Home » প্রথম পাতা » শ্রী কৃষ্ণের জন্মাষ্টমী আজ

থামছেনা মাদক ব্যবসা!

১৯ মে, ২০২২ | ১০:০৫ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 36 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল এলাকায় জমজমাট মাদক ব্যবসা, প্রশাসন নিরব। প্রশাসনের কোন রুপ অভিযান না করায় সকল মাদক ব্যবসায়ীরা নির্বিঘেœ তাদের মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। মাদকের ভয়াল থাবায় এলাকার তরুন, ছাত্র ও যুব সমাজ রসাতলে যাচ্ছে। মাদক সেবীদের কারনে এলাকায় বেড়েছে চুড়ি, ছিনতাই, ডাকাতী ও রাহাযানি। ভয়ঙ্কর মাদকের এ থাবা থেকে বাচাঁতে প্রশাসনের নজরদারী জরুরী। নাসিক ৪’নং ওর্য়াড শিমরাইল এলাকার চিহিৃত মাদক ব্যবসায়ীরা হল, তাজজুট মিল মাঠ এলাকায়, টকলি স্বামী মৃত সমশের আলী, তার ছেলে আলিনুর, তার বোন আসমা, আলীনুরের স্ত্রী ফরিদা, তার মেয়ে তানিয় ও ইয়াসমিন, শাহাজান সাধু পিতা হাবিল, আফানুর ও তার স্ত্রী রেসু বেগম, কারিমুন স্বামী আব্দুল কাদের, সেলিনা পিতা আব্দুর রব, শিমরাইল বৌ বাজার এলাকায়, হেলেনা পিতা দবু, তার সেল্স ম্যান হাসিনা স্বামী মমিন আলী, মোহাম্মদ আলী ও তার ভাই মুক্তার, বিথী আক্তার স্বামী জনি, নাজমা স্বামী আব্দুল আজিজ, আলমগীরের স্ত্রী রুনা, জাহাঙ্গীর স্ত্রী রুনা, সাহানাজ, শিউলী, মোস্তফা, টিটু পিতা শুক্কুর, শুক্কুর ও তার স্ত্রী বেদানা, ঠুন্ডি(পরি) স্বামী কালু, শাকিল পিতা জাহাঙ্গীর, শান্ত পিতা কফিলউদ্দিন, নজরুল ও তার স্ত্রী হাসু, জামিরুন স্বমী মৃত ওয়াসিম, শামিম পিতা মৃত জাবেদ আলী, সেলিম ও তার স্ত্রী টুনি, ট্রাকষ্ট্যান্ড এলাকায়, শাহিন, শিপন ও রিপন পিতা বকুল, তারছিরা কামাল, সেকান্দার পিতা জলিল মাদবর কাচঁপুর ব্রিজের ঢালে, দেলোয়ার, মামুন পিতা সেলিম, হৃদয় পিতা কবির হোসেন। এ মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জ ডিবি ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাদের বিরুদ্ধে বহু মামলা দিলেও এসব মাদক ব্যবসায়ীদের জামিনে বের হয়ে এসে আবার মাদক ব্যবসা শুরু করে। এসব মাদক ব্যবসায়ীদের শেল্টারদাতা তাজজুট মিল এলাকার মৃত সমসের আলীর স্ত্রী টকলি। এ ব্যাপারে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা ওসি মশিউর রহমান পিপিএম বার বলেন, এসব মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে বহু অভিযান চালানো হয়েছে। বহু আসামীকে গ্রেফতার করে মামলা দেওয়া হয়েছে। আগামীতে আরো অভিযান চালানো হবে। এছাড়াও সিদ্ধিরগঞ্জ নাসিক ১নং ওয়ার্ড পাগলা বাড়ি মুজিববাগ ও তার আশপাশ এলাকায় মাদক ব্যবসায়ীরা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। যার নেতৃত্ব দিচ্ছে মাদক সম্রাট দেলু ও বাবু। তাদের নেতৃত্বে গড়ে উঠেছে মাদকের স্বর্গরাজ্য। এলাকাবাসী জানায়, মুজিববাগ এলাকার নুরুর বাড়ীর ভাড়াটিয়া মাদক সম্রাট দেলু ও রফিকের বড় ছেলে বাবু নেতৃত্বে চলছে জমজমাট এই মাদক ব্যবসা চলছে দীর্ঘদিন ধরে। মাদক সম্রাট দেলু ও বাবুর সহযোগী হলো মাদকের ডিলার অপু। সে পুলিশের সোর্স হিসেবে এলাকায় পরিচিত। এছাড়াও মিজমিজি আল-আমিন নগর এলাকার মাদকের ডিলার ছাতুর ছেলে ইমরান। মাদক সম্রাট দেলু পুলিশের সোর্স অপুকে দিয়ে পুরো এলাকায় মাদকের নিয়ন্ত্রন করে। আর রফিকের ছেলে বাবু সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশ নিয়ন্ত্রন করে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ। পাগলাবাড়ীর টাইগার ফারুকের ভাই জসীম মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রন করছে বলে প্রশাসনের নিকট অভিযোগ রয়েছে। তারপরও তাদের নিয়ন্ত্রনে নিরব রয়েছে প্রশাসন। পুলিশ প্রশাসনের এই নিরবতা মানুষকে হতাশ করেছে। এলাকার যুব সমাজ হচ্ছে বিপথগামী। অভিভাবকরা হয়ে পড়ছেন চিন্তিত। উল্লেখিত মাদক সম্রাটদের ব্যাপারে ব্যবস্তা গ্রহনের জন্য এলাকাবাসী আদমজীর র‌্যাব -১১ ও নারায়ণগঞ্জ জেলার ডিবি পুলিশ ও নারায়ণগঞ্জ জেলার সুযোগ্য পুলিশ সুপার এবং সিদ্ধিরগঞ্জ থানা ওসি’র কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মাদক সম্রাট দেলু সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশসহ বিভিন্ন থানা পুলিশের হাতে যে কতবার গ্রেফতার হয়েছে তার ইয়াত্তা নেই। পুলিশের হাতে গ্রেফতার হলেও আইনের ফাঁক ফোকর দিয়ে বেরিয়ে আবার শুরু করে মাদক ব্যবসা। তার মাদক ব্যবসায় রয়েছে বিশাল এক সিন্ডিকেট। এই সিন্ডিকেটে রয়েছে মাদকের ডিলার অপু যে পুলিশের সোর্স হিসেবে এলাকায় পরিচিত। এছাড়াও মিজমিজি আল-আমিন নগর এলাকার মাদকের ডিলার ছাতুর ছেলে ইমরান। তাদের প্রত্যেকের নামে রয়েছে একাধিক মামলা। এই সিন্ডিকেট বাহিনীর মাধ্যমে মোবাইলে মোবাইলে যোগাযোগ করে বিভিন্ন জায়গায় পৌছে দেয়া বিভিন্ন ধরনের মাদক। অপর দিকে রফিকের বড় ছেলে বাবুর সাথে রয়েছে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশের গভীর সখ্যতা। যার ফলে পুলিশের সাথে সম্পর্ক থাকায় বাবু ও দেলুর মাদক ব্যবসা চলছে।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *