মঙ্গলবার | ২০ নভেম্বর, ২০১৮ | ৬ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ | ১১ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪০ | রাত ১১:৫৫

একক সংবাদ

স্বামী-স্ত্রীর পল্টিতে শহর জুড়ে আলোচনায়

Habib Badal | নভেম্বর ১০, ২০১৮
ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
যাদের হাত ধরে রাজনীতিতে ক্যারিয়ার গড়েছেন সরকারী তোলারাম কলেজের সাবেক ভিপি এড. আবু হাসনাত মো: শহীদ, যেই বন্ধুর প্রচেষ্টায় হয়েছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক, এবার সেই বন্ধুসহ তাঁর বড় ভাই অর্থাৎ ওসমান ভ্রাতৃদ্বয়ের সাথেই স্বস্ত্রীক এই ভিপি বাদল দিলেন পল্টি। আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সদর-বন্দর আসনে নৌকা প্রত্যাশায় এতদিন উক্ত আসনের জাতীয় পার্টির এমপি সেলিম ওসমানের বিরুদ্ধে অবস্থান নিলেও এবার বন্ধু ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ আসনের আওয়ামীলীগের এমপি শামীম ওসমানের বিপক্ষেও নিজের সহধর্মীনি নাহিদা হাসনাতকে দাঁড় করিয়ে দিলেন ভিপি বাদল। গতকাল শুক্রবার দুপুরে ধানমন্ডিতে আওয়ামীলীগের কার্যালয় থেকে ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ আসনে নৌকা প্রত্যাশায় মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেন নাহিদা হাসনাত। যা বিভিন্ন অনলাইন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার নারায়ণগঞ্জের আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে বেশ আলোড়নের সৃষ্টি হলেও স্থানীয় একটি অনলাইন গণমাধ্যমের কাছে নাহিদা হাসনাত দাবী করেছেন যে তিনি মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করতে গিয়েছিলেন ঠিকই কিন্তু এখনো অবদি মনোনয়ন পত্র ক্রয় করতে পারেন নি। অথচ ছবিতে দেখাগেছে, নাহিদা হাসনাত মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করতে যাবতীয় কার্যাদি সম্পন্ন করেছেন। আর তখন তার পাশে ছিলেন, সদর-বন্দর আসন থেকে মনোনয়ন ক্রয় করা বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের জাতীয় কমিটির সদস্য এড. আনিসুর রহমান দিপু, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সুফিয়ান, শহর যুবলীগের সাধারন সম্পাদক আলী আহাম্মদ রেজা উজ্জল। জানাগেছে, বিগত ২০১৪ সালে জাতীয় পার্টির এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর নারায়ণগঞ্জ কলেজের সভাপতি পদে থাকা এড. আবু হাসনাত মো: শহীদ বাদলকে কয়েক বছর পূর্বে সেখান থেকে সরিয়ে কলেজ পরিচালনার দায়িত্ব নেন এমপি সেলিম ওসমান। আর এরপর থেকেই সেলিম ওসমানের সাথে সম্পর্কে কিছুটা দুরত্বের সৃষ্টি হয় ভিপি বাদলের। তারপর আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জের ৫টি আসনে জাতীয় পার্টিকে আর ছাড় না দেয়ার লক্ষ্যে দলের অন্যান্য শীর্ষ নেতৃবৃন্দের পাশাপাশি ভিপি বাদলও অনড় অবস্থানে চলে যান। রীতিমত একাধিকবার সেলিম ওসমানের সাথে বাকযুদ্ধে লিপ্ত হয়ে পড়েন তিনি। কিন্তু ছাত্রজীবনের বন্ধু শামীম ওসমানের হাত ধরে রাজনীতিতে অগ্রসর হলেও এবার সেই বন্ধুর বিরুদ্ধেই নিজের স্ত্রীকে নামিয়ে দিলেন ভিপি বাদল। যা নিয়ে শামীম ওসমান অনুসারীদের মধ্যে বেশ সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে। কেউ কেউ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে মন্তব্য করেন, ‘দুধ কলা খাইয়ে শামীম ওসমান যে এতদিন কালসাপ পুষছিল, এবার তাঁর পালিত কালসাপই তাঁকে শেসতক ছোবল মেরে দিল।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © দৈনিক ডান্ডিবার্তা, ওয়েব ডিজাইন: মো: নাসিরউদ্দিন-০১৭১২৫৭৪৯৯০

top