আজ: শুক্রবার | ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ৮ই সফর, ১৪৪২ হিজরি | সকাল ১০:৪৮

সংবাদের পাতায় স্বাগতম

নতুন নেতৃত্বে আসছে বিএনপি!

ডান্ডিবার্তা | ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০ | ৭:২৫

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট
অচিরেই বিএনপির বিলুপ্তি হওয়া কমিটি পূর্ন গঠন হতে যাচ্ছে এমন সংবাদে সরব হয়ে উঠেছে জেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দ। কাদের নেতৃত্বে আসছে জেলা ও মহানগর বিএনপির কমিটি? এমনকি বিলুপ্তি হওয়া কমিটিতে স্থান পেতে দৌড়ঝাঁপও শুরু করে দিয়েছে বিএনপির অনেক নেতৃবৃন্দ। এছাড়া করোনা পরিস্থিতি যতই স্বাভাবিক হতে যাচ্ছে ততটাই বিএনপির কমিটি গঠনের বিষয়টি নেতাকর্মীদের মাঝে আলোচনায় আসছে। যেখানে জেলা বিএনপির কমিটি গঠনের বিষয়ে সবচেয়ে আলোচনায় জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার। অন্যদিকে মহানগর বিএনপির নেতৃত্ব নিয়ে আলোচনায় রয়েছেন দেশব্যাপী আলোচিত আইনজীবী নেতা অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান। তৈমূর আলম খন্দকার বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ও অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন দীর্ঘদীন। গত ৪ মাসেরও বেশি সময় করোনা পরিস্থিতিতে জনগণের মাঝে এই দুই নেতারই ভূমিকা সবচেয়ে বেশি। করোনা পরিস্থিতিতে তারা দুজনই গরীব অসহায় খেটে খাওয়া পরিবারগুলোর মাঝে খাদ্য সামগ্রী ঈদ সামগ্রী বিতরণ করেছেন। যেখানে সিটি কর্পোরেশনের বিভিন্ন ওয়ার্ডে সাখাওয়াত হোসেন খান গিয়ে নিজ হাতে গরীব অসহায় মানুষের হাতে খাদ্য সামগ্রী ঈদ সামগ্রী তুলে দিয়েছেন। নেতাকর্মীরা বলছেন- নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে করোনা পরিস্থিতিতে একমাত্র তৈমূর আলম খন্দকার গরীব অসহায় দিনমজুর খেটে খাওয়া পরিবারগুলোর পাশে দাঁড়িয়েছেন। তার নির্দেশনায় নেতাকর্মীরা নিয়মিত মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী ও ঈদ সামগ্রী বিতরণ করেছেন। সেই সঙ্গে তার নির্দেশনায় প্রান্তিক কৃষকের পাকা ধান কেটে ঘরে তুলে দিয়েছেন। করোনা পরবর্তী পরিস্থিতি সামাল দেয়ার লক্ষ্যে তিনি একটি বাড়ি একটি খাদ্যভান্ডার শ্লোগানে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি পালন করছেন। এদিকে করোনা পরিস্থিতির শুরু থেকেই মাস্ক বিতরণ করেন সাখাওয়াত হোসেন খান। মহানগরীর বিভিন্ন এলাকায় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন। নারায়ণগঞ্জ সদর, বন্দর ও সিদ্ধিরগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে নিজ হাতে খাদ্য সামগ্রী ও ঈদ সামগ্রী বিতরণ করেছেন। সেই সঙ্গে নেতাকর্মীদের পাশেও দাঁড়িয়েছেন। অন্যদিকে গত ২১ ফেব্রুয়ারি নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় বিএনপি। বিলুপ্ত কমিটির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান মনির বিএনপির রাজনীতি থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন। সেক্রেটারি অধ্যাপক মামুন মাহামুদ আবারো জেলা বিএনপির সেক্রেটারি পদ ভাগিয়ে আনতে চেষ্টা করছেন। তবে মহানগরীর মুল এলাকা সিদ্ধিরগঞ্জ থানা মহানগরীতে অন্তর্ভূক্ত হলে অধ্যাপক মামুন মাহামুদের সেই সুযোগ জেলায় না থাকতে পারে। কিন্তু করোনাকালে কাজী মনির ও মামুন মাহামুদের জনগণের পাশে ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ। একইভাবে মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি আবুল কালাম এক মুঠো চালও গরীব অসহায় মানুষের মাঝে বিতরণ করেননি। সাবেক সেক্রেটারি এটিএম কামাল রয়েছেন দল থেকে বাইরে। এমন পরিস্থিতিতে মহানগরীর রাজনীতিকে সচল রেখেছেন সাখাওয়াত হোসেন খান। গত ২১ ফেব্রুয়ারী সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান ও সাধারণ সম্পাদক মামুন মাহমুদের নেতৃত্বাধীন নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় কমিটি। দলটির সহ-দফতর সম্পাদক মুহাম্মদ মুনির হোসেন স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তবে কি কারণে কমিটি বিলুপ্ত করা হয়েছে তা বিজ্ঞপ্তিতে স্পষ্ট করে কিছু জানানো হয়নি। শুধুমাত্র নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করে ওই সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, পরবর্তী নতুন কমিটি গঠন না হওয়া পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ জেলাধীন সব উপজেলা ও পৌর বিএনপির কার্যক্রম বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও সহ-সাংগঠনিক সম্পাদকদের পরামর্শে পরিচালিত হবে। অপরদিকে, বিএনপির দুই নেতার মামলার পরিপ্রেক্ষিতে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির নবগঠিত পূর্ণাঙ্গ কমিটির সব ধরণের কার্যক্রম স্থগিতের আদেশ দিয়েছেন আদালত। গত ২৮ নভেম্বর বিকেলে নারায়ণগঞ্জ দ্বিতীয় সহকারী জজ আদালতের বিচারক শিউলি রানী সরকার এ আদেশ দেন। গত ১৩ নভেম্বর নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক সভাপতি গোলজার হোসেন খান ও একই ওয়ার্ডের সাবেক নিরক্ষরতা দূরীকরণ সম্পাদক নুরে আলম বাদী হয়ে আদালতে মামলাটি দায়ের করেন। মামলার আসামি করা হয়েছে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সভাপতি সাবেক সাংসদ অ্যাডভোকেট আবুল কালাম, সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল, নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *