আজ: শুক্রবার | ১০ই জুলাই, ২০২০ ইং | ২৬শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ১৯শে জিলক্বদ, ১৪৪১ হিজরী | বিকাল ৪:৩৭

সংবাদের পাতায় স্বাগতম

তাহসান কন্যার কণ্ঠের মুগ্ধ অন্তর্জাল

ডান্ডিবার্তা | ৩০ জুন, ২০২০ | ৫:৩৩

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট গানের নেপথ্যের গল্পও প্রকাশ করেছেন তাহসান। সেই বার্তাও হৃদয়ছোঁয়া। লিখেছেন, ‘আমার মেয়ে : বাবা চলো একটা গান লিখি, আমি এক লাইন লিখব, তুমি এক লাইন, এভাবে। শেষ পর্যন্ত যা দাঁড়াল তার প্রথম চার লাইনে তিনি বৃষ্টিতে ভিজতে চান, আর তার বাবা তাকে পরের দুই লাইনে ভিজতে বারণ করছেন… অদৃশ্য পরজীবীটাকে কুপোকাত করতে পারলে আমরা আবার ভিজব, সেদিন আমরা আর জ্বর-ঠাণ্ডাকে ভয় পাব না, আমরা আবার একদিন ভিজব।’ কী আদুরে বার্তা, তাই না!অনেক গুণে গুণান্বিত সংগীতশিল্পী তাহসান খান। ভিন্ন ধাঁচের গানের পাশাপাশি অভিনয়েও তুমুল জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন তিনি। প্রেমময় কিংবা বিরহপূর্ণ, যেকোনো চরিত্রে তাহসানকে লুফে নেন দর্শক। আর তাঁর কণ্ঠের জাদু তরুণকুলে ভীষণ জনপ্রিয়। কিন্তু আপনি কি তাঁর আদুরে কন্যা আরিয়ার কণ্ঠ শুনেছেন? যদি না শুনে থাকেন, তবে এখনই শুনে নিন। বাবা তাহসানের মতোই সুরেলা কণ্ঠের অধিকারী ছোট্ট আরিয়া। বাবাকে আরিয়া বলল, ‘চলো একটা গান লিখি, আমি এক লাইন লিখব, তুমি এক লাইন, এভাবে।’ হ্যাঁ, এভাবে চার লাইনে একটি গান হয়ে গেল। গানের কথায় বোঝা গেল, বৃষ্টির স্পর্শ চায় আরিয়া। আদুরে মেয়ের কথা না রেখে পারেন বাবা? শুরু হলো বাবা-মেয়ের গান লেখা, তারপর কণ্ঠ। একসঙ্গে গাইলেন তাঁরা। শেষে বাবা-মেয়ে আনন্দে নেচে ওঠেন। আর তারই একটি আদুরে মুহূর্তের ভিডিও ক্লিপ তাহসান প্রকাশ করলেন অন্তর্জালে। নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক হ্যান্ডেলে তাহসান মেয়ের সঙ্গে গানটির ভিডিও ক্লিপ আপ করেছেন। তাঁদের সুরেলা কণ্ঠে বুঁদ হয়ে আছেন অনুরাগীরা। প্রকাশের মাত্র তিন ঘণ্টায় সাড়ে পাঁচ লাখের বেশি ভিউ পেয়েছে গানটি ছোটপর্দায়ও ভীষণ জনপ্রিয় তাহসান। গত বছরের ডিসেম্বরে শততম নাটকের মাইলফলক স্পর্শ করেছেন এই অভিনেতা-সংগীতশিল্পী। ধারাবাহিক নাটক ‘কাছের মানুষ’ দিয়ে নাটকে অভিষেক হয় তাঁর। এরপর তাহসান অভিনয় করেন আরো বেশ কিছু নাটকে, যার মধ্যে অনেক নাটকই দর্শকপ্রিয়তা পায়। অভিনয়, গানে তাহসান হয়ে ওঠেন দেশের অন্যতম জনপ্রিয় তারকা। তাহসানের জনপ্রিয় নাটকগুলোর মধ্যে রয়েছে ‘মনফড়িং এর গল্প’, ‘মনসুবা জংসন’, ‘নীল পরী নীলাঞ্জনা’, ‘ল্যান্ডফোনের দিনগুলোতে প্রেম’, ‘এংরি বার্ডস’, ‘মিস্টার অ্যান্ড মিসেস’ প্রভৃতি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *