Home » প্রথম পাতা » শ্রী কৃষ্ণের জন্মাষ্টমী আজ

ঈদকে সামনে রেখে মাদকের মজুদ বাড়াচ্ছে মাদক সিন্ডিকেটরা

০৬ জুলাই, ২০২২ | ৯:৫৬ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 23 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট ঈদকে সামনে রেখে ফতুল্লার দাপা ইদ্রাকপুর রেলস্টেশন, জোড়পুল, ব্যাংক কলোনী, পিলকুনীসহ আশপাশ এলাকার মাদক ব্যবসায়ীরা সংঘবদ্ধ হয়ে মজুদ করছে হেরোইন, গাজাঁ, ফেনসিডিল, ইয়াবা ট্যাবলেটসহ বিদেশী মদ-বিয়ার। স্থানীয়দের তথ্য মতে, ফতুল্লার দাপা -শিয়াচরের বালুর মাঠ, রেলস্টেশন, জোড়পুল, পিলকুনী, মাদ্রাসা রোড, আদর্শ স্কুল গলি, নতুন ক্যালিক্স-পুরাতন ক্যালিক্স স্কুল গলি, খাঁ বাড়ীসহ আশপাশ এলাকার ছোট বড় সকল মাদক ব্যবসায়ীরা ঈদকে সামনে রেখে অধিক লাভের আশায় মজুদ করতে শুরু করেছে মাদক। নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র মতে, গত কয়েক দিনে বেশ কয়েকটি মাদকের চালান এসেছে দাপা রেলস্টশন এলাকার সাইকেল লিটনের পুত্র রিফাত ওরফে ভাতিজা রিফাত, গরু নাসিরের পুত্র শান্ত ও জাকিরের সমম্বয়ে গড়ে উঠা সিন্ডিকেটের নিকট। জেলা গোয়েন্দা পুলিশের সাথে বন্দুক যুদ্ধে নিহত ডাকাত লিপুর ভাই শির্ষ মাদক ব্যবসায়ী ডাকাত শাহিন ও তার ভাতিজা আলামিনের নিকট গত তিনদিনে একাধিক হেরোইনের চালান এসেছে বলে একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে। স্থানীয়রা জানায়, ডাকাত শাহিন ও ভাতিজা আলামিনের  হয়ে মাদক বেচা-কেনায় সক্রিয় রয়েছে প্রায় অর্ধ শতাধিক সেলসম্যান। আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযান কখনো কখনো মাদক নিয়ে গ্রেফতার হলেও এই দুই শির্ষ মাদক ব্যবসায়ী রয়ে যায় প্রশাসনের ধরা ছোয়ার বাইরে। অপরদিকে রেলস্টেশন মসজিদের পেছেনের বালুর মাঠ, আজাদ মিয়ার গলি, ওরিয়েন্টাল বালুর মাঠ এলাকায় শান্ত, ভাতিজা রিফাত ও জাকিরের নেতৃত্বে গড়ে উঠা মাদক সিন্ডিকেটে প্রায় ২০-২৫ জনের সদস্য রয়েছে। এরা খুচড়া হিসেবে স্থানীয় মাদক সেবীদের নিকট তা সরবরাহ করে থাকে। এই মাদক বাজারের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে প্রায় সময় সংঘর্ষ হয় প্রতিপক্ষ একাধিক গ্রুপের সাথে। গত ১০-১২ দিন পূর্বে এই মাদক স্পটের সামনেই সিনিয়র-জুনিয়র দ্বন্ধে খুন হয় এক কিশোর। এরপর শান্ত,ভাতিজা রিফাত ও জাকির আতœগোপনে চলে যায়। পরিস্থিতি কিছুটা শান্ত হলে তারা এলাকায় ফিরে এসে আবারো মাদক কারবারে সক্রিয় হয়ে পরেছে। স্থানীয় একাধিক মহলের মতে, মাদক বাজার নিয়ন্ত্রণে তাদের রয়েছে উঠতি বয়সী এক শ্রেনীর মাদকাসক্ত সন্ত্রাসী বাহিনী। তাদের নিকট থেকে সুবিধা নিয়ে সকল প্রকার সহোযোগিতা করে আসছে বিশেষ পেশার একাধিক ব্যক্তি সহ থানা পুলিশর একাধিক সোর্স এমনটাই অভিযোগ স্থানীয়বাসীর।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *