Home » প্রথম পাতা » রূপগঞ্জ ভ’মি অফিসে অনিয়মই যেন নিয়ম

থমকে গেছে বিএনপির কমিটি

১২ মে, ২০২২ | ৬:৫৪ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 104 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

মামুন মাহমুদের উপর হামলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে জেলা বিএনপি পুর্ন:গঠণ প্রক্রিয়া থমকে দাড়িয়েছে। নাসিক নির্বাচনকে ঘিরে নানা নাটকীয়তার মধ্য দিয়ে জেলা দশটি কমিটির অনুমোদ দেয়ার পর জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির উপর মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীরা ফুসে ওঠে। জেলার বিভিন্ন স্থানে নানা ধরনের প্রতিবাদ শুরু হয়। ভারপ্রাপ্ত আহবায়ক নাসির উদ্দিন ও সদস্য সচিব মামুন মাহমুদের কুশপত্তলিকাও দাহ করা হয়েছে। সড়কে বিক্ষোভ এবং সংবাদ সম্মেলনও করেছে কিছু নেতা। এছঅড়া তারেক রহমান ও কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছেও নালিশ দিয়েছে পদ বঞ্চিত কেউ কেউ। কিন্তু, সব ঘটনাকে ডেকে দিয়েছে মামুন মাহমুদের উপর হামলার ঘটনাটি। যদিও দলের কেউ কেউ বলছে এটা ছিনতাইয়ের ঘটনা। আবার কেউ কেউ বলছে এটা সাজানো ঘটনা। মামুন মাহমুদ সব বিতর্ক থেকে বাচতে এবং এবং কেন্দ্রীয় নেতাদের সহানুভুতি পেতে এই নাটক সাজিয়েছেন। তবে এ ঘটনাকে পুজি করে দলের একটি পক্ষ নিজ দলের প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার মিশনে নেমেছে। একে অপরকে জড়িয়ে নানা অপপ্রচার এবং প্রপাগান্ড ছড়িয়ে রাজনৈতিক ভাবে ফায়দা লুটতে চাচ্ছেন। তবে সব কিছুকে পেছনে ফেলে জেলা বিএনপির পূর্নঙ্গ কমিটি গঠনের দাবি জোড়ালো হচ্ছে। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকজন নেতা সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক হতে নানামুখী তৎপরতা শুরু করেছে। বিগত দিনের ফিরিস্ত তুলে ধরে কেউ কেউ দলের কাছে যথাযথ মূল্যায়ণ চাচ্ছেন। শেষতক কে হবে জেলা বিএনপির সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক এ বিষয়টিচ দেখার জন্য আরো কয়েক মাস অপেক্ষায় থাকতে হবে এমনটাই জানিয়েছেন বিএনপির একাধিক সূত্র। সূত্র বলছে, জেলা বিএনপির সদস্য সচিব মামুন মাহমুদ সুস্থ না হওয়ায় পর্যন্ত কমিটি গঠন নিয়ে সব ধরনের তৎপরতা বন্ধ থাকবে। তিনি কবে নাগাদ সুস্থ হবেন এবং কমিটি গঠন প্রক্রিয়ায় শুরু করবেন এ বিষয়টি অনেকটা অনিশ্চিত। উল্লেখ্য, গত ২৫ এপ্রিল অধ্যাপক মামুন মাহমুদের পুরানা পল্টনস্থ অফিসে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভা শেষে আনুমানিক রাত ৭ টা ৩০ মিনিটের সময় অধ্যাপক মামুন মাহমুদ বাড়িতে ফেরার উদ্দেশ্য অফিস ভবনের নিচে নেমে এলে কস্তুরি রেস্টুরেন্টের সন্নিকটে পূর্ব থেকেই ওত পেতে থাকা দূর্বৃত্তরা হত্যার প্রচেষ্টায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে আচমকা তার উপর হামলা করে। তাদের কাছে থাকা ধারালো ছুরির উপর্যুপরি আঘাতে অধ্যাপক মামুন মাহমুদ ক্ষতবিক্ষত হয়ে যান। বর্তমানে তিনি ঢাকার একটি হাসপাতালে আশংকাজনক অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *