মঙ্গলবার | ২০ নভেম্বর, ২০১৮ | ৬ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ | ১১ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪০ | রাত ১১:১৬

একক সংবাদ

ডাক বাংলোর কারণে ফতুল্লা সড়কে যানজট

Badal-nj | নভেম্বর ০১, ২০১৮

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

নারায়ণগঞ্জর ব্যস্ততম জায়গা হচ্ছে কলেজ রোড এলাকা। নারায়ণগঞ্জের প্রধান দুইটি সরকারি কলেজ অবস্থিত এখানে। কলেজের শিক্ষার্থীসহ অসংখ্য মানুষের চলাচল এই সড়কটি দিয়ে। কিন্তু সড়কটিতে প্রতিনিয়ত লেগেইে থাকে যানজট। ঢাকা-পাগলা-নারায়ণগঞ্জ সড়কে প্রতিনিয়ত চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন স্কুল, কলেজের শিক্ষার্থী সহ অসংখ্য মানুষ। ভুক্তভোগী পথচারীদের মাধ্যমে জানা যায়, যানজটের মূল কারণ হচ্ছে জেলা পরিষদের ডাক বাংলা ভবন। কলেজ রোড মোড় ঘেঁষে ডাক বাংলার ভবনটি এমন ভবে নির্মাণ করা হয়েছে যে সীমানার দেয়াল রাস্তার উপর চলে এসেছে। ফুটপাতের জন্য সামান্য পরিমান জায়গা এখানে রাখা হয়নি। রাস্তা দিয়েই চলাচল করতে হয় পথচারীদের। ডাক বাংলার উচু দেয়ালের জন্য মোড়ের এক পাশ থেকে অন্য পাশ দেখা যায় না। যে কারণে গাড়ি ধীর গতিতে চালাতে হয়। যা যানজট সৃষ্টির অন্যতম কারণ। এছাড়া রয়েছে যত্রতত্র রিকশা থামিয়ে রাখা। এর থেকেও বেশি ভয়াবহ অবস্থা কলেজ রোড মোড় থেকে চাষাঢ়া পুলিশ ফাঁড়ির সামনে দিয়ে সরকারি মহিলা কলেজ পর্যন্ত সম্পূর্ণ সড়ক। এই সামান্য জায়গাতে ফুটপাত একেবারেই নেই। ফুটপাতহীন এই সড়ক দিয়ে দুই কলেজের হাজার হাজার শিক্ষার্থী সহ অসংখ্য মানুষ প্রতিনিয়ত মৃত্যু ঝুঁকি নিয়ে যাতবাহনের সাথে গা ঘেঁষে সড়কের উপর দিয়েই চলাচল করে। সামান্য বৃষ্টি হলে সড়কটি আরো ভয়াবহ অবস্থায় চলে যায়। তখন সড়কের এক পাশে পানি জমে কাঁদা-জলে একাকার হয়ে যায়। তখন রাস্তার কোনা দিয়ে পয়ে হাঁটার ব্যবস্থা থাকে না। ঝুঁকি নিয়ে মাঝ রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে হয় সাধারণ পথচারীদের। এমতাবস্থায় যে কোনো সময় ঘটতে পারে ভয়ংকর দুর্ঘটনা। মাঝেমাঝে কলেজ রোড মোড়ে এমন ভয়াবহ যানজট লাগে যে কলেজ শিক্ষার্থীদের চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ভোগান্তি প্রসঙ্গে তোলারাম কলেজের দ্বাদশ শ্রেনির ছাত্র তনময় ইসলাম জানায়, প্রাক নির্বাচনি পরীক্ষার সময় কলেজের সামনে ভয়াবহ যানজট তৈরী হয়েছিল। তখন কলেজ থেকে বাইরে বা বাইরে থেকে ভিতরে হওয়া যায় না। প্রচুর দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছিল আমাদের। দীর্ঘদিন ধরেই কলেজ রোড মোড়ের অবস্থা ভয়াবহ। কিন্তু কর্তৃপক্ষ দেখেও যেন না দেখার ভান করে আছেন। এই জায়গার যানজট নিয়ে নাগরিক কমিটি বিবৃতি দিয়েছেন অনেকবার। কিন্তু তাতেও কোনো লাভ হয়নি। প্রতিবারেরমত এবারও হয়তো একটা ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটার পরেই টনক নড়বে কর্তৃপক্ষের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © দৈনিক ডান্ডিবার্তা, ওয়েব ডিজাইন: মো: নাসিরউদ্দিন-০১৭১২৫৭৪৯৯০

top