Home » শেষের পাতা » অধিগ্রহণ হচ্ছে নদীর জমি

ঈদের পরে নারায়ণগঞ্জে ৮ লাশ

২৮ জুলাই, ২০২১ | ১২:২৮ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 102 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

ঈদের পর থেকে এ পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জে ৮টি লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ফতুল্লা, রূপগঞ্জ ও বন্দরে অজ্ঞাত লাশ, ঝুলন্ত লাশ ও সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়ে মারা যাওয়াদের লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায় পুলিশ। গত সোমবার দুপুরে ফতুল্লায় রুপা আক্তার (১৩) নামক এক কিশোরীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত কিশোরী কিশোরগঞ্জ জেলার মিঠামাইন থানার ঢাকি পূর্ব পাড়ার জলিল মিয়ার মেয়ে। তারা স্ব-পরিবারে ফতুল্লা থানার নরসিংপুরের হুমায়ুন মিয়ার বাড়ীতে ভাড়ায় বসবাস করে। নিহত কিশোরীর পিতা জলিল জামায় সে একজন সাধারণ দিন মজুর। প্রতিদিনের মতো সে সোমবার সকাল সাড়ে ৬ টার দিকে বাসা থেকে কাজের উদ্দেশ্যে বের হয়। বেলা সাড়ে ৩টার দিকে তার স্ত্রী  মেয়েকে ঘরে রেখে পানি আনতে বাইরে যায়। কিছুক্ষন পর বাসায় ফিরে এলে তার স্ত্রী দেখতে  পায় ঘরের আড়ার  সাথে ওড়না পেচানো তার মেয়ের ঝুলন্ত লাশ। তার মেয়ে মানসীক প্রতিবন্ধী ছিলো বলে তিনি জানান। গত শনিবার ফতুল্লার আলীগঞ্জ মধ্যপাড়ার হযরত মিয়ার ভাড়াটিয়া বাসা থেকে জাহিদ (২০) নামক এক যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত জাহিদ বরিশাল জেলার রাঙ্গাবালী থানার জালাল মিয়ার পুত্র ও ফতুল্লা থানার আলীগঞ্জ মধ্যপাড়ার হযরত মিয়ার ভাড়াটিয়া। নিহত জাহিদ মাদকাসক্ত ছিলো বলে স্থানীয়রা জানায়। নিহতের স্ত্রী সাথী (১৮) জানায়, গত শনিবার দুপুরে তার স্বামী তার নিকট থেকে ৫০০ টাকা দাবী করে।তার নিকট টাকা নেই বললে তার স্বামী তার মায়ের নিকট থেকে টাকা চেয়ে আনতে বলে। তার মায়ের নিকট ও টাকা নেই বলে জানিয়ে দেয়।মাগরিবের আজানের পর ঘরে স্বামীকে রেখে সাথী হাড়ি-পাতিল, প্লেট ধোয়ার জন্য ঘরের বাইরে যায়। সেখান থেকে ফিরে এসে তিনি দেখতে পান ঘরের আড়ার সাথে গলায় ওড়না পেঁচানো তার স্বামীর ঝুলন্ত দেহ। পরে ঘরে থাকা বটি দিয়ে ফাঁস দেওয়া ওড়না কেটে ঝুলন্ত দেহ নামিয়ে নারায়নগঞ্জ জেনারেল (ভিক্টোরিয়া) হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তার স্বামীকে মৃত ঘোষনা করে। ফতুল্লা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ রকিবুজ্জামান জানান, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে বিষয়টি আতœহত্যা। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে পেলে নিশ্চিত হয়ে পরবর্তীতে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে তিনি জানান। গত শনিবার বন্দরের মদনগঞ্জে বসুন্ধরা ইন্ড্রাষ্ট্রিয়াল কোম্পানীর সুউচ্চ সিলোর উপর থেকে পড়ে গিয়ে চয়ন (২০) নামে এক পরিচ্ছন্ন কর্মীও মৃত্যু হয়েছে। নিহত চয়ন ফরিদপুর জেলার সালতা থানার আবু বকর মিয়ার ছেলে। সে মদনগঞ্জের কবির মিয়ার ভাড়া বাড়িতে থেকে বসুন্ধরা ইন্ড্রাষ্ট্রিয়াল কোম্পানীতে পরিচ্ছন্ন কর্মী হিসেবে চাকুরী করছিল। জানাগেছে, বসুন্ধরা ইন্ড্রাষ্ট্রিয়াল কোম্পানী লকডাউনকালীন সময়ে উৎপাদন জনিত সকল কর্মকান্ড বন্ধ ছিল। কিন্তু ব্যবস্থাপনা বিভাগের কিছু অফিস খোলা ছিলো। গত শনিবার দুপুরে বসুন্ধরা ইন্ড্রাষ্ট্রিয়াল কোম্পানীর সুউচ্চ সিলোর উপর থেকে আকস্মিক একজন নিচে মাটিতে পড়ে যায়। সাথে সাথে তার মাথা ও সর্বাঙ্গ ছিন্নবিছিন্ন হয়ে রক্ষাক্ত জখম হয়। হটাৎ একটা চিৎকার শুনে বসুন্ধরা কোম্পানীর স্টাফরা ছুটে এসে দেখে পরিচ্ছন্ন কর্মী চয়নের রক্তাক্ত দেহ মাটিতে পড়ে আছে।  