Home » প্রথম পাতা » শ্রী কৃষ্ণের জন্মাষ্টমী আজ

গ্যাসের বর্ধিত মূল্য প্রত্যাহারের দাবিতে নারায়ণগঞ্জে বাসদের মানববন্ধন

০৮ জুন, ২০২২ | ১২:৩৪ অপরাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 38 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

গ্যাসের বর্ধিত মূল্য প্রত্যাহার, চালসহ নিত্যপণ্যেও দাম কমানো, সীতাকু-ে অগ্নিকা-ে মৃত্যুর জন্য দায়ীদের সর্বোচ্চ শাস্তি, নিহতদের আজীবন আয়ের সমান ক্ষতিপূরণ, আহতদেও সুচিকিৎসা, পুর্নবাসন, উপযুক্ত ক্ষতিপূরণের দাবিতে বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার উদ্যোগে গতকাল মঙ্গলবার বিকাল ৫টায় নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন ও শহরে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ নারায়ণগঞ্জ জেলার সদস্যসচিব আবু নাঈম খান বিপ্লবের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট জেলার সভাপতি সেলিম মাহমুদ, বাসদ সোনারগাঁ উপজেলার সমন্বয়ক বেলায়েত হোসেন, ফতুল্লা থানার সদস্যসচিব এস এম কাদির, ফতুল্লা ইউনিয়নের সদস্যসচিব সাইফুল ইসলাম শরীফ। নেতৃবৃন্দ বলেন, সরকার জনমত উপেক্ষা করে গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির ঘোষণা দিয়েছে, যা জুন মাসের ১ তারিখ থেকে কার্যকর হবে। বাসাবাড়ির দুই চুলা ১০৫ টাকা, এক চুলা ৬৫ টাকা বাড়ানো হয়েছে। শিল্প প্রতিষ্ঠান, হোটেল, প্রিপেইড মিটার, ক্যাপটিভ, সার কারখানা প্রায় সমস্ত ক্ষেত্রেই গ্যাসের দাম বাড়ানো হয়েছে। গড় বৃদ্ধি প্রায় ২৩%। যখন গ্যাস সঞ্চালন ও বিতরণ কোম্পানিগুলো সব লাভজনক অবস্থায় তখন এই সিদ্ধান্ত কার স্বার্থে? এমনিতেই নিত্যপণ্যের বাজারে আগুন। গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি জিনিসপত্রের দাম আরেকদফা বাড়াবে। অজুহাত দেয়া হয়েছে এলএনজি আমদানির কারণে এই মূল্য বৃদ্ধি। বিশেষজ্ঞ মতে, দেশীয় সংস্থার দ্বারা গ্যাসক্ষেত্র অনুসন্ধান ও উত্তোলন করলে আমাদের গ্যাসের ঘাটতি হওয়ার কথা নয়। বর্তমান অবস্থায়ও দুর্নীতি ও ভুলনীতি পরিহার করলে বৃদ্ধি নয় গ্যাসের দাম কমানো সম্ভব। বাস্তবে এলএনজি আমদানিকারক ব্যবসায়ীদের স্বার্থরক্ষায় এই মূল্য বৃদ্ধি। নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, ভরা মওসুমেও চালের দাম বাড়ছে। গত তিন সপ্তাহে চালের দাম ৫ টাকা বেড়েছে। বিগত এক মাসে চাল, সয়াবিন তেল, চাল, ডাল, মাছ-মাংস, আটা, ময়দাসহ এমন কোন জিনিস নেই যার দাম বাড়েনি। বড় সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীদের কারণে এ দাম বৃদ্ধি। অসৎ ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট ভেঙ্গে দিতে সরকার সম্পূর্ন ব্যর্থ হয়েছে। ব্যর্থতার দায়ে বাণিজ্যমন্ত্রী, খাদ্যমন্ত্রীকে অপসারণ করা দরকার। নেতৃবৃন্দ বলেন, সীতাকু-ে বি এম কন্টেইনার ডিপোর অগ্নিকা- নিছক কোন দূর্ঘটনা নয়, এটা কাঠামোগত হত্যাকা-। মালিকদের অতিমুনাফার স্বার্থে যথাযথ নিরাপত্তা ব্যবস্থা না নেয়া এবং বিগত এধরণের ঘটনায় শাস্তি না হওয়ার কারণে এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটছে। সীতাকু-ের ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে দায়ী মালিক ও তার কর্তৃপক্ষকে সর্বোচ্চ শাস্তি দিতে হবে, সরকারি তদারকি সংস্থার দ্বায়িত্বপ্রাপ্তদেরও শাস্তির আওতায় আনতে হবে। নিহতদের আজীবন আয়ের সমান ক্ষতিপূরণ ও আহতদের সুচিকিৎসা, পুর্নবাসন ও উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ দিতে হবে।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *