আজ: মঙ্গলবার | ২রা জুন, ২০২০ ইং | ১৯শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ১০ই শাওয়াল, ১৪৪১ হিজরী | বিকাল ৩:০৫

সংবাদের পাতায় স্বাগতম

চাষাড়ার ‘টর্চার সেল’ নিয়ে জনমনে আতঙ্ক!

ডান্ডিবার্তা | ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ | ১১:২৪

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
শহরের একটি টর্চার সেলের খবর ‘টক অব দ্য টাউন’ এ পরিণত হয়েছে। সর্বত্রই কৌতুহল, গ্রেফতার যুবকেরা কার লোক, কোন ভাই দিতেন তাদেরকে শেল্টার! এ নিয়ে চলছে সর্বত্র আলোচনা। সেই সাথে দেখা দিয়ে জনমনে আতঙ্ক। যদিও বলা হচ্ছে, একজন এমপি পুত্রের নাম ভাঙ্গিয়ে গ্রেফতার যুবকেরা শহর দাবড়িয়ে বেড়াতেন। কিন্তু কে সেই এমপি পুত্র, সেটি এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে, নগরবাসীর আলোচনায় উঠে এসেছে যারাই এই টর্চার সেলে নিয়ন্ত্রক, তাদেরকে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হোক। একই সঙ্গে শহরের আর কোথাও এমন টর্চার সেল রয়েছে কিনা, সেগুলোর সন্ধানেও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে আরও তৎপর হতে বলছেন তারা। অন্যদিকে একটি পক্ষ বলছে, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনীর তৎপরতা তেমন না থাকার কারণে কোনো কোনো অপরাধী নিজেদেরকে অমুক ভাইয়ের লোক, তমুক ভাইয়ের লোক পরিচয় দিয়ে শহর দাবড়িয়ে বেড়ায়। চাঁদাবাজি থেকে শুরু করে এরাই নিয়ন্ত্রণ করে মাদক ব্যবসার। কিন্তু যেসব ভাইদের নাম তারা বিক্রি করে থাকে, আদতে সেসব ভাইয়েরা তাদেরকে শেল্টার দেন না। এরা কেবলমাত্র ‘ভাই’ এর নামটাই বিক্রি করে রক্ষা পেতে চায়। তবে, প্রকৃত অর্থে কোনো ভাইয়ের হাত এসব যুবকদের মাথায় আছে কিনা, সে বিষয়টি খুঁজে বের করার দায়িত্ব আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনীর। প্রেকাশ্যে আসা দরকার এদের শেল্টারদাতা। কেননা, এক শ্রেণির বাইদের আস্কারাতেই এরা বেপরোয়া। কারো ছত্রচ্ছায়া ছাড়া এই চক্র কোনোভাবেই এতটা বেপরোয়া হয়ে উঠতে পারে না বলেই বিশ্বাস করেন অনেকে। সূত্র জানায়, গেল কয়েক বছর ধরে একটি পক্ষ দাবি করে আসছিলো, শহরে প্রভাবশালী একটি পরিবারের লোকজনের কয়েকটি টর্চার সেল রয়েছে। এসব টর্চার সেলে লোকজন ধরে এনে নিমর্ম নির্যাতন চালানো হয়, এমন দাবিও তারা করেছিলেন সভা সমাবেশ থেকে।
তাদের আরও দাবি ছিলো, এসব টর্চার সেলের একটিতে ৭ বছর পূর্বে স্কুলছাত্র ত্বকীকে তুলে এনে হত্যা করা হয়েছিল। এবং এসবের নিয়ন্ত্রক কে বা কারা, সে বিষয়ও তারা বিশদ বর্ণনা করেছিলেন। প্রশাসনের প্রতি আহ্বানও জানানো হয়েছিলো এসব বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে। জেলার আইন-শঙ্খলার সভাতেও এ নিয়ে কথা বলেছিলেন প্রেসক্লাব সভাপতি মাহাবুবুর রহমান মাসুম। কিন্তু কাজের কাজ কিছু হয়নি। গত রবিবার শহরের চাষাড়াতে তেমনই আরেকটি টর্চার সেলের গল্প প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই শুরু হয় আলোচনা। এ টর্চার সেলে অভিযান চালিয়ে শাহজাহান নামে একজন অপহৃতকে উদ্ধারসহ ছাত্রলীগের পরিচয়দানকারী তিন যুবককে আটকও করেছে পুলিশ। অভিযানে সাথে ছিলো র্যাব-১১ এর একটি দলও। আটকরা হলো, পাইকপাড়া পুল এলাকার আলাউদ্দিনের ছেলে মো. সানি (২৮), ২১৭ নং বিবি রোডের মৃত নাছির আহম্মেদের ছেলে মো. হানিফ নাঈম (৩০) এবং দেওভোগ আখড়া দিঘির পাড় এলাকার বাবল বিশ্বাসের ছেলে শ্রী রতন বিশ্বাস (২৯)। তাদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা দায়ের হয়েছে। পুলিশ ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে এদের আদালতে প্রেরণ করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *