Home » প্রথম পাতা » রূপগঞ্জ ভ’মি অফিসে অনিয়মই যেন নিয়ম

না’গঞ্জে হাইব্রীডদের ছড়াছড়ি

১৫ নভেম্বর, ২০২১ | ৯:১০ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 83 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

দিন যতই যাচ্ছে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগে হাইব্রীড নেতাদের দাপট বাড়ছে। যার প্রমাণ পাওয়ায় যায় দ্বিতীয় ধাপে ইউনিয়ন পরেষদ নির্বাচনে। নির্বাচনে সদর উপজেলার আলীরটেক ও কুতুবপুরে নৌকা প্রতীক পেয়েছেন এমন ব্যক্তিরা যারা কখনোই আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন না। মূলত জেলার শীর্ষ নেতা থেকে শুরু করে ইউনিয়ন পর্যন্ত হাইব্রীড নেতাদের ছড়াছড়ি। জানাগেছে, ২০০৮ সালের ডিসেম্বরে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বিজয়ীর পর টানা তৃতীয়বারের মত আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায়। তবে ২০০৮ সালের আগে যারা দলের দু:সময়ে শত নির্যাতনের শিকার হয়েও রাজপথে সক্রিয় ছিলেন যে সকল ত্যাগী নেতারা আজ সেই ত্যাগীরাই হাইব্রীডদের চাপে কোনঠাসা হয়ে রাজনীতিতে নিস্ক্রীয় হয়ে পড়েছেন। মূলত দল টানা তৃতীয়বারের মত আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় থানায় নারায়ণগঞ্জের অসংখ্য নেতার ভাগ্যের পরিবর্তন হলেও দলের দু:সময়ের নেতারা খেয়ে না খেয়ে দিন টাকাচ্ছেন। বিভিন্ন সময়ে নারায়ণগঞ্জের একাধিক জনপ্রতিনিধি ও ক্ষমতাসীন দলের নেতারা আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ বনে যাওয়ার বিষয়টি স্থানীয় ও জাতীয় দৈনিক পত্রিকাগুলোতেও প্রকাশিত হয়েছিল। তবে এতে কোন কাজ হয়নি। তবে ২০১৯ সালের শেষের সাড়া দেশে আওয়ামীলীগে শুদ্ধি অভিযান শুরু হওয়ার পর নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের ত্যাগী নেতারা সন্তুষ্ট হয়েছিল। কেননা তখন সাড়াদেশের ন্যায় নারায়ণগঞ্জেও শুদ্ধি অভিযানের কথা ছিল। এমনকি এরই মধ্যে নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগি সংগঠনের সুবিধাবাদি নেতার বিরুদ্ধে অভিযোগের প্রক্ষিতে তথ্য সংগ্রহ করে তা গোপনে তদন্ত করছিল একটি গোয়েন্দা সংস্থা। তাদের আয়, উপার্যনের খাত, ইনকাম ট্যাক্স প্রদান, ২০০৮ সালের ডিসেম্বরে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার আগের সম্পদ ও পরের সম্পদ, কার নিয়ন্ত্রণে কোন কোন সেক্টর, বাহিনীতে কারা কারা আছেন, কে কোন এলাকা নিয়ন্ত্রন করেন এর যাবতীয় তথ্যাবলী সংগ্রহ করে তা কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে জমা দিয়েছিল। ঐ সময় নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের অনেক বিতর্কিত নেতা আত্মগোপনে চলে গিয়েছিলেন। কিন্তু ২০২০ সালের মার্চ মাস থেকে সাড়া দেশে করোনা ভাইরাসের প্রভাব ছড়িয়ে পড়ায় নারায়ণগঞ্জে আওয়ামীলীগে শুদ্ধি অভিযান বন্ধ হয়ে যায়। এতে করে ফের দাপুটে হয়ে উঠে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের বিতর্কিত নেতারা। তাই করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার সাথে সাথেই নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের বিতর্কিত নেতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবী উঠেছিল। কিন্তু বিতর্কিতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার পরিবর্তে এবার ইউপি নির্বাচনে বহিরাগতদের নৌকা প্রতীকের মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। যার ফলে হাইব্রীড নেতাদের আগামীতে লাগাম টেনে ধরে রাখা সম্ভব হবে না বলে মনে করছেন দলের ত্যাগী নেতাকর্মীরা। সূত্র বলছে, নারায়ণগঞ্জে ক্ষমতাসীন দলের কতিপয় নেতারা আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ বনে গেছেন। টেন্ডারবাজী, জমি দখল, ভূমি দস্যুতা, চাঁদাবাজীসহ বিভিন্ন অপর্কম চালিয়ে নিজেদের ভাগ্যের পরিবর্তন করেছেন কতিপয় নেতারা। তাই বরাবরই নারায়ণগঞ্জে শুদ্ধি অভিযানের দাবী করে আসছে দলের ত্যাগী নেতাকর্মীরা।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *