Home » শেষের পাতা » অধিগ্রহণ হচ্ছে নদীর জমি

নারায়ণগঞ্জ স্বেচ্ছাসেবক লীগেও বিরোধ

২৮ জুলাই, ২০২১ | ১২:০১ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 78 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ছিল গতকাল মঙ্গলবার। ১৯৯৪ সালের ২৭ জুলাই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা ছাত্রলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের সাবেক নেতাদের সমন্বয়ে সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা করেন। নারায়ণগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটি প্রায় ১ যুগ আগের করা আহবায়ক কমিটি দিয়েই চলছে তাদের সাংগঠনিক কার্যক্রম। আর সেই আহবায়ক কমিটির শুধুমাত্র আহবায়ক আর যুগ্ম আহবায়ক ছাড়া বাকী নেতাদের দেখা মিলে না। অপরদিকে মহানগরের অবস্থাও ত্রাহি। সভাপতি জুয়েল হোসেন সরব থাকলেও সেক্রেটারী কাউন্সিলর দুলাল প্রধান অনেকটাই নীরব। বরং তাদের মধ্যে দেখা দিয়েছে বিরোধ। এরই মধ্যে দুলাল ফেনসিডিল সহ গ্রেপ্তারের পর বিতর্কিত হয়ে উঠেছেন। ২০১৯ সালের ১ আগষ্ট ২৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও নারায়ণগঞ্জ মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক দুলাল প্রধানকে শহরের নবীগঞ্জ খেয়াঘাট এলাকা থেকে ফেনসিডিল সহ তাকে আটক করা হয়েছিল। এরপর ৫ আগস্ট তিনি জামিনে বের হয়ে আসেন। সেসময় তিনি দাবী করেছিলেন তার সুনাম নষ্ট করার জন্যই এই ঘটনা ঘটিয়েছিল। পাশাপাশি মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি থাকলেও ওয়ার্ড ও থানা পর্যায়ে তাদের বহুদিন ধরে কমিটি আটকে রয়েছে। তবে এসকল কিছু ছাপিয়ে নারায়ণগঞ্জ মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাকর্মীরা নারায়ণগঞ্জবাসীর বিভিন্ন সমস্যায় পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। জানা যায়, ২০১৭ সালের ২০ জুলাই শহর স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটি বিলুপ্ত করে মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটি গঠন করা হয়। এতে সভাপতি করা হয় মোঃ জুয়েল হোসেনকে যিনি বিলুপ্ত কমিটির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। বর্তমান কমিটির সাধারণ সম্পাদক করা হয় সিটি করপোরেশনের ২৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাইফুদ্দিন আহম্মেদ দুলাল প্রধানকে। তবে এই কমিটি গঠনের পর তাদের অধীনে বিভিন্ন থানা ও ওয়ার্ড কমিটি গঠনে তেমন একটা উদ্যোগ লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। বর্তমানে এই কমিটি দিয়েই তাদের দলীয় কার্যক্রম চলছে। বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। সেই সাথে নারায়ণগঞ্জ মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মোঃ জুয়েলের স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাকর্মীরা বিভিন্ন দুর্যোগে নারায়ণগঞ্জবাসীর পাশে দাঁড়াচ্ছেন। এদিকে শুধুমাত্র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী এলেই নারায়ণগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ সরব হয়ে থাকেন। সারাবছর জুড়ে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে তাদের কোন আলাপ আলোচনাই থাকে না। নারায়ণগঞ্জে জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের কার্যক্রম আছে কিনা সেটা নিয়েই অনেক সময় সন্দেহ সংশয় সৃষ্টি হয়ে যায়। জানা যায়, ওয়ান এলেভেনের সময় নারায়ণগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের আহ্বায়ক কমিটি গঠিত হয়। আহ্বায়ক ও যুগ্ম আহ্বায়ক ৫ জনসহ ১০১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠিত হয়। এতে আহ্বায়ক করা হয় নিজামউদ্দীনকে এবং যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয় ফিরোজ হোসেন, আব্দুল মতিন মন্টু, গোলাম কিবরিয়া খোকন ও শাহাজাদা প্রধান বাবুলকে। বর্তমানে জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের এদের কারও সক্রিয়তা নেই। নিজামউদ্দীনকে মাঝে মাঝে নিজ সংগঠনের বাইরে গিয়ে অন্য সংগঠনের কর্মসূচিতে একা দেখা গেলেও অন্যদের কোন খোঁজ খবর নেই। পাশাপাশি নারায়ণগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক কমিটি গঠনের প্রায় এক যুগের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও পূর্ণাঙ্গ কিমিটি গঠনের ক্ষেত্রে তেমন কোন উদ্যোগ লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। যারা শীর্ষ পদে রয়েছেন তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের সাথে তাদের তেমন একটা যোগাযোগও হয়ে থাকে না।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *