Home » প্রথম পাতা » রূপগঞ্জ ভ’মি অফিসে অনিয়মই যেন নিয়ম

জাপার বিপক্ষে আ’লীগ মাঠে

২০ মে, ২০২২ | ৯:০৫ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 96 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের নেতারা। ইতিমধ্যে তারা বিভিন্ন সভা সমাবেশে দাবি তুলছেন নারায়ণগঞ্জ সদর-বন্দর আসনে আর লাঙ্গল নয় এবার নৌকা চাই। বিগত নির্বাচনগুলিতে লাঙ্গল প্রতীক আওয়ামীলীগেরই অংশ হিসাবে নৌকার পরিবর্তে লাঙ্গল দেয়া হয়েছে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ থেকে। কারণ জাতীয়পার্টি মহাজোটের শরীক দল আর শরীক দল হিসাবে জাতীয়পার্টি আওয়ামীলীগের অংশ হিসাবে নৌকার পরিবর্তে লাঙ্গল দেয়া হয়েছে। আর আওয়ামীলীগের নীতিনির্ধাকরা মনে করেছেন ক্ষমতায় যেতে হলে যেখানে লাঙ্গল দেয়া প্রয়েজেন তারা সেখানে লাঙ্গল দিয়েছেন। নারায়ণগঞ্জ জাতীয়পার্টিও আওয়ামীলীগের ছায়া হিসাবে তাদের অবস্থার ধরে রেখেছে। তারপরও নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগ নেতারা এখন লাঙ্গলের বিরুদ্ধে সোচ্চার। বিগত নির্বাচনগুলিতে আওয়ামীলীগের শীর্ষ নেতা স্বীকার করেছেন তারা ব্যালট ছিনতাই করে লাঙ্গলের প্রার্থীকে জয়ী করেছেন। যা নিয়ে শহরে ব্যাপক সমালোচনা হয়েছে। গত বছর হয়ে যাওয়া ইউপি নির্বাচনগুলিতে আওয়ামীলীগের অবস্থান কতটুকু জনগণের মাঝে আস্থায় রয়েছে তার কিছুটা প্রমাণ পাওয়া গেছে। অনেক স্থানে নৌকার চরম ভরাডুবি হয়েছে। আবার কোথায়ও বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নৌকার প্রার্থীকে নির্বাচিত করে নিতে হয়েছে। এমন মন্তব্য একাধিক সুশিল সমাজের। সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের একটি সভায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জাতীয় কমিটির অন্যতম সদস্য এড. আনিসুর রহমান দিপু বলেন, সদর-বন্দর এ আমরা নৌকা চাই। আমরা গতবার বলেছি এবং বার বার বলছি। নেত্রীর কাছে হাত জোড় করে বলছি, এই লাঙ্গলের চোয়াল আমাদের কাধঁ থেকে সরিয়ে নেন। এতা কষ্ট আর সহ্য হয় না। আর নির্যাতন সহ্য হয় না। আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় জননেত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় ঐ জামায়াত শিবির রাজাকারের সন্তানেরা আজ প্রচন্ড প্রভাব নিয়ে নারায়ণগঞ্জে রাজত্ব করছে। আমাদের কিছু নেতা কথায় কথায় জামায়াত শিবিরের কথা বলে কিন্তু পাশে রাজাকারের সন্তানকে বসিয়ে রাখে। আমাদের কিছু নেতা কথায় কথায় হাইব্রিডদের কথা বলে হাইব্রিডদের কোলে নিয়ে বসে থাকে। এই হাইব্রিডদের প্রতিহত করতে হবে। রাজাকারের সন্তানদের প্রতিহত করতে হবে। এই নারায়ণগঞ্জে আওয়ামীলীগের জন্ম। এই নারায়ণগঞ্জকে সংগঠিত করতে হবে এবং ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। এই স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাদেরকে অনুরোধ করে বলবো সকল ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে আপনারা ঐক্যবদ্ধ হোন। এবার নারায়ণগঞ্জে আমরা নৌকার পতাকা তুলতে চাই। ইনশাল্লাহ এবার নেত্রী আমাদের কথা শুনবেন। জোট হতে পারে? রংপুরে হবে, নীলফামারীতে হবে জোট। নারায়ণগঞ্জে আমরা জোট চাই না। আমরা জোটের জুলুম অত্যাচার আর সহ্য করতে চাই না। এদিকে অপর একটি অনুষ্ঠানে নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর বলতেন আমি চাল চাল ভিক্ষা করে আনি তারা লুটেপুটে খায়। এক সামরিক কর্মকর্তা বলেছিলেন হায়েনারা দেশ লুটেপুটে খাচ্ছে। আমি যদি আবার যুদ্ধের ডাক দেই তোমরা থাকবে না? তারা হ্যা বলেছিল। আমরা আজও সেই একই দৃশ্য দেখছি। জাতির জনকের কন্যা অনেক কাজ করছেন কিন্তু তা বৃথা হয়ে যাচ্ছে। কারণ আমরা তার উন্নয়ন প্রচার কারতে পারছি না। আমরা একজন আরেকজনকে পিছুটান দিয়ে রাখি। একজন আরেকজনকে নেতা হতে বাধা দেই।  তিনি আরো বলেন, শেখ হাসিনা তৃণমূল নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করতো চায়। কিছু দিন আগে মীর্জা আজম বললেন সৎ নেতৃত্বকে ঘর থেকে বের করে এনে নেতৃত্ব দিতে হবে। তবে তার লক্ষন দেখছি না। শেখ হাসিনার কাছে সব মেসেজ যায় না। এসময় তিনি নারায়ণগঞ্জের রাজনীতির পরিস্থিতি তুলে বলেন, আজ নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগ প্রার্থী দিতে পারে না। সেখানে বিএনপি, হেফাজত থেকে প্রার্থী এনে দাঁড় করাতে হয়। আর তারা নির্বাচিত হয়ে বলে নৌকা না হলে আরও বেশি ভোট পেতাম। আজ বন্দরে আমাদের নেতারা মার খাচ্ছে। তাদের বাড়ি-ঘর লুট করা হচ্ছে। আর সেখানকার আওয়ামী লীগের নেতারা হাওয়া খায়। শেখ হাসিনা রাত-দিন আওয়ামীলীগের জন্য দেশের জন্য কাজ করছে। তার সকল কাজ আমাদের মত কিছু নেতার জন্য নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। আসুন নিজেদের শুধরাই। দল বাঁচলে আমরা বাঁচব। বর্তমানে এসকল নেতাদের বক্তব্যে বুঝা যায় বিরোধের কারণে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের অবস্থা নড়বড়ে। সামনে নারায়ণগঞ্জে তাদের দাঁড়াতে হিমশিম খেতে হবে তাই তারা এখন থেকে আগামী সংসদ নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে। তবে এই ক্ষেত্রে জাতীয়পার্টির নেতারা বসে নেই তারাও নির্ভাচনের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে। তবে বিএনপি এ ক্ষেত্রে কোন আগ্রহ দেখাচ্ছে না। এছাড়া জাতীয় সরকারের ফমূর্লা নিয়েও সর্বত্র আলোচনা হচ্ছে। নির্বাচন ঘনিয়ে আসলে দেখা যাবে পরিস্থিতি কি হয়?

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *