Home » শেষের পাতা » বাজার মনিটরিংয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত

আমার সুইপারদের নিয়ে রাজনীতি করা হচ্ছে: আইভি

১৮ মার্চ, ২০২৩ | ৩:১০ অপরাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 34 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভি বলেছেন, শেষ পর্যন্ত কিছু না পেয়ে আমার সুইপারদের নিয়ে রাজনীতি করা হয়েছে। এমন বড় নেতাদের এই ধরনের নোংরা রাজনীতি শোভা পায় না। গতকাল শুক্রবার জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০৩তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে শহরের ২নং রেলগেট এলাকায় নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় অংশ নিয়ে একথা বলেন তিনি। তিনি বলেন, ১৯৮১ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে প্রথম ঢাকার বাইরে নারায়ণগঞ্জে সংবর্ধনা দিয়েছিল আলী আহমদ চুনকা। ঠিক সেই দিনই কতিপয় নেতা এই ঢাকা ফতুল্লার মোড়ে ময়লা ফেলে রেখেছিল। সেই সংবর্ধনায় সেদিন কী হয়েছিল নারায়ণগঞ্জবাসী জানে সেই ইতিহাস। আমি চাই না সে-ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি হোক। আমি এত নিচে নামতে পারবো না। তিনি আরও বলেন, আমরা বঙ্গবন্ধুকে শ্রদ্ধা করি। বঙ্গবন্ধু আমাদের আদর্শ। আমাদের সেই আদর্শ নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে। শেখ হাসিনা জনগণের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য কাজ করছে। আমাদের সকলের উচিত মানুষের কাছে এটা পৌছে দেয়া। ইয়াং জেনারেশন এখন মিথ্যা অভিনয় পছন্দ করে না। তিনি বলেন, শেখ হাসিনা নারীদের শক্তিশালী করতে অনেক কাজ করছেন। আপনারা অনেকেই হয়ত জানেন না। এমন কোন জেলা নেই যেখানে উন্নয়নের ছোয়া নেই। নির্বাচন আসলেই অনেক ষড়যন্ত্র শুরু হয়ে যায়। এগুলো প্রতিহত করতে হলে মানুষের কাছে যেতে হবে। শুধু ধাপ্পাবাজি করা আর একজনের পেছনে আরেকজনকে লাগিয়ে দেয়া হলে হবেনা। তিনি বলেন, আজ যারা এ শহরে জমিদারি করছে তাদের জমিদারির অবসান ঘটাতে চাই। লুটপাট করতে পারবো না কিন্তু আপনাদের অপকর্মের জবাব আমি দিতে পারবো। সকল কাজে বাধা দেন মেনে নেই। কিন্তু এগুলো বরদাস্ত করবো না। প্রধানমন্ত্রী আপনার পরিবারের প্রশংসা করে বলে হাতির পাঁচ পা দেইখেন না। কেন প্রশংসা করো সেটা বোঝার চেষ্টা করবেন। আপনার পূর্ব পুরুষদের জন্য করে। মানুষের কাতারে আসুন। নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই বলেছেন, দল ক্ষমতায়। অনেক কাউয়া দলে ঢুকেছে। তাদের ব্যাপারে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে। তারা পদ পদবী চায়। তাদের উদ্দেশ্য আমাদের উন্নয়নকে বাধা সৃষ্টি করা। তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী স্মার্ট শহর গড়তে চান। কিছু অনুপ্রবেশকারীর কারণে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সেই কর্মসূচি বাধাগ্রস্ত হোক এটা আমরা চাই না। তিনি আরও বলেন, এই পৃথিবী যতদিন থাকবে ততদিন আমার নেতার নাম থাকবে। অনেকে বলেছিল ৭ মার্চের জনসভার আগে, নেতা আজ স্বাধীনতার ঘোষণা দিতেই হবে। তিনি বলেছিলেন জনগণ আমাকে নেতা বানিয়েছে। আমি তাদের নেতৃত্ব দেব, তারা আমাকে নেতৃত্ব দিবে না। নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম বলেছেন, দুইদিন আগে আমাদের নারায়ণগঞ্জের একজন প্রভাবশালী নেতা দায়িত্বশীল পদে থেকে দায়িত্বশীল কথা না বলে ইভটিজিং করতে বখাটে যুবকদের লেলিয়ে দিচ্ছেন। বিয়ে না দিলে ভাগায় আনার কথা বলেছেন। লজ্জা লাগে নারায়ণগঞ্জবাসীর। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন সোনার বাংলা গড়তে হলে সোনার মানুষ চাই। আজকের শিশুরা আগামীতে সোনার বাংলা গড়বে এটাই আমরা আশা করি। তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শিশু ও নারীদের ওপর ইউটিজিং হলে সেটা প্রতিহত করার জন্য বলেন। সেখানে আমাদের একজন সাংসদ এ ধরনের কথা বলতে পারে না। তিনি বখাটে ছেলেদের উস্কে দিচ্ছেন। তারা বলবে আমাদের সংসদ সদস্য ভাগিয়ে নিয়ে আসতে বলেছেন। তাদের লজ্জা হওয়া উচিত। তাদের মাথা লোপ পেয়েছে। তিনি বলেন, আমরা নারায়ণগঞ্জের পাঁচটি আসনে নৌকা চাই। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা জাতীয় পার্টির হাতে লাঞ্ছিত ও বঞ্চিত হচ্ছে। আমি এই বার্তাটা পৌছে দেয়ার জন্য নেতাদের প্রতি আবেদন জানাচ্ছি।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *