Home » শেষের পাতা » বন্দরে ২৭টি পূজামন্ডপে চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি

তৈমূরের সমর্থকদের হয়রানি

১১ জানুয়ারি, ২০২২ | ৮:০২ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 97 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার প্রধানমন্ত্রীকে  ইঙ্গিত করে বলেছেন, তিনি তো নিজের দলীয় প্রার্থীকে ঘোষণা দিয়ে দিলেই পারে। নির্বাচন করার কী দরকার। গতকাল সোমবার রাতে জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সামনে এক সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন তিনি।  তৈমূর বলেন, রবি যদি ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি হয়েই থাকে তাহলে এতদিন ওয়ারেন্ট কার্যকর হয়নি কেন। যেদিন আমি মনোনয়ন কিনি সেদিন তিনি পাশে ছিল। যেদিন জমা দেই সেদিও ছিল, যেদিন বাছাই হয় সেদিনও রবি পাশে ছিল। মার্কার দিনও তারা সাথে ছিল। সব জাতীয় পত্রিকাতে ছবি এসেছে। রবি কামালসহ সকলে আমার পাশে ছিল। এতদিন হল না এখন কার্যকর হল কেন।  ”জোসেফের বাড়িতে অভিযান হয়েছে তার বিরুদ্ধে কোন ওয়ারেন্ট নেই। মাইকম্যান ও চেয়ারম্যান কামালের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদেরও কোন ওয়ারেন্ট নেই। ” তিনি বলেন, আমি কোন আশংকায় ভুগী না। আমি আল্লাহর উপর ভরসা করে চলি। আমি গুলি খাওয়ার পরেও আল্লাহ আমাকে বাঁচিয়ে রেখেছে। আমার পাশের লোকটা সেদিন সাথে সাথে মারা গেছে। এভাবে যদি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীদের  হয়রানি করে তাহলে তো অন্যান্য দল নির্বাচন বর্জন করবে। নির্দলীয় তত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে ছাড়া যে সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না এটাইতো প্রমানিত হচ্ছে। রিটার্নিং অফিসারকে এ পর্যন্ত তিনটা চিঠি দিয়েছি। একটি চিঠিরও উত্তর পাইনি, কোন পদক্ষেপও দেখিনি। আমি ডিসি এসপির সামনে সেদিন মিটিংয়ে বলেছি রাস্তায় তোড়ন নির্মাণ করার কোন নিয়ম নেই। নারায়ণগঞ্জে কয়েক জায়গায় বিশাল নৌকার তোড়ন নির্মাণ করা হয়েছে। আমার পোস্টার ছিড়ে ফেলা হচ্ছে। যে মাপে ফেস্টুন করার কথা তারা এর চেয়ে অনেক বড় মাপে ফেস্টুন করছে। নিয়ম না থাকলেও বাইরে থেকে এমপিরা এসে এখানে জনসভা করছে। এটা কী আচরণবিধির লঙ্ঘন নয়। তিনি আরো বলেন, আমার ধারণা জাহাঙ্গীর কবির নানকের আল্টিমেটামের কারনেই এখন এই গ্রেফতার শুরু হয়েছে। এভাবে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব না। এভাবে গণহারে গ্রেফতার করলেই তো মানুষ আতঙ্কে পড়ে যাবে। যত প্রতিকূল অবস্থাই হোক আমি নির্বাচন চালিয়ে যাবো। আমার দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে মিটিং করে এসেছি। তারা এখন আরও ঐক্যবদ্ধ। তারা বলেছে যে কোন মূল্যে নির্বাচন চালিয়ে যাবো। আমার পদ প্রত্যাহার করা হয়েছে। একটা রাজনৈতিক দলকে অনেক কৌশল অবলম্বন করতে হয়। আমার নেতাকর্মীরা বসে নেই। অন্যদিকে সরকারি দলের বিভাজন দিনের আলোর মত স্পষ্ট হয়ে গেছে।

 

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *