Home » প্রথম পাতা » না’গঞ্জে করোনা প্রতিরোধে সচেতনতামূলক প্রচারণা শুরু

কেউ সফল কেউ অপেক্ষায়!

০৫ নভেম্বর, ২০২১ | ১১:৫২ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 69 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

নারায়ণগঞ্জে ক্ষমতাসীন দলে বিরোধের রাজনীতি চলছে। বিভিন্ন ইস্যুতে নেতারা একে অপরের সাথে বিরোধে জড়িয়ে যাচ্ছেন। সর্বশেষ স্থানীয় সরকার নির্বাচন ইস্যুতে নেতায় নেতায় দ্বন্দ্ব চলছে। দলের শীর্ষ নেতা থেকে শুরু করে মাঠ পর্যায়ের নেতাদের দ্বন্দ্বে সাংগঠনিক ভাবে পিছিয়ে পড়ছে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগ। মূলত রাজনীতির লক্ষ্য গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থা এবং জনকল্যাণ। কিন্তু নারায়ণগঞ্জে রাজনীতির সেই চর্চা নেই। রাজনৈতিক দলের নেতারা জনকল্যাণের পরিবর্তে নিজেদের স্বার্থ হাসিল করতে ব্যস্ত রয়েছেন। জনসাধারণের দু:সময়ে তাদের পাশে দেখা যায় না রাজনীতিকদের। নারায়ণগঞ্জে রাজনীতির সঠিক চর্চা না হওয়ায় নতুন নেতৃত্ব সৃষ্টি হচ্ছে। পাশাপাশি স্বার্থবাজদের কারণে রাজনীতি এখন ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানে রূপ নিচ্ছে। নেতা হলে লাখ লাখ টাকা খরচ করছেন। আর নেতা হওয়ার পর লাভসহ সেই টাকা উসুল করছেন। যার ফলে নারায়ণগঞ্জে জন্যকল্যাণের জন্য রাজনীতির চর্চা হয় না। সূত্র বলছে, টানা ১৩ বছরেরও বেশি সময় ধরে আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায়। এরই মধ্যে নারায়ণগঞ্জে ক্ষমতাসীন দলের অনেক নেতাই আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ বনে গেছেন। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে স্থানীয় আওয়ামীলীগের কতিপয় নেতারা নিজেদের সাধারণ মানুষের নেতা দাবী করলেও বর্তমান পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষের পাশে দেখা যাচ্ছে না তাদের। এতে করে স্থানীয় নেতাদের প্রতি সাধারণ মানুষের ক্ষোভ বাড়ছে। কেননা, রাজনীতি সাধারণ মানুষের কল্যাণে হলেও স্থানীয় কতিপয় নেতারা নিজের ভাগ্যের পরিবর্তন করতে রাজনীতিতে সক্রিয় রয়েছেন। অধিকাংশরাই তাতে সফল হয়ে নিজেদের ভাগ্যের পরিবর্তন করতে সফল হয়েছেন। অনেকে আর ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য আওয়ামীলীগে যোগদান করে অপেক্ষায় রয়েছেন। জানাগেছে, টানা তৃতীয় বারের মত ক্ষমতায় আসায় নারায়ণগঞ্জে ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের ভাগ্যের পরিবর্তনের হিড়িক পড়েছে। এরই মধ্যে অনেকে নিজেদের ভাগ্যের পরিবর্তন করেছেন। তবে নেতাদের ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটলেও ত্যাগী কর্মীদের বরাবরের মতই ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটেনি। একাধিক মাঠ পর্যায়ের নেতা-কর্মী জানান, জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের শীর্ষ নেতা থেকে শুরু করে থানা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতারা নিজের ভাগ্যের পরিবর্তন এমন ভাবে করেছেন যেম মনে হয় আলাদীনের আশ্চর্য্য প্রদীপ পেয়েছেন। অনেকেই রয়েছেন এক সময় টিনের বাড়ি ও রিক্সায় চলা ফেরা বরলেও বর্তমানে আলিশান বাড়িতে বসবাস আর ব্রান্ডে গাড়ীতে গড়েন। আলাদীনের আশ্চর্য্য প্রদীপের ক্ষমতায় আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ বনে গেছেন। আর আগামী নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন, জেলা পরিষদ ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে এরাই বেশ সরব রয়েছেন। অভিযোগ রয়েছে, অনেক নেতা সাধারণ মানুষের উপর অত্যাচার চালিয়ে অর্থ কামিয়েছেন। আবার কেউ কেউ অবৈধ-ভাবে বিভিন্ন সেষ্টর নিয়ন্ত্রণে রেখে আবার কেউ সরকারি উন্নয়ন কাজের টেন্ডার নিয়ে দূর্নীতির মাধ্যমে বিপুল পরিমান অর্থের মালিক বনে গেছেন। সূত্র বলছে, সরকারি বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প যেমন- রাস্তা ও ড্রেন নির্মাণ, ভবণ নির্মাণসহ সকল প্রকার উন্নয়ণ মূলক কাজের টেন্ডার ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের দখলে রয়েছে। বিশেষ করে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের সকল উন্নয়নমূলক কাজের জেলা আওয়ামীলীগের এক নেতার নিয়ন্ত্রনে রয়েছে। মেয়র সেলিনা হায়াত আইভীর ঘনিষ্টজন হওয়ায় ঐ ঠিকাদার এখন জেলার শ্রেষ্ট কর দাতা। তেমনি এছাড়াও শামীম অনুসারি কয়েকজনের নিয়ন্ত্রনে রয়েছে সদর উপজেলার উন্নয়ণমূলক কাজের টেন্ডার। শুধু তাই নয় গার্মেন্সের ঝুট সেক্টর ক্ষমতাসীন দলের একাধিক নেতা নিয়ন্ত্রণ করছেন। গার্মেন্টের ঝুট ব্যবসা থেকে শুরু করে হাট-মাঠ ঘাটসহ সকল ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করছে ক্ষমতাসীন দলের হাতেগুনা কিছু নেতা। যারা দলীয় পদ পদবী ব্যবহার করে বিভিন্ন সেক্টর দখল করে রাতারাতি আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ বনেছে। সম্প্রতি সবচেয়ে আলোচিত বিষয হল- ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে কুতুবপুর ও আলীরটেকে নৌকা প্রতীক এমন ব্যক্তিরা পেয়েছেন যারা কখনোই আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন না। যা নিয়ে স্থানীয় নেতাদের মধ্যে ক্ষোভের যেন শেষ নেই।

 

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *