Home » শেষের পাতা » হাইকোর্টের আদেশ অমান্য করে সড়ক-মহাসড়কে চলছে চাঁদাবাজী

না’গঞ্জ ৩’ শয্যা হাসপাতালে রোগীদের ভোগান্তি চরমে

১১ আগস্ট, ২০২২ | ৯:২৮ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 45 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট ঘড়ির কাঁটায় তখন ১২টা। হাসপাতালের প্রধান ফটক দিয়ে ঢুকতেই রোগী ভেবে পথ আটকে দাঁড়ালো দুজন। বললেন, ডাক্তার দেখাবেন? ভিতরে ভীড়, তিন ঘন্টায়ও ডাক্তার দেখাতে পারবেন না। চলেন কমে প্রাইভেটে দেখায় দেই। অসম্মতি জানিয়ে হাসপাতালের বহি.বিভাগের ভিতরে প্রবেশের পূর্বেই তুমুল হৈচৈ এর আওয়াজ পেলাম। ভিতরে ঢুকতেই চোখে পড়ল মহিলা টিকেট কাউন্টারের সিরিয়ালে শতাধিক রোগী । কিন্তু পুরুষের সিরিয়ালে রোগীর সংখ্যা স্বাভাবিক। মহিলা কাউন্টারে টিকেট বিক্রেতা নেই। আধ ঘন্টা সময় পেরুলেও টিকেট বিক্রেতার দেখা মিলে না। এদিকে আর কিছুক্ষণ পরেই বন্ধ হয়ে যাবে টিকেট কাউন্টার, বন্ধ হবে ডাক্তারের রোগী দেখার সময়। হয়ত এসব রোগীরা ডাক্তার দেখাতে পারবেন কিংবা ফিরতে হবে ডাক্তার না দেখিয়েই। হাসপাতালের অব্যবস্থাপনা দেখে রোগীরা হতাশা প্রকাশ করলেও রোগীদের এই ভোগান্তি যেন নিত্যদিনের চিত্র। গতকাল বুধবার দুপুরে নগরের খানপুরে ৩’শ শয্যা হাসপাতালের রোগীদের এই ভোগান্তির দৃশ্য চোখে পড়ে। মহিলা টিকেট কাউন্টারের টিকেট বিক্রেতার দায়িত্বে রয়েছেন হাসপাতালের কর্মচারী মনির। তিনি রোগীদের টিকেট শেষ, পুনরায় টিকেট আনবেন জানিয়ে সাড়ে ১১ টার দিকে কাউন্টার থেকে প্রস্থান করেন। ঘন্টাখানেক টিকেট না পেয়ে হৈচৈ শুরু করেন রোগীরা। পৌনে ১টার দিকে রোগীদের অনুরোধে অন্য কর্মচারী তাকে ডেকে নিয়ে আসেন। তবে এরমধ্যে কিছু রোগী আজ (বুধবার) আর ডাক্তার দেখাতে পারবেন না এই ভেবে বাড়ি ফিরে যান। টিকেট কাউন্টার ছেড়ে কোথায় ছিলেন এমন প্রশ্নে টিকেট বিক্রেতা মনির পান চিবুতে চিবুতে বলেন, এখানেই, টিকেট আনতে গিয়েছিলাম। এতক্ষণ কেন? এই প্রশ্নের জবাব এড়িয়ে গেলেন। জানা যায়, হাসপাতালের টিকেট বিক্রির সময় সকাল ৮ থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত। ডাক্তারদের রোগী দেখার সময় দুপুর ২টা পর্যন্ত। কিন্তু এই সময়ের আগেই ফুরিয়ে যায় সেবার সময়। হাসপাতালের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মচারী এই বিষয়ে মন্তব্য করে বলেন, টিকেট বিক্রেতা রোগীদের সিরিয়ালে রেখে উধাও হয়ে যাওয়ার বিষয়টি স্বাভাবিক। কারণ, এমন ঘটনা এর আগেও বহুবার হয়েছে। শেষে কিছু রোগী টিকেট পায়, কিছু আবার পায় না। হাসপাতালে কানের চিকিৎসা করাতে এসে ডাক্তার না দেখিয়েই ফিরে যান শিউলি আক্তার। তিনি বলেন, ১১টা থেকে সিরিয়ালে দাঁড়িয়েছি। টিকেট বিক্রেতা টিকেট আনার কথা বলে যে গেছে এখনো আসে নাই। টিকেট পেয়ে আবার ডাক্তারের কাছে সিরিয়াল ধরতে হয়। এতো দেরি হয়েছে, টিকেট পেলেও হয়তো ডাক্তার পাবো না। আজকে গার্মেন্টেসে ছুটি নিয়ে আসছি। আরেকদিন ছুটি পাই কিনা সন্দেহ। ছুটি পাইলে সামনের সপ্তাহে আসব। স্কুল শিক্ষক মরিয়ম বেগম বলেন, সরকারি হাসপাতালে আসলে টাকা কম খরচ হয়, এ কারণে এখানে আসা। কিন্তু চিকিৎসা করতে এসে এতো ভোগান্তি ভালো লাগে না। হাসপাতালে তো মানুষ শখে আসে না বাধ্য হয়েই আসে। আমার কোমরে অনেক ব্যাথা, এক ঘন্টা যাবৎ কেবল টিকেটের জন্য দাঁড়িয়ে থেকে ব্যাথা অনেক বাড়ছে। বসার জায়গা নেই। আর অপেক্ষা সম্ভব না। ছেলেরে পাঠিয়েছি, রিকশা আনতে। চলে যাবো। ওনার কথা শেষ না হতেই একজন ষাটোর্ধ্ব বৃদ্ধা বলেন, ইচ্ছা করে মানুষরে কষ্ট দিতাছে। বড় ডাক্তারের (হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের) কাছে বিচার দেওন দরকার। ৩০০ শয্যা হাসপাতাল তত্ত্বাবধায়ক ডা. আবুল বাশার এ বিষয়ে বলেন, টিকেট কাউন্টারে মহিলা বিভাগে যিনি দায়িত্বে ছিলেন ওনি অবসর নিয়েছেন। মনিরকে আপাতত তার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। কিন্তু মনির কেন তার দায়িত্বের সময় সেখানে ছিলেন না, বিষয়টি বিস্তারিত জেনে  প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *