Home » শেষের পাতা » হাইকোর্টের আদেশ অমান্য করে সড়ক-মহাসড়কে চলছে চাঁদাবাজী

একজন জনপ্রতিনিধির কারণে নাসিক সম্প্রসারণ করতে পারছি না: আইভি

২১ সেপ্টেম্বর, ২০২২ | ১০:৪০ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 61 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভি বলেছেন, জীবন বাজি রেখে উচ্ছেদে গিয়েছি। নারায়ণগঞ্জ থানা মামলা নেয়নি। চোখের সামনে আমার কর্মী ও সাংবাদিকরা আহত হয়েছে। দেড় বছর পর হাইকোর্টের অর্ডার নিয়ে মামলা করেছি। তাতে নাকি মহাভারত অশুদ্ধ হয়ে গেছে। নির্বাচনের সময় শর্ত ছিল মামলা উঠিয়ে নেওয়ার। কিন্তু আমি নেইনি, উঠাব না। গতকাল মঙ্গলবার নাসিকের ২০২২-২৩ অর্থ বছরের বাজেট ঘোষণার সময় এ কথা বলেন তিনি। মেয়র বলেন, আপনারা খেয়াল করবেন নাসিকে কী পরিমাণ হকার বসে। মীর জুমলা রোড আর নেই। এত কিছু করে যে রোড আমরা উদ্ধার করেছিলাম। আপনারা আমাকে এক রকম নাস্তানাবুদ করেছিলেন। আপনাদের সঙ্গে নিয়ে সে রোড উদ্ধার করেছিলাম। আমিতো সে রোড উদ্ধার করতে পারিনি। মীর জুমলা রোড টেন্ডার দিত না। পরে যখন সিটি করপোরেশন হল। সাময়িকভাবে যখন প্রশাসক ছিল তখন তারা টেন্ডার দিয়ে দিল। এখন সেখানে বাজার হয়ে গেছে। শায়েস্তা খান রোড তো পুরো কাঁচাবাজার। এর পেছনে কারা আপনারাও জানেন। প্রশাসনের সহায়তা ছাড়া সেখানে কেউ বসতে পারে না। নগর পরিষ্কারের দায়িত্বে সিটি করপোরেশন পুলিশ এসপি সাহেবের ম্যাজিস্ট্রেট ডিসি সাহেবের। আপনারা আমাকে ভোট দিয়ে হাত পা বেধে দিয়েছেন। তিনি একা হয়ে গেছেন দাবি করে বলেন, প্রশাসনের মামলায় রিপোর্ট দিয়েছে। সেখানে বলা হয় এমন কোন ঘটনা ঘটেনি। দিনে দুপুরে প্রকাশ্যে মেয়রের ওপর পিস্তল উচিয়ে আক্রমণ। তারপরেও বলে কিছু হয়নি। আপনারা সবাই চুপ। কারও সত্য বলার জো নেই। আমি একা হয়ে গেছি। আমার কাউন্সিলররাও আপস করে চলে। নয়তো মামলার আসামি হয়ে যাবে। মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী আরো বলেন, পুরো জেলা থেকেই নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মধ্যে ব্যবসায়, কাজ করতে আসে। আর তাই দীর্ঘদিন ধরে আমাকে এই সিটি কর্পোরেশনের এলাকা সম্প্রসারণ করতে বলা হচ্ছে। আমরা ইতিমধ্যে বিষয়টি ফাইল আকাড়ে মন্ত্রনালয়েও জমা দিয়েছি। তবুও কোন এক কারনে সম্প্রসারণ করা যাচ্ছে না। নারায়ণগঞ্জের একজন জনপ্রতিনিধি আছে যার জন্য আমরা এটি সম্প্রসারণ করতে পারছি না। মেয়র বলেন, আপনাদের ট্যাক্স এর টাকা দিয়েই আমরা বিভিন্ন উন্নয়ন করে যাচ্ছি। আপনাদের টাকা দিয়েই আমরা এই নগর ভবন নির্মান করেছি। এটি নির্মানের জন্য কোথাও হাত পাততে হয়নি। আমাদের প্রতিনিয়ত ময়লা পরিস্কারসহ বেশ কিছু কাজ করতে হয়। আপনারা যদি সময় মতো ট্যাক্স না দেন তাহলে আমি আমাদের কর্মচারীদের কিভাবে বেতন দিবো। আপনাদের টাকা দিয়েই তো তাদের বেতন দেয়া হয়। এই শহরের মালিক জনগণ। এ সময় নাসিকের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী ২০২২-২০১৩ অর্থ বছরের রাজস্ব ও উন্নয়নসহ মোট ৫৮৮ কোটি ৬৯ লাখ ১০ হাজার ৬৩৮ টাকার বাজেট ঘোষণা করেছেন। প্রস্তাবিত বাজেটে রাজস্ব ও উন্নয়ন খাতে মোট ৫৮৮ কোটি ৬৯ লাখ ১০ হাজার ৬৩৮ টাকা আয় এবং মোট ৫৫৯ কোটি ৪৫ লাখ ২৬ হাজার ৪৭৯ টাকা বায় ধরা হয়েছে। বছর শেষে ঘোষিত বাজেটে ২৯ কোটি ২৩ লাখ ৮৪ হাজার ১৫৯ টাকা উদ্বৃত্ত থাকবে। এ সময় নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের সিইও আবুল আমিনের সঞ্চালনায় এনসিসির সংরক্ষিত আসনের নারী কাউন্সিলর ও প্রতিটি ওয়ার্ডের কাউন্সিলররা উপস্থিত ছিলেন।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *