Home » শেষের পাতা » মেয়াদি সুদের ফাঁদে জিম্মি হত-দরিদ্র জনগোষ্ঠী

নাসিক নির্বাচন নিয়ে নয়া সমীকরণ

২৮ নভেম্বর, ২০২১ | ৯:৪৭ পূর্বাহ্ণ | ডান্ডিবার্তা | 41 Views

ডান্ডিবার্তা রিপোর্ট

নাসিক নির্বাচন  যত সামনে আসছে, নির্বাচনী রাজনীতি ততই নতুন মাত্রা পাচ্ছে। হঠাৎ করেই রাজনীতিতে যুক্ত হচ্ছে নতুন নতুন মেরুকরণ। বদলাচ্ছে রাজনৈতিক চিন্তাভাবনা। নানা পরিবর্তন লক্ষ করা যাচ্ছে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যেও। বিশেষ করে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও তাদের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি-এই নির্বাচনী রাজনীতির মূল কেন্দ্রবিন্দুতে না থাকলেও নিজেরাই নিজেদের প্রতিপক্ষ । কে, কাকে, কোন কৌশলে পেছনে ফেলে পার হবে নির্বাচনী বৈতরণী; সে নিয়ে যেমন রয়েছে নানা হিসাব-নিকাশ, সমীকরণ; তেমনি জয় নিশ্চিত করতে কাকে নিয়ে কোন পথে এগোলে সফলতা আসবে-ভাবতে হচ্ছে তা নিয়েও। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি বেগ পেতে হচ্ছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে। দল ক্ষমতায় থাকায় সরকার পরিচালনায় প্রতিদিনই নানা চ্যালেঞ্জ যেমন সামাল দিতে হচ্ছে তাদের, তেমনি নির্বাচনী রাজনীতিতে নিতে হচ্ছে নানা উদ্যোগ ও কৌশল। ফলে গত কয়েক দিনের রাজনীতিতে এক ধরনের পরিবর্তন দেখা যাচ্ছে দলের মধ্যে। ১১ নভেম্বর অনুষ্ঠিত নারায়নগঞ্জের ১৬ টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের পর থেকেই অনেকটা পরিবর্তনের আভাস লক্ষ্য করা যাচ্ছে। আসন্ন নাসিক নির্বাচন নিয়ে  সবচেয়ে বেশি সতর্ক। নির্বাচন সামনে রেখে উভয় বলয় গোপনে নতুন নতুন জোট গঠনের রাজনীতিতে। অবশ্য সেদিক থেকে সবচেয়ে সুবিধাজনক অবস্থায় নাসিক মেয়র ডাঃ সেলিনা হায়াত আইভী বলয়ে। জোটের ব্যাপারে দলটি ক্ষমতাসীনদের মতো সতর্কভাবে সামনে এগোলেও সরকারের সমালোচনায় মুখর দলের শীর্ষ নেতারা। বসে নেই আওয়ামী লীগ ও বিএনপি নেতৃত্বাধীন বড় দুই জোটের বাইরের রাজনৈতিক দলগুলোও। তাদের মধ্যেও চলছে নির্বাচনের নানা হিসাব-নিকাশ। শুরু হয়েছে জোট গঠনের উদ্যোগ। বড় দুই জোটের বাইরে নির্বাচনী মাঠে নিজেদের শক্তির জানান দিতে বিশেষ কৌশলে এগোচ্ছে তারাও। অন্তত তিনটি প্লাটফর্মে এসব রাজনৈতিক দল পৃথক জোট গঠনের চিন্তা করছে। সবার উদ্দেশ্য ক্ষমতার ভাগাভাগির দরকষাকষি। তবে সে পথ কি হবে-এককভাবে, নাকি বড় দুই জোটের ছায়া হয়েই ভোটের মাঠে লড়বেন তারা; সে নিয়েও চলছে নানা সমীকরণ ও হিসাব-নিকাশ। এজন্য গোপনে ও প্রকাশ্যে চলছে দফায় দফায় বৈঠক। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাদের সঙ্গে কথা বলে ও রাজনীতির হালচাল পর্যবেক্ষণ করে নির্বাচনী রাজনীতির এমন চিত্র ওঠে এসেছে। আওয়ামী লীগ ও বিএনপির পাশাপাশি রাষ্ট্রবিজ্ঞানী-রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা এই তৃতীয় রাজনৈতিক জোট গড়ার উদ্যোগকে ভালো চোখেই দেখছেন। তাদের মতে, এই নতুন জোটের সঙ্গে সম্পৃক্তরা রাজনৈতিক প্রজ্ঞাবান মানুষ। রাজনৈতিক উদ্দেশের বাইরে তাদের অন্য কোনো উদ্দেশ্য থাকার কথা নয়। তাদের দ্বারা জাতীয় রাজনীতি বা নির্বাচনে কোনো ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা নেই। আনু  বলেন, রাজনীতিতে উত্থান-পতন থাকবে, কারণ রাজনীতি কখনো একই থিওরি মেনে চলে না এমন দাবী নাসিক ২৬নং ওর্য়াডের সাবেক কাউন্সিলর ও আওয়ামীলীগ নেতা আনোয়ার হোসেন আনু। তবে জোটের রাজনীতি সব সময় প্রাসঙ্গিক বলে মনে করছেন এ নেতা। জোটের রাজনীতি কখনোই গুরুত্ব হারাবে না। জোট হয় আদর্শগতভাবে, শুধু নির্বাচনকেন্দ্রিক নয়। সমমনা দলগুলো নিয়েও জোট হয়। আগেও জোটের রাজনীতি প্রাসঙ্গিক ছিল, বর্তমানেও আছে, ভবিষ্যতেও থাকবে। এ বিষয়ে মহানগর সেচ্ছাসেবকলীগের সাধারন সম্পাদক ও নাসিক ২৩নং ওর্য়াড কাউন্সিলর সাইফুদ্দিন আহমেদ দুলাল প্রধান বলেন, গণতন্ত্রের শত ফুল ফুটছে, ভালো তো। জোট হবে, নয়া মেরুকরণ হবে-এটাই রাজনীতির নিয়ম। এটা হতে থাক, অসুবিধা কী? নির্বাচন সামনে রেখে যা হচ্ছে তা ভালো দিক। তবে শেষ পর্যন্ত এ মেরুকরণ কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, তা দেখতে অপেক্ষা করতে হবে। এ ব্যাপারে দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান বলেন, নির্বাচনের আগে নতুন নতুন জোট হওয়া ইতিবাচক রাজনীতির লক্ষণ। এসব জোট যতটা না আদর্শগত, তারচেয়ে বেশি কৌশলগত। তবে ভোটের রাজনীতিতে এদের গুরুত্ব রয়েছে। একইভাবে নতুন কৌশলে এগোচ্ছে বিএনপিও। বন্দর উপজেলা আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে ওসমান পরিবারের অনুসারী তরুন উদীয়মান নেতারা সক্রিয় থাকলেও চলছে নানামুখি ষড়যন্ত্র। বন্দর থানা ছাত্রলীগের নেতারাই রাজনীতিতে কঠোর ভূমিকা পালনসহ সংগঠনের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে। তবে বন্দর থানা বা উপজেলা যুবলীগের অস্তিত্ব নেই। বন্দর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি-সম্পাদকের নাম ঘোষণা পূর্বক ত্রি- বার্ষিক উপজেলা আওয়ামীলীগের কমিটি ঘোষনা হলেও প্রায় ২ বছরে পূর্ণাঙ্গ কমিটি করতে ব্যার্থ হয়েছে। এ কমিটি ঘোষনা নিয়েও চলছে নানা সমীকরণ। বন্দর উপজেলা কমিটি ঘোষনা হলে বন্দর শহরের ৯টি ওর্য়াড নিয়ে থানা আওয়ামীলীগ কমিটি হওয়া নিয়েও নানা হিসেব কষতেছে।

Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *