আজ: শুক্রবার | ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ৮ই সফর, ১৪৪২ হিজরি | সকাল ১০:১৬

সংবাদের পাতায় স্বাগতম

একাধিক মামলার আসামি এখন শেখ রাসেল পরিষদের সেক্রেটারি

ডান্ডিবার্তা | ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০ | ৭:৫০

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
তেল চুরি, বিস্ফোরক আইন, পুলিশের উপর হামলা, মারামারিসহ বেশ কয়েকটি মামলার আসামি তিনি। ভাই তার শ্রমিক দলের আহ্বায়ক। সাবেক এক কাউন্সিলরের হাত ধরে হঠাৎ আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়া নব্য আওয়ামী লীগ নেতা বনে গেলেন শেখ হাসিনার হাতে গড়া শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদের নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক। তিনি সিদ্ধিরগঞ্জের এমএ স্বপন মন্ডল। ওই এলাকায় তেল চুরিসহ নানা অপরাধমূলক কর্মকান্ডে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদের নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন একাধিক মামলার আসামি বিতর্কিত এমএ স্বপন মন্ডল। তেল চুরি, বিস্ফোরক ও বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা, পুলিশের উপর হামলা, মারামারির মামলাসহ তার বিরুদ্ধে রয়েছে একাধিক মামলা। হঠাৎ আওয়ামী লীগ করা স্বপন মন্ডল নারায়ণগঞ্জ মহানগর শ্রমিকদলের আহ্বায়ক এসএম আসলামের ছোট ভাই। সাবেক কাউন্সিলর সিরাজ মন্ডলের হাত ধরে আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছেন স্বপন মন্ডল। পুলিশ ও গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের সূত্রে জানা যায়, ২০১৯ সালের ২৭ আগস্ট রাতে সিদ্ধিরগঞ্জের এসও রোড এলাকায় স্বপন মন্ডলের আস্তানায় অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমানের চোরাই তেলসহ ২ সহযোগীকে গ্রেফতার করে র্যাব। এ ঘটনায় র্যাব বাদী হয়ে স্বপন মন্ডলকে আসামি করে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। গত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পূর্বে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় নাশকতার অভিযোগে দায়ের করা এক মামলারও আসামি স্বপন মন্ডল। ২০১৮ সালের ১০ অক্টোবর সিদ্ধিরগঞ্জে বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য মুহাম্মদ গিয়াসউদ্দিনসহ ৫৭ বিএনপি নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে বিস্ফোরক ও বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা করে পুলিশ। সেই মামলায়ও আসামি করা হয় স্বপন মন্ডল ও তার ভাই আসলামকে। সিদ্ধিরগঞ্জে নাসিক ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর সিরাজুল ইসলাম মন্ডল ও বর্তমান কাউন্সিলর মতিউর রহমান মতির সমর্থকদের মধ্যে মারামারির ঘটনায় এই বছরের ৩ আগস্ট সরকারি কাজে বাধা প্রদান, পুলিশের উপর হামলা ও বিস্ফোরক আইনে পুলিশ বাদী হয়ে ৩৮ জনের নাম উল্লেখ ও আড়াইশ’ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে মামলা দায়ের হয়। সেই মামলায়ও নাম উল্লিখিত আসামি ছিল স্বপন মন্ডল। ৫ আগস্ট কাউন্সিলর মতির সমর্থক লিটন ৫৬ জনের নাম উল্লেখ ও আরও ২০-২৫ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে মামলা দায়ের করেন। সেই মামলায়ও আসামি এই স্বপন মন্ডল। এসব মামলার প্রসঙ্গে জানতে চাইলে স্বপন মন্ডল মুঠোফোনে বলেন, ‘সবই মিথ্যা অভিযোগে সাজানো মামলা।’ এতগুলো মামলা সবই মিথ্যা অভিযোগে? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এইভাবে কথা বলা যায় না। অফিসে আসেন। অফিসে বসে কথা বলবো।’ ১৯৮৯ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি শেখ হাসিনা শেখ রাসেল জাতীয় শিশু-কিশোর পরিষদ সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা করেন যাতে করে এই সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও ক্রিয়া সংগঠনের মাধ্যমে শিশু শেখ রাসেলের স্মৃতি, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বন্ধবন্ধুর আদর্শ ধারণ করে এই দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে সেই লক্ষ্যে। কিন্তু এইরকম বিতর্কিত ও বহু মামলার আসামিকে জেলা সাধারণ সম্পাদক করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অনেকে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে শেখ রাসেল জাতীয় শিশু-কিশোর পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি মুজাহিদুর রহমান হেলো সরকার বলেন, ‘স্বপন মন্ডলের বিরুদ্ধে এতগুলো মামলা ও বিএনপি ঘেষা অভিযোগের বিষয়ে জানতাম না। তাহলে আমাকে সঠিক তথ্য দেওয়া হয়নি আমাকে। এ বিষয়ে অতি দ্রুত খোঁজ নেবো। এমনটা হয়ে থাকলে তাকে সাথে সাথে কমিটি থেকে বহিষ্কার করা হবে। প্রয়োজনে কমিটি ভেঙ্গে দেবো। নেত্রীর হাতে গড়া সংগঠনে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের ও চরিত্রবান ছাড়া এমন লোকজন থাকতে পারে না।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *