Home » শেষের পাতা » মেয়াদি সুদের ফাঁদে জিম্মি হত-দরিদ্র জনগোষ্ঠী

কেন্দ্রের নজরে না’গঞ্জ আ’লীগ!

২৬ জানুয়ারি, ২০২২ | ৯:০২ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 124 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

দ্বিধা-বিভক্ত নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের দিকে এবার ‘বিশেষ নজর’ দিতে চায় দলের শীর্ষ নেতৃত্ব। বারবার বলার পরেও সর্বশেষ নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনে স্থানীয় নেতাকর্মীরা নৌকার পক্ষে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ না করায় সেখানকার রাজনীতি নিয়ে নতুন করে ভাবনা শুরু করেছেন কেন্দ্রীয় নেতারা। কেন্দ্র সিদ্ধান্ত নিয়েছে, নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগের রাজনীতি কারও বলয়ে আবদ্ধ থাকবে না। নৌকার জয়ের চেয়ে যারা ব্যক্তি স্বার্থকে গুরুত্ব দেয়, তাদের ব্যাপারে দলের শীর্ষ নেতৃত্ব নাখোশ। এ অবস্থায় স্থানীয় পর্যায়ে কেউ দলের নির্দেশনা না মানলে কঠোর ব্যবস্থা নেবে কেন্দ্র। নির্বাচনের আগে মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত করার মধ্য দিয়ে মূলত এই বার্তাই দেওয়া হয়েছিল। নির্বাচনে নৌকার জয় উদযাপনের পাশাপাশি নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দের নাসিক নির্বাচনের ভূমিকা পর্যালোচনা করে পুনরায় বিভিন্ন কমিটি করা শুরু করেছে দলটি। নির্বাচনের রাতে দলীয় প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর বিজয় নিশ্চিত হওয়ার পরপর শুধু আড়াইহাজার ছাড়া নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সব থানা ও ওয়ার্ডের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়। এটাও ছিল এক ধরনের বার্তা। স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নির্মল রঞ্জন গুহ জানান, নাসিক নির্বাচনে আন্তরিকভাবে আইভীর পক্ষে কাজ না করায় তারা এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। একই কথা বলেছেন সাধারণ সম্পাদক আফজালুর রহমান। গত সোমবার মহানগর শ্রমিক লীগের কমিটিও বিলুপ্ত করে সংগঠনটি। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম খসরু জানান, আওয়ামী লীগের নির্দেশে শ্রমিক লীগের মহানগরের কমিটি বিলুপ্ত করা হয়েছে। সূত্র জানায়, শুধু সহযোগী সংগঠনেই নয়, নারায়ণগঞ্জ মহানগর ও জেলা আওয়ামী লীগের কিছু নেতার বিষয়ে কঠোর হতে পারে আওয়ামী লীগ। জবাবদিহিতার আওতায় আনা হতে পারে নারায়ণগঞ্জের একাধিক সংসদ সদস্যসহ কয়েকজন প্রতিনিধিকেও। দলের সভাপতিমন্ডলীর একজন সদস্য জানান, আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তের প্রতি যাদের আস্থা নেই, তাদের দলে প্রয়োজন নেই। তাদের মনে রাখা উচিত, দলে শেখ হাসিনা ছাড়া কেউ অনিবার্য নয়। জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম বলেন, ‘নির্বাচনপরবর্তী সময়ে আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী সংগঠনের নারায়ণগঞ্জ শাখার বিষয়ে আমাদের কিছু পর্যবেক্ষণ আছে। সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব। আমাদের মনে হয়েছে আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগ, যুব মহিলা লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, শ্রমিক লীগ প্রভৃতি সংগঠনের কাঠামোগত দুর্বলতা রয়েছে। নাসিক নির্বাচনে দলের কেন্দ্র থেকে আমরা যারা কাজ করেছি, আমাদের সবার উপলব্ধিই এক। তার আলোকেই কিছু জরুরি সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *