Home » প্রথম পাতা » রূপগঞ্জ ভ’মি অফিসে অনিয়মই যেন নিয়ম

কাজিমুদ্দিনের বিরুদ্ধে দূর্ণীতির তদন্ত সম্পন্ন

০৮ নভেম্বর, ২০২১ | ১০:৫১ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 111 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

বন্দরের কলাগাছিয়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থী কাজিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে তদন্ত গুটিয়ে এনেছে দূর্ণীতি দমন কমিশন (দূদক)। এই কাজিমুদ্দিন তিতাস গ্যাসের সিবিএ প্রেসিডেন্ট থাকা কালে ব্যাপক দূর্ণীতিতে নিমজ্জিত ছিলো। তিনি গ্যাস চুরি করে কোটি কোটি টাকার মালিক হয়েছেন বলে ব্যাপক অভিযোগ রয়েছে। ফলে আরো আগেই তার বিরুদ্ধে দূর্ণীতির তদন্ত শুরু করেছে দূদক। এ বিষয়ে বিভিন্ন জাতীয় গণমাধ্যমে রিপোর্ট প্রকাশ হয়েছে। দূর্ণীতি দমন কমিশনের ডেপুটি ডাইরেক্টর মোহাম্মদ আরিফ সাদেক সংবাদ সংস্থা ইউএনবিকে জানিয়েছেন কমিশন কাজিমুদ্দিন সহ আরো কয়েকজনের বিরুদ্ধে ব্যাপক দূর্ণীতির অভিযোগ পেয়েছে। তাই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাদেরকে ঢাকা হয়েছে। কাজিমুদ্দিন এখন রিটায়ার্ড করলেও সে তিতাস গ্যাসের সিবিএ প্রধান এবং ওয়েল্ডার প্রধান ছিলেন। তখন তিনি বহু মিল কারখানা এবং বাড়িতে বাড়িতে অবৈধ গ্যাস সংযোগ দেয়ার কাজে নিয়োজিত ছিলেন। আর এই সকল অবৈধ সংযোগ তথা গ্যাস চুরির মাধ্যমে তিনি বহু কোটি টাকার মালিক হয়েছেন। অথচ এই কাজিমুদ্দিনই এখন আবার কলাগাছিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছেন। তাই তার এই অবৈধ আয় নিয়ে স্থানীয় জনগনের মাঝে বিরাজ করছে বিরুপ প্রতিক্রিয়া। তাই এ বিষয়ে কলাগাছিয়া ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দারা জানিয়েছেন, যে কাজিমুদ্দিন জনগনের জাতীয় সম্পদ চুরি করে টাকার কুমির হয়েছেন তিনি আবার কলাগাছিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হতে চাইছেন। তাই এমন একজন ব্যাক্তি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে তাকে দিয়ে জনগনের কি উপকার হবে সেই প্রশ্ন উঠেছে বড় করে। তারা আরো জানান একজন বড় মাপের গ্যাস চোর হয়ে কাজিমুদ্দিন এখন বড় কথা বলছেন। তিনি তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর বিরুদ্ধে দূর্ণাম করে বেড়াচ্ছেন। টাকা দিয়ে বিভিন্ন মাধ্যমে অপপ্রচারে লিপ্ত রয়েছেন তিনি। অথচ তিনি নিজেই চিহ্নিত গ্যাস চোর হিসাবে পরিচিত। তাই কলাগাছিয়ার মানুষ এই ধরনের দূর্ণীতিবাজ ব্যাক্তিকে ভোট দেবে না বলেই একাট্টা হচ্ছেন। তারা মনে করেন আর যাই হোক এমন একজন গ্যাস চোরকে দিয়ে ইউনিয়নবাসীর কোনো উপকার হবে এটা কেউ বিশ^াস করেন না। তাই কাজিমুদ্দিন যাই বলেন না কেনো আরো আগেই স্থানীয় জনগনের মাঝে তার মুখোশ খসে পরেছে এবং তারা তাকে ভোট না দেয়ার স্বিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তাই আগামী ১১ নভেম্বরের নির্বাচনে তার পরাজয় নিশ্চিৎ বলেই মনে করেন কলাগাছিয়া ইউনিয়নের সর্ব স্তরের সাধারন মানুষ।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *