News

এক টেবিলে সেলিম-আইভী বসলে না’গঞ্জের রাজনীতির দৃশ্যপটপাল্টাবে

ডান্ডিবার্তা | 24 February, 2020 | 10:10 am

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
রাজনীতিতে আলোচিত দুই রাজনীতিবিদ সদর-বন্দর আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান ও নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী অনেক জল্পনা কল্পনার মধ্য দিয়ে এক টেবিলে বসেননি এখনো। গত সপ্তাহে নৌমন্ত্রণালয়ে দুইজনের একত্রে ছবি দেখে খোদ ক্ষমতাসীন দলের পন্থীহীন নেতাকর্মীরা অনেকটা আশ^স্থ হলেও এখনো দু’জন এক টেবিলে বসেননি। নারায়ণগঞ্জ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার মোহাম্মদ আলী দু’জনকে একত্রে বসার জন্য একাধিকবার উদ্যোগ নিয়েও সফল হতে পারেননি। নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেনও চান দুই মেরুর ঐক্য হোক। খোদ শামীম ওসমান এ ব্যপারে কোন মন্তব্য না করলেও চলতি বছরের প্রথম দিন থেকে মেয়র আইভী আক্রমানত্মক বক্তব্য দেয়ার পরও শামীম ওসমান কোন উত্তর দেননি। এটাকে অনেকে বরফ গলতে শুরু করেছে বলে মনে করলেও বাম ঘরানার নেতাদের কারণে বার বার দুই মেরুর মহামিলন বিঘœ হচ্ছে বলে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের ধারণা। এছাড়া মেয়র আইভী একাধিক বার বলেছেন, বামেরা তার আত্মার আত্বীয়। বিগত কয়েক বছর আগে এক টেবিলে বসলেও পরবর্তীতে হকার ইস্যু সহ নানা কারণে আর এক টেবিলে বসা সম্ভব হয়নি। মেয়র আইভীর সাথে এমপি সেলিম ওসমান এক টেবিলে বসার আহবান জানিয়েও কোন কাজ হয়নি। তবে এবার ঘটনার প্রেক্ষাপটে ফের এক টেবিলে হাজির হয়ে বৈঠকে বসেছেন এই দুই রাজনীতিবিদ। এতে করে পুরনো সেই রাজনীতি নতুন করে পুনরাবৃত্তি হচ্ছে। জানা গেছে, ১৭ ফেব্রুয়ারী বিকেলে নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদীর উন্নয়ন ও পানি বিশুদ্ধ করতে ঢাকায় নৌ-পরিবহন মন্ত্রনালয়ে একটি আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। উক্ত আলোচনার টেবিলে একই সাথে উপস্থিত ছিলেন সদর-বন্দর আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান ও নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডাক্তার সেলিনা হায়াৎ আইভী। নৌ-পরিবহন মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী খালেদ চৌধুরী উক্ত সভায় সভাপতিত্ব করেন। সভায় শেষে মন্ত্রীর উপস্থিতিতে নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদী এবং বেশ কিছু উন্নয়ন নিয়ে সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান ও সিটি কপোরেশন মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর সাথে দীর্ঘ সময় মত বিনিময় হয়েছে। এ ব্যাপারে সংসদ সদস্য সেলিম ওসমানের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, মন্ত্রনালয়ে মন্ত্রী মহোদয়ের উপস্থিতিতেই আলোচনা হয়েছে। শীতলক্ষ্যা নদীর পানি বিশুদ্ধ করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা সহ দুইপাড়ে অবৈধ দখল মুক্ত করে দুইপাড়ের উন্নয়ন করা হবে। আলোচনা শুরু হয়েছে, এগুলো যাচাই বাছাই করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে নদীর নাব্যতা ফিরিয়ে আনা হবে। উন্নয়নের স্বার্থে সরকার যে কোন কঠিন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে পারে এবং স্থানীয় সরকার সেটি বাস্তবায়ন করবেন তবে অবশ্যই সেটা আলোচনা মাধ্যমে হতে হবে যাতে করে কেউ ক্ষতিগ্রস্থ না হয়। এক্ষেত্রে সিটি কর্পোরেশন বা সংসদীয় এলাকা বলে কোন কথা থাকবে না। সেলিম ওসমান আরো বলেন, সিটি কপোরেশনের সাথে আলোচনা শুরু হলো এভাবে আরো কয়েকটা মন্ত্রনালয়ের মাধ্যমে নারায়ণগঞ্জবাসী বেশ কিছু নতুন নতুন উন্নয়ন দেখতে পারবে বলে আমি আশা করছি। সিটি কপোরেশনের মেয়রের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, যেকোন ধরনের সমস্যাই আলোচনায় বসে সমাধান করা সম্ভব। নারায়ণগঞ্জের উন্নয়নে যেকোন ধরনের সমস্যায় আমি সিটি কর্পোরশেনকে আলোচায় বসে সমাধানের জন্য আহবান করছি। উল্লেখ্য, নারায়ণগঞ্জের উন্নয়নের স্বার্থে এক টেবিলে বসতে বার বারই সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীকে অনুরোধ করে আসছেন প্রভাবশালী এমপি সেলিম ওসমান। কিন্তু আনুষ্ঠানিকভাবে এক টেবিলে তাঁদের বসা হয়নি। যদিও ২০১৪ সালের ২৬ জুন উপ নির্বাচনের পর সিটি করপোরেশনের নগর ভবনে গিয়েছিলেন সেলিম ওসমান। সেদিন আইভীর সঙ্গে চা চক্রে বসেছিলেন তিনি। পরবর্তীতে ২০১৭ সালের নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের বাজেট অনুষ্ঠানে হঠাৎ করে সেলিম ওসমান ও শিল্পপতি মোহাম্মদ আলী উপস্থিত হলে তাদের মঞ্চে ডাকা হয়। তখন আইভী তখন ট্রাক স্ট্যান্ড নিয়ে কথা বললে মঞ্চে বসেই দ্রুত সেলিম ওসমান সমাধান দেন। ২০১৮ সালের ৬ মে এক অনুষ্ঠানে এমপি সেলিম ওসমান বলেন, গত ৪ বছরে বহুবার সিটি কর্পোরেশনের মেয়রকে একসাথে আলোচনায় বসার আমন্ত্রন জানানো হয়েছে। কিন্তু উনি আসেন নাই। আজকে নিজেই দাওয়াত নিলাম। উনি আমাদের আমন্ত্রন জানাক আমরা যাবো আলোচনা করবো। সবাইকে সাথে নিয়ে মডেল নারায়ণগঞ্জ গড়ে তোলার যাত্রা শুরু করবো। আমি সংসদ সদস্য হোসনে আরা বেগম বাবলীকে এই দায়িত্বটা দিতে চাই। উনি যেন মেয়রের সাথে আলোচনা করে সবাইকে নিয়ে একত্রে বসার ব্যবস্থা করেন।’ এর আগে ৬ মে এর ওই সভাতে আইভীর প্রতি একটেবিলে বসার আহবান জানান সেলিম ওসমান। আর সেটা বাস্তবায়ন করতে দায়িত্ব দেওয়া হয় সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি হোসনে আবার বেগম বাবলীকে। তিনিও বেশ ত্বরিৎ গতিতে উদ্যোগী হয়ে আইভীর সঙ্গে দেখা করলেও কোন কাজে আসেনি। যদিও মেয়র আইভী শহরের নাগরিক সমস্যার সমাধানে সেলিম ওসমানের যে কোন উদ্যোগের পাশে থাকবেন বলে জানিয়েছেন। যেকারণে সেসময় আর এক টেবিলে বসা হয়নি। এতে করে এক টেবিলে বসার রাজনীতি থমকে যায়। তবে অনেকটা বিলম্বে হলেও সেই এক টেবিলে বসার আক্ষেপ ঘুচেছে। সংশষ্টরা বলছেন, এ জেলায় চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দুই মেরুতে রাজনীতি করছেন মেয়র আইভী ও এমপি সেলিম ওসমান। যেকারণে তাদের মধ্যেকার দূরত্ব সহসাই কমছেনা। কখনো কখনো সেই দূরত্ব কমার সুযোগ সৃষ্টি হলেও পরক্ষণে তা ভড়কে যায়। তবে এবার ফের দূরত্ব কমিয়ে এক টেবিলে দেখা গেছে দুজনকে। এতে করে বিগত দিনে এক টেবিলে বসার আক্ষেপ ঘুচেছে এমপি সেলিম ওসমানের।

[social_share_button themes='theme1']

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *