আজ: মঙ্গলবার | ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ১২ই সফর, ১৪৪২ হিজরি | রাত ৯:৫৩
শিরোনাম: প্রথম কর্মসূচীতেই সফল মহানগর ছাত্রদল     সুবিধাভোগীদের প্রতি তৃণমূলের ক্ষোভ     শেখ হাসিনা আমাদের অহংকার: সাজনু     খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর স্মার্ট কার্ড বিতরণ করলেন ডিসি     প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনের কেক কাটলেন মেয়র আইভী     জেলা ও মহানগর মৎস্যজীবী লীগের পক্ষে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন পালিত     প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মবার্ষিকী পালন অনুষ্ঠানে সেলিম ওসমান শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী বলে রোহিঙ্গারা ঠাঁই পেয়েছে     প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে মহানগর আ’লীগের সভাপতি আনোয়ার বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে দেশ ইউরোপের মত হতো     আদালতপাড়ায় আইনজীবী সমিতির কেক কেটে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন পালন     প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে জেলা আওয়ামী লীগের দোয়া    

সংবাদের পাতায় স্বাগতম

এইচএসসি পাস করেই এমবিবিএস ডাক্তার তারা!

ডান্ডিবার্তা | ১৩ মে, ২০১৯ | ১১:৪১

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
বিভিন্ন প্যাথলজিক্যাল ও আলট্রাসনোগ্রাম রিপোর্টে লেখা নাম- ডা. মো. তানভীর আহমেদ সরকার।
বিভিন্ন ক্লিনিকেও কনসালট্যান্ট হিসেবে কাজ করেন। কিন্তু অবাক করা বিষয়, এই ডা. তানভির
আহমেদ সরকার কখনও ডাক্তারি পড়া-শুনা করেন নি। শুধু ২০০১ সালে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে
এসএসসি, ২০০৯ সালে কারিগরী শিক্ষা বোর্ড থেকে বাণিজ্য বিভাগে এইচএসসি পাস করেন। এর
পরপরই নামের শেষে মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ও এমবিবিএস লগিয়ে হয়ে গেলেন ডাক্তার। কিন্তু শেষ রক্ষা
হয়নি এ ভুয়া ডাক্তারের। সিদ্ধিরগঞ্জ থানার সানারপাড় রহিম মার্কেটের হেলথ কেয়ার আধুনিক
হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে রোগী দেখার সময় গত ৮ মে রাতে র‌্যাব তাকে গ্রেফতার
করে। ঐ হাসপাতালের ভবন মালিক সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামলীগের সভাপতি মজিবুর রহমনের
হওয়ায় ভুয়া ডাক্তার আর হাসপাতালের মালিকরা ছিল বেপোরোয়া। ভুয়া ডাক্তার তানভির আহমেদ
সরকারকে ২ বছরের বিনাশ্রম কারাদন্ড হাসপাতালের ম্যানেজার আবুল বাশারকে ১ বছরের বিনাশ্রম
কারাদন্ড প্রদান করেন র‌্যাব সদর দফতর ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সরোয়ার
আলম। এসময় ঐ বেসরকারী হাসাপাতালটি সিলগাল করে দেয়া হয়। র‌্যাব জানায়, তানভীর আহমেদ
কুমিল্লা জেলার দেবীদ্বার শিবনগর এলাকার আব্দুল মতিন চৌধুরীর ছেলে। তিনি দীর্ঘদিন ধরে নিজেকে
মেডিসিন বিশেষজ্ঞ পরিচয় দিয়ে ওই হাসপাতালে নিয়মিত রোগী দেখতেন। আসলে সে একচন ভুয়া
ডাক্তার। তানভীর আহামেদ সরকারের মতো সম্প্রতি আরো দুইজন ভুয়া ডাক্তারের কারাদন্ড দিয়েছে
ভ্রাম্যমান আদালত জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জ জেলার বিভিন্ন এলাকায় বেসরকারী হাসপাতাল, ক্লিনিক,
ডায়াগনষ্টিক সেন্টার ও ডেন্টাল ক্লিনিকগুলোতে ভুয়া ডাক্তারের ছড়াছড়ি। দিন দিন ভুয়া চিকিৎসকদের
দৌরাত্ম্য বেড়েই চলছে। চিকিৎসক হওয়ার সনদ না থাকলেও অনেকেই নিজেকে চিকিৎসক পরিচয় দিয়ে
রোগীদের সঙ্গে প্রতারণা করে আসছে। এ সকল ভুয়া চিকিৎসকদের খপ্পড়ে পড়ে অনেক রোগীর জীবন
হয়ে উঠছে শঙ্কটাপন্ন। সম্প্রতি সিদ্ধিরগঞ্জে ৩ জন ভুয়া চিকিৎসককে আটক করে সাজা প্রদান করেছে
ভ্রাম্যমান আদালত। গত ২ এপ্রিল সিদ্ধিরগঞ্জের সাইনবোর্ড এলাকায় ফ্যামিলী ল্যাব হসপিটাল নামের

একটি ক্লিনিকে র‌্যাবের অভিযানে ভুয়া ডাক্তার নজরুল ইসলাম শেখকে ১ বছরের কারাদন্ড প্রদান
করে ভ্রাম্যমান আদালত। ওই ভুয়া ডাক্তারের নামের পাশে পদবীর ডিগ্রী হিসেবে লেখা এমবিবিএস,
সনোলজিষ্ট। নিজেকে অভিজ্ঞ ডাক্তার পরিচয়েই দিয়ে ২ বছর যাবত প্রতারণা করে আসছিল রোগীদের
সঙ্গে। গত ৫ ফেব্রুয়ারী সিদ্ধিরগঞ্জের কদমতলী এলাকার এম হোসেন জেনারেল হসপিটাল নামের
হাসপাতালে র‌্যাবের অভিযানে আটক ভুয়া ডাক্তার ফাহমিদা আলমকে ৬ মাসের জেল ও হাসপাতালটি
সীলগালা করে দেয়া হয়। নিজেকে অভিজ্ঞ ডাক্তার পরিচয় দিয়ে ফাহমিদা আলম দিনে পর দিন প্রতারণা
করে আসছিলেন রোগীদের সঙ্গে।অথচ ফাহমিদা মাত্র এসএসসি পাশ। তবে প্রেসক্রিপশনে তার নামের
পাশে পদবীর ডিগ্রী হিসেবে লেখা থাকতো এমবিবিএস,এফসিপিএস। র‌্যাব-১১’র অতিরিক্ত পুলিশ
সুপার জসিম উদ্দিন জানান, সিদ্ধিরগঞ্জের কদমতলী এম হোসেন জেনারেল হাসপাতাল নামের পাশে
পদবীর ডিগ্রী হিসেবে লেখা ‘এমবিবিএস, এফসিপিএস’। নিজেকে অভিজ্ঞ ডাক্তার পরিচয়েই দিনে পর
দিন তিনি রোগীদের সাথে প্রতারণা করে আসছিলেন ফাহমিদা। ডাক্তার পরিচয় দিলেও দেখাতে পারেনি
কোনো সনদপত্র। তিনি যে হাসপাতালে বসেন সেই হাসপাতালেরও নেই প্রয়োজনীয় কোনো নথিপত্র।
পরে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আনিসুল ইসলামের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালতের
মাধ্যমে ফাহমিদা আলমকে ছয় মাসের কারাদন্ড ও একই সাথে এম হোসেন জেনারেল হাসপাতালকে
সিলগালা করা হয়। ২০১৮ সালের ১৪ মার্চ শহরের খানপুরে অবস্থিত ইউনিক ডায়াগনস্টিক সেন্টারে
অভিযান চালিয়ে এস এম জালাল নামের ভুয়া ডাক্তারকে আটক করে ভ্রাম্যমান আদালত। তিনি ডাক্তার
না হয়েও এমবিবিএস পরিচয় দিয়ে রোগীদের আল্টাসনোগ্রাম করাচ্ছিলেন। পরে তার বিরুদ্ধে নিয়মিত
মামলা করা হয় এর আগে সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইল চৌধুরীবাড়ী বাসস্ট্যান্ডস্থ জনস্বাস্থ্য জেনারেল
হাসপাতালে মোবারক ইসলাম নামের এক ভুয়া ডাক্তারকে দুই বছরের কারাদন্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ
আদালত। এসময় ভুয়া ডাক্তার মোবারক ইসলামের অফিসে তল্লাশী চালিয়ে বিপুল পরিমানের
বাংলাদেশ, ভারত ও চায়নার বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের জাল সার্টিফিকেট ও সার্টিফিকেট তৈরীর সরঞ্জাম
উদ্ধার করা হয়। ওইসময় জনস্বাস্থ্য জেনারেল হাসপাতালটিকে সিলগালা করে দেয় ভ্রাম্যমান আদালত।
এছাড়া স্কুলের গন্ডি না পেরুলেও দিব্যি সাইনবোর্ডে চিকিৎসক উপাধি লিখে ৩ বছর ধরে রোগীদের
চিকিৎসার নামে প্রতারণা চালিয়ে আসছিল মাহফুজ চৌধুরী। কয়েক বছর আগে হাতেনাতে সিদ্ধিরগঞ্জের
গোদনাইল চৌধুরী বাড়িস্থ সুলতান সুপার মার্কেটে চৌধুরী ডেন্টাল কেয়ার নামের একটি ভুয়া দন্ত
চিকিৎসালয় থেকে ৮ম শ্রেনী পাশ করা মাহফুজকে আটক করে সম্প্রতি ২ মাসের কারাদন্ড দেয় জেলা
প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রুমানা ইয়াসমিনের নেতৃত্বাধীন ভ্রাম্যমান আদালত। নারায়ণগঞ্জ শহরের
বঙ্গবন্ধু সড়কে একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অভিযান চালিয়ে গৌরি চাঁদ পন্ডিত ওরফে সুবির নামের
একজন ভুয়া ডাক্তারকে ২ বছরের কারাদন্ড দেয় ভ্রাম্যমান আদালত। ন্যাশনাল মেডিক্যাল সেন্টারে ওই
অভিযান চালায় র‌্যাব-১১ সদস্যরা। পরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও নারায়ণগঞ্জ সদরের সহকারী
কমিশনার (ভূমি) মাসুম আলী বেগের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে ওই সাজা দেওয়া হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *