Home » প্রথম পাতা » রূপগঞ্জ ভ’মি অফিসে অনিয়মই যেন নিয়ম

ওসমান পরিবারের বিরুদ্ধে খেলা শুরু!

২২ নভেম্বর, ২০২১ | ১০:১০ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 175 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

চারদলীয়জোট সরকারের সময়ে যে সকল নেতা অর্থাৎ ২০০১সালের পর ওসমান পরিবারের বিরুদ্ধে  রাজনীতি করেছেন প্রয়াত সাংসদ নাসিম ওসমান নাসিম ভাই এম,পি হওয়ার পর ভোল পালটিয়ে এখন কোটি পতি বনে গেছে। মুখে মুখে  ওসমান পরিবার আর মনে তৃতীয় শক্তির ডোনার। অতীতে ষড়যন্ত্র করেছে, এখনও আবার ষড়যন্ত করছেন,। জননেতা নাসিম ওসমান ভাই পৃথিবীর  মায়া ত্যাগ করে না ফেরার দেশে চলে গেছে। সেলিম ওসমান ভাই প্রতিষ্ঠিত একজন ব্যবসায়ী। সদর-বন্দর সদর-বন্দর আসনে উপ নির্বাচনে সেলিম ওসমান ভাই লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত হন। নাসিম ভাইয়ের মৃত্যুর পর ওই শক্তিগুলো একত্রিত হয়ে ঐতিহ্যবাহী ওসমান পরিবারের জনপ্রিয়তা হ্রাসসহ প্রকৃত ওসমান বলয়কে ধ্বংশ করার গভীর ষড়যন্ত্র করছে বলে নাসিক কাউন্সিলর ও মহানগর সেচ্ছাসেবকলীগের সাধারন সম্পাদক সাইফুদ্দিন আহমেদ দুলাল প্রধান  বলেন। একান্ত আলাপচারিতায় তিনি আরো বলেন, গত ১১ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হয়ে যাওয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে শত শত বাধাকে পিছনে ফেলে ঐতিহ্যবাহী ওসমান পরিবারের জয় জয়কার হয়েছে। নাসিক সাবেক কাউন্সিলর ও আওয়ামীলীগের নেতা আনোয়ারা হোসেন আনু বলেন, আমরা যারা আওয়ামীলীগের রাজনীতি করি আমাদের আস্তা, নির্ভরতা ও কর্মীবান্ধব নেতা শামীম ওসমান এমপি ভাই। চারদলীয়জোট সরকারের সময়সহ ১/১১ মিলে প্রায় ৮ বছর অত্যাচার, জুলুম, হামলা-মামলা ছিল নিত্যদিনের। ক্ষমতার বসে সকল অতীত যেন ভুলে গেছে। নারায়নগঞ্জ-৪ আসনের প্রভাবশালী সাংসদ শামীম ওসমান ভাই ওই মুখোশধারীদের ভূলে গেলেও বা ক্ষমা করলেও  ইতিহাস তাদের চারিত্রিক গুনাবলিকে ক্ষমা করবে না।ওরা মানুষ নামীয় একটি যন্ত্র যা মানুষের কল্যানের চেয়ে ব্যাক্তি স্বার্থকে প্রাধান্য দেয়।  তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে কঠিন ভাষায় বলেন, কোন কিছু চাওয়া-পাওয়ার আশায় রাজনীতি করি না। সর্বকালের শ্রেষ্ঠ সন্তান বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের আর্দশ ও ওসমান পরিবারের আর্দশে অনুপ্রেরনায় রাজনীতি করি। প্রকৃত ও আর্দশের রাজনীতি করি। কিন্তু বর্তমানে রাজনীতি ব্যবসায়ী ও চাটুকারীদের হাতে। প্রয়াত সাংসদ নাসিম ওসমান ভাইয়ের সরলতার সুযোগ নিয়ে বন্দরে প্রায় অর্ধ শতাধিক নেতা অর্থশালীসহ সমাজে প্রতিষ্ঠিত লোক বা নেতা বনে গেলেও দলের স্বার্থে তাদের ভূমিকা কতটুকু তা ইতিহাস ও শামীম ভাই জানেন। প্রভাবশালী সাংসদ শামীম ওসমানের দৃষ্টি কামনা করে মদনপুর ইউনিয়ন পরিষদের তৃতীয় বারের মত চেয়ারম্যান আলহাজ্ব গাজী এম এ সালাম বলেন প্রভাবশালী সাংসদ শামীম ওসমান ভাই আপনি ওই সমস্থ নেতাদের ক্ষমা করলেও ইতিহাস তাদের ক্ষমা করবে না। আমি এম এ সালাম  রাজনীতি না করলে কিছু হবে না। কারন রাজনীতি করি ওসমান পরিবারের হয়ে, কোন চাটুকারিতার প্রলোভনে না। শামীম ওসমান ভাই আপনি একটু দৃষ্টি দেন? স্বার্থসাধন কারীদের শিক্ষা দেন। ওরা কিন্তু মালাদের মত তৃতীয় শক্তির হয়ে কাজ করছে। সুযোগ পেলে ওরা মরণ কামড় দিবে। তৃনমূল হতে শুরু করেছে। নারায়নগঞ্জ তথা  বন্দরে ওসমান লীগ বা পার্টি যারা করে তাদের প্রতি টার্গেট পূর্বক ষড়যন্ত্র চলছে। যা ইউনিয়ন নির্বাচনে দেখেছেন নিজ দলের হয়েও সাথে থেকে কত প্রকার খেলা খেলেছে। ছাত্রলীগের খান মাসুদের অপরাধ কি? অপরাধ ওসমান বলয়ের রাজপথের সৈনিক ও সাংগঠনিক এক নেতা। তার অপরাধ একনিষ্ঠ ওসমান পরিবারের কর্মী। জেল, জুলুম, অত্যাচার, হামলা, মামলা দিয়েও আদর্শের নীতি থেকে এক চুল পরিমান সরেনি।  শামীম ওসমান ভাই তাদের নীতি অনুসরন করুন বেঈমান এর খাতা থেকে কিছুটা হলেও ঘূচবে। ওসমান পরিবার বলয়ের বিরুদ্ধে বিশ্বাস ঘাতক, বৈঈমান, স্বার্থপরদের  কিছু একটা করুন। দল, সংগঠন ও প্রকৃত ওসমান পরিবারের যাত্রী তাদের টার্গেট পূর্বক তৃতীয় শক্তি কাজ করছে। ব্যবস্থা নেন। অপরাধীকে উচিত শিক্ষা দেন আর ত্যাগীদের জন্য কিছু একটা করুন। কিছু একটা করেন না হয় নির্দেশ দেন। তারপর দেখাবো  ওসমাম পরিবারে হাতে গড়া সৈনিকরা কি করতে পারে? বন্দর থানা ছাত্রলীগের সভাপতি (সোনালী অতীত) নাজমুল হোসেন আরিফ, সাইফুল ইসলাম, সিরাজুল ইসলাম বলেন আমরা  না থাকলে কিছু হবে না, কিন্তু ওসমান পরিবার নারায়নগঞ্জে রাজনীতি না করলে অনেক বড় ক্ষতি হবে। অন্যথায় মরন কামর দিবে। ছাত্রলীগকে টার্গেট করে ওরা মাঠে। অনেকটা সফলের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। পরবর্তী টার্গেট কে। আসন্ন সিটি নির্বাচন নিয়ে চক্রটি আরো শক্তিশালী অবস্থায়। সুশীল- কুশীল, হাইব্রিড, আতাতকারীরা আসন্ন সিটি নির্বাচন নিয়ে গভীর মিশনে চলছে খেলা। প্রতিনিয়ত গতিপথ তারা পরিবর্তন করছে।

 

 

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *