News

দলের চেয়ে নিজ বলয়কে শক্তিশালী করতে ব্যস্ত আওয়ামীলীগ নেতারা

ডান্ডিবার্তা | 18 January, 2020 | 11:48 am

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

দলের সাংগঠনিক অবস্থান গতি ফিরানোর পরিবর্তে নারায়ণগঞ্জে আওয়ামীলীগের নেতারা নিজেদের বলয়কে শক্তিশালী করতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন। নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে কোন্দলের কারিগররা গতি পরিবর্তন করে নতুন করে বলয় সৃষ্টির আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। বিগত একাদশ সংসদ নির্বাচনের পর নতুন মন্ত্রী সভা গঠিত হলে দক্ষিণ মেরুর কতিপয় নেতা এই বলয় সৃষ্টির চেষ্টা করে যাচ্ছে। তাদের লক্ষ্য নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে ওসমান পরিবারের প্রভাব ক্ষুন্ন করে নিজেদের প্রভাব বৃদ্ধি করে নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে একক আধিপত্য সৃষ্টি করা এমনটাই মনে করছে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। নারায়ণগঞ্জ জেলা শহরের রাজনীতিতে প্রভাবশালী এমপি শামীম ওসমান ও নাসিক মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর পাশাপাশি রূপগঞ্জ আসনের এমপি (বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী) গোলাম দস্তগীর গাজী (বীর প্রতীক), আড়াইহাজার আসনের এমপি নজরুল ইসলাম বাবু প্রভাব বাড়ানোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছে। তাদের মতে, জেলা শহরের রাজনীতির প্রভাব পুরো জেলাতেই বিচরণ করে। এর সূত্র ধরে এবার বিভিন্ন উপজেলার প্রভাবশালী নেতা, এমপি ও বিশিষ্টজনেরা জেলা শহরের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হচ্ছেন। বিগত প্রায় ৮ বছর ধরে নারায়ণগঞ্জ শহরের রাজনীতিতে একচ্ছত্র প্রভাব বিস্তার করেছেন মেয়র আইভী এবং এমপি শামীম ওসমান। তাদের বাইরে মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনের একটি শক্তিশালী অবস্থান ছিলো। আব্দুল হাই জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হওয়ার পর রাজনীতিতে তারও একটি প্রভাব তৈরি হয়েছিলো। তবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে নির্বাচনে মনোনয়ন পাওয়াকে কেন্দ্র করে হেভীওয়েট প্রার্থীরা জেলা শহরের রাজনীতির প্রভাবের বিষয়টি অনুধাবন করেন। নির্বাচনের পর থেকেই এমপি এবং প্রভাবশালী আওয়ামী নেতারা জেলা শহরের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হচ্ছেন। এতদিন নারায়ণগঞ্জের আওয়ামী রাজনীতির সাথে সাধারণ নেতা কর্মীদের সুসম্পর্ক ছিল সব চেয়ে বেশী। শামীম ওসমান বরাবরই রাজনীতিতে মাঠ পর্যায়ের নেতা-কর্মীদের মূল্যায়ন করে আসছেন। যে করাণে নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে শামীম ওসমানকে কর্মী বান্ধব নেতা হিসাবে সবাই জানেন। শামীম ওসমানের চরম প্রতিপক্ষও জানে মাত্র ২৪ ঘন্টার নোটিশে লাখ নেতা-কর্মীর সমাগম একমাত্র শামীম ওসমানই ঘটাতে পারেন। আর এ কারণে একাদশ সংসদ নির্বাচনের পর গাজী গোলাম দস্তগীর, নজরুল ইসলাম বাবু ও ডা. সেলিনা হায়ত আইভী নতুন করে মেরুকরণ করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। রাজনীতিতে কর্মী বিহীন অবস্থায় যত প্রভাবশালীই হোক সেই নেতা মূল্যহীন যার ডাকে কর্মীরা সারা দিয়ে মাঠে নামেন না। এ অবস্থা অনেক দিন পরে হলেও ওসমান পরিবারকে ঘায়েল করতে তৃতীয় একটি বলয় গঠনের প্রক্রিয়া অব্যহত রয়েছে। বিশ্লেষকদের মতে, আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে বেশ কয়েকবছর ধরেই শামীম ওসমানকে কোনঠাসা করার চেষ্টা চালিয়ে আসছে ক্ষমতাসীন দলেরই একটি মহল । আওয়ামীলীগের অনেকেই মনে করেন, নতুন বলয়ে নেতৃত্ব দেয়ার জন্যই একটি তৃতীয় পক্ষ হিসাবে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে আত্মপ্রকাশের লক্ষ্যে তিনি এ পদটি বেছে নিয়েছেন। তাছাড়া জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের সাথে যোগাযোগ বাড়িয়েছেন। এব্যাপারগুলোকে বিশ্লেষকরা জেলা শহর রাজনীতিতে প্রভাব তৈরি করার প্রক্রিয়া হিসেবেও দেখছেন। এরই মধ্যে জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এড.আনিসুর রহমান দিপু তৃতীয় বলয়ের অংশ হিসেবে কাজ করছেন। ইতিমধ্যে আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে পৃথক প্যালেন গঠন করে নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন। মূলত নারায়ণগঞ্জে আওয়ামীলীগের নেতারা দলের স্বার্থে মাঠে কাজ না করে নিজ নিজ বলয়কে শক্তিশালী করতে ব্যস্ত রয়েছেন বলে দাবী করেছেন সাধারণ কর্মীরা।

[social_share_button themes='theme1']

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
৩৩০
সুস্থ
৩৩
মৃত্যু
২১

বিশ্বে

আক্রান্ত
১,৬০৪,৯৮২
সুস্থ
৩৫৬,৯০৩
মৃত্যু
৯৫,৭৩৯