগ। জানাগেছে, নারায়ণগঞ্জের ৫টি আসনের মধ্যে সদর-বন্দর আসনটি একটি গুরুত্বপূর্ন আসন। এ আসনে বর্তমানে এমপি রয়েছেন জাতীয়পার্টি থেকে নির্বাচিত একেএম সেলিম ওসমান। তিনি বিকেএমইএ এর সভাপতিও বটে। এই আসনের সাংসদ নাসিম ওসমানের আকষ্মিক মৃত্যুতে ২০১৪ সালের ২৬ জুন সদর-বন্দর আসনের উপ-নির্বাচনে তিনি জাতীয়পার্টির লাঙ্গল প্রতীকে নির্বাচন করে এমপি নির্বাচিত হন। তার প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন নাগরিক ঐক্যের নেতা সাবেক এমপি এসএম আকরাম। আগামী সংসদ নির্বাচনে এ আসন থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশা করে মাঠে নেমেছেন কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের নির্বাহী পরিষদ সদস্য অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান দিপু ও নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহা। এছাড়াও মনোনয়ন প্রত্যাশা নিয়ে কাজ করছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহীদ বাদল, মহানগর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক জিএম আরাফাত, কেন্দ্রীয় শ্রমিকলীগের সভাপতি শুক্কুর মাহামুদ, জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আরজু রহমান ভুইয়া, আবদুল কাদির, জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম আবু সুফিয়ান। এদের মধ্যে আনিসুর রহমান দিপু ও সুফিয়ান ইতিমধ্যে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। তবে সদর-বন্দর আসনে বর্তমান সাংসদ সেলিম ওসমান শিক্ষা ক্ষেত্রে আমুল পরিবর্তনসহ ব্যক্তিগত তহবীল থেকে বিপুল অংকে অর্থ ব্যায়ে ৭টি স্কুলসহ ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকান্ড করেছেন। ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ আসনে আওয়ামীলীগের শক্তিশালী প্রার্থী একেএম শামীম ওসমান। এ আসনটিতে গত নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়া শামীম ওসমানের বিরুদ্ধে শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বি না থকলেও শ্রমিকলীগের কাউসার আহাম্মেদ পলাশ মনোনয়ন চাইবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন। যদিও সাংবাদিকদের সাথে তার বির্তকিত আচরণের কারণে কেন্দ্রে তার অবস্থা অনেকটাই নড়বড়ে বলে জানাগেছে। এর আগে যখন শুধুমাত্র ফতুল্লা থানা নিয়ে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসন ছিল তখন এ আসনের এমপি ছিলেন চিত্র নায়িকা সারাহ বেগম কবরী। শামীম ওসমান এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর এ এলাকায় কবরীকে আর দেখা যায়নি। তবে গতকাল আসনে দুইজন আওয়ামীলীগের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। সোনারগাঁ আসনে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন পেয়েছিলেন উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন। আওয়ামীলীগ জাতীয়পার্টিকে আসনটি ছেড়ে দিলে মোশারফ হোসেন মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার করে নেন। এতে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি নির্বাচিত হন জাতীয়পার্টির কেন্দ্রীয় সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব লিয়াকত হোসেন খোকা। তবে এবার আওয়ামীলীগ এ আসনটি ছাড়তে নারাজ। তবে এ আসনে বর্তমান এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা তার অবস্থান সুদৃঢ়সহ বিভিন্ন জনপ্রতিনিধিদের তার পক্ষে টানতে সক্ষম হয়েছেন। যদিও এ আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশা করে মাঠে নেমেছেন সাবেক এমপি আব্দুল্লাহ আল কায়সার হাসনাত ও উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান কালাম। এরা দুইজনও মনোনয়ন ফরম ক্রয় করেছেন। আড়াইহাজার আসনে বর্তমান এমপি হলেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম বাবু। গত নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সহ টানা দু’বার এ আসনে নজরুল ইসলাম বাবু এমপি হন। তিনি আবারো মনোনয়ন চাইবেন। সেই লক্ষ্যেই কাজ করে চলেছেন। এ আসনের বিভিন্ন এলাকায় নিয়মিত প্রচারনা চালাচ্ছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় যুবলীগের তথ্য যোগাযোগ বিষয়ক সম্পাদক ইকবাল পারভেজ। এছাড়া মাঠে নেমেছেন সাবেক রাষ্ট্রদূত ও কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সাবেক ত্রাণ দূর্যোগ মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক মমতাজ হোসেন। এদের মধ্যে মমতাজ গতকাল মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছেন।  রূপগঞ্জ আসনে বর্তমান আওয়ামীলীগের এমপি গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীক। আগামী নির্বাচনেও নিজের দলীয় মনোনয়ন নিশ্চিত করতে তৎপর রয়েছেন। প্রতিপক্সকে ঘায়েল করতে নানা কৌশল অবলম্বন করছেন।তার বিরুদ্ধে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী সেক্টর কমান্ডার ফোরাম সভাপতি ও সাবেক সেনা প্রধান সাবেক এমপি কেএম শফিউল্লাহ, জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জেলা পরিষদের সাবেক প্রশাসক আবদুল হাই, উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন মোল্লা ও সাধারণ সম্পাদক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহজাহান ভুইয়া, কায়েতপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম ও বসুন্ধরা গ্রুপের সায়েম ছোবহান আনভীর মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করবেন বলে জানাগেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © দৈনিক ডান্ডিবার্তা, ওয়েব ডিজাইন: মো: নাসিরউদ্দিন-০১৭১২৫৭৪৯৯০

top