সাথে সাথে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করলেও ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যুর সংবাদ নিশ্চিত করেছে বসুন্ধরা কোম্পানীর অফিস কর্তৃপক্ষ। এদিকে চয়নের মৃত্যু সংবাদ শুনে মদনগঞ্জ এলাকার কিছু বিক্ষুব্দ জনতা বসুন্ধরা ইন্ড্রাষ্ট্রিয়াল কোম্পানীর অফিসকে লক্ষ করে বাইরে থেকে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে অফিসের জানালার গ্লাস ক্ষতি সাধনের চেষ্টা করে। খবর পেয়ে বন্দর থানার ওসি দীপক চন্দ্র সাহা ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি শান্ত করেন। গত বুধবার ঈদের দিন রূপগঞ্জে অজ্ঞাত এক বৃদ্ধের (৫০) লাশ উদ্ধার করেছে ভোলাব ফাঁড়ির পুলিশ। গত বুধবার রাত ৮টার  দিকে উপজেলার কাঞ্চন পৌরসভার গাজীপুর-চট্টগ্রাম এশিয়ান হাইওয়ে সড়কের চরপাড়া এলাকা থেকে ওই অজ্ঞাত বৃদ্ধের উদ্ধার করা হয়। জানা গেছে, কাঞ্চন পৌরসভার চরপাড়া এলাকার গাজীপুর-চট্টগ্রাম এশিয়ান হাইওয়ে সড়কের পাশে অজ্ঞাত বৃদ্ধের লাশ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দেয়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ মর্গে পাঠায়। গত শুক্রবার রূপগঞ্জে অজ্ঞাত এক যুবকের (৪০) অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেছে ভূলতা ফাঁড়ির পুলিশ। গত শুক্রবার বেলা ১২টার দিকে ভূলতা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ নাজিম উদ্দিনের নেতৃত্বে এসআই মিন্টু বৈদ্য ও এএসআই উত্তম কুমার উপজেলার গোলাকান্দাইল ইউনিয়নের গাজীপুর-চট্টগ্রাম এশিয়ান হাইওয়ে সড়কের কুশাব-টেংরা টেক এলাকা থেকে  ওই  লাশ উদ্ধার করেন। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত শুক্রবার সকালে উপজেলার গোলাকান্দাইল ইউনিয়নের কুশাব-টেংরা টেক এলাকার গাজীপুর-চট্টগ্রাম এশিয়ান হাইওয়ে সড়কের পাশে অজ্ঞাত যুবকের অর্ধগলিত লাশ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দেয়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ বেলা ১২টার দিকে লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ মর্গে পাঠায়। বন্দরে গত শুক্রবার বিকালে তিনগাঁও এলাকায় মটর সাইকেলের সাথে অটো রিক্সার ধাক্কায় তিন আরোহী আহত হন। এদের মধ্যে আবু সাঈদ ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। গত শুক্রবার বিকেল বন্দরে ২৪ নং ওয়ার্ডস্থ বক্তারকান্দী এলাকার আলী হোসেন মুন্সীর তিন ছেলে একটি মটর সাইকেলে কাইকেরটেক যাওয়ার পথে অটোর ধাক্কায় আহত হন। আহতদেরকে চিকিৎসার জন্য দ্রুত ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। আহতারা হলেন মোঃ আবু সাঈদ(২১), মোঃ সাইফুল(২২), মোঃ শরিফ হোসেন(২৩)। গত শনিবার বিকেলে আবু সাঈদ চিকিৎসাধিন অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যায়। সাইফুল ও শরিফ এখনো আশঙ্কা  জনক অবস্থায় চিকিৎসাধিন রয়েছে। গত সোমাবার পাগলার মুন্সিখোলায় একটি রি-রোলিং মিলে গত সোমবার বিকাল পৌন ৪টায় ওই ঘটনা ঘটে। নিহত ওই যুবকের নাম আলমগীর। সে ফতুল্লার মৃত আবুল হোসেনের ছেলে। স্থানীয়রা জানান, বন্ধ কারখানায় জমে থাকা পানি বের করতে বৈদ্যুতিক মোটরে সুইচ দিতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে আহত হন আলমগীর। পরে তাকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগে নিলে পরীক্ষা নিরীক্ষা শেষে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলের শহরের কালির বাজার অবস্থিত ষোল তলা বিল্ডিং এর বিপরিত পাশের এক ঝোপ থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ শাহ জামান বলেন, ঘন্টা খানেক আগে আমরা লাশের খবর পাই। পরে ময়না তদন্তের জন্য লাশ উদ্ধার করে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল এর মর্গে প্রেরন করা হয়েছে। নিহত ব্যক্তিটির নাম আতাউর রহমান।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